???

বিকেলের জাফরানি রোদে কলকাতা ক্ষণকালরূপচার্চা করে নেয় আনমনে আরপথে যেতে যেতে খুব কাছ থেকে দেখিবাগবাজারের চৌরাস্তায় গিরীশ ঘোষের বাড়িউদাস দাঁড়িয়ে… Read more ???

অচিন মানুষ

ঘুমের ভেতর প্রায় রোজই এসে দাঁড়ায় কে এক অচিন মানুষ; চেয়ে থাকে প্রগাঢ় আমার দিকে কিছুক্ষণ, জাফরানি-রঙ আলখাল্লা তার হাওয়ায়… Read more অচিন মানুষ

অভিন্ন মানুষ

অনেক অনেকক্ষণ ধরে সুদূরে চলেছি হেঁটে; অকস্মাৎ মনে হ’ল, যেখানে ছিলাম সেখানেই রয়ে গেছি। চারপাশে বেবাক একই তো আছে-সেই ঘরবাড়ি,… Read more অভিন্ন মানুষ

অরূপ রতন

যখন নেপথ্যে ডুব দিয়ে অতলে কাটাতে চাই নিজস্ব সময় কিছু, জাল ফেলে, আমার চুলের মুঠি ধরে ওরা টেনে তুলে আনে… Read more অরূপ রতন

আজীবন অক্লান্ত সাধনা ছিল তাঁর

আততায়ী অন্ধকার অতর্কিতে বর্বর, দাঁতাল হিংস্রতায় গ্রাস করে পূর্ণিমাকে। মহিমার বিনাশে কাদার কৃমিকীট, সরীসৃপ, পিশাচেরা উল্লসিত হয়। ইতিহাস যাঁকে খোলা… Read more আজীবন অক্লান্ত সাধনা ছিল তাঁর

আনন্দ

আমার বাসার সামনের অনাথ শিশুনিকেতনের দেয়ালে সেঁটে-থাকা ঝলমলে রোদ দেখে আজ কী যে ভালো লাগে আমার। আনন্দ আমাকে জড়িয়ে ধরে… Read more আনন্দ

একজন কবি

আহ্‌ এত আতশবাজি, মালার বাহার, আলোর প্লাবন চারদিকে। কেমন একটা মন-মাতানো সুরের ঘূর্ণিনাচ সবুজ লন, ফুলের গাছ, গাড়ি বারান্দা, আর… Read more একজন কবি

একদা এখানে

একদা এখানে এই বাড়িতে করত বসবাস পরম শান্তিতে কতিপয় নিরিবিলি বাশিন্দা, ছিল না কোনও চেঁচামেচি বাড়িটিতে, কিংবা কোনও দিন অকস্মাৎ… Read more একদা এখানে

ওরে নির্বোধ

ওরে নির্বোধ, ওরে হঠকারী পদ্য-লিখিয়ে কেন তুই শেষে এমন পদ্য লেখার নেশায় মেতেছিলি এই সূর্য ডোবার একটুকু আগে? বেশ তো… Read more ওরে নির্বোধ

কবি

নিশীথ আমাকে তার থমথমে অন্ধকারে একটি গাছের নিচে দাঁড় করিয়ে নিগূঢ় কিছু কথা মৃদু বলে নেয়, অবয়বহীন তাকে ছুঁতে গিয়ে… Read more কবি

কবির মিনতি

থাকেন আপন মনে নিঝুম স্টাডিতে নিমগ্ন পুস্তকপাঠে, কখনওবা কবিতা লেখায়। কয়েকটি কবুতর রোজ তার আতিথেয়তায় তৃপ্ত ওড়ে কাছের আকাশে প্রফুল্ল… Read more কবির মিনতি

কাঁটার মুকুট

প্রত্যহ পাথর ছুঁড়ে মারবার লোকের অভাব নেই এই চৌরাস্তায়্য, অলিতে গলিতে। ডাকলেই বেশ কিছু লোক জুটে যায়, হৈ-হল্লায় মেতে ওঠে,… Read more কাঁটার মুকুট

কাল রাতে

কাল রাতে স্বপ্নের ভেতরে কী-যে দেখেছিলাম, কিছুই স্পষ্ট মনে নেই। তবে এটুকু দেখেছি বলে মনে হয়, কয়েকটি পাতাহারা বড় নগ্ন… Read more কাল রাতে

কুয়াশায়

ভীষণ কুয়াশা চতুর্দিকে, কাছে দূরে সব কুছি দৃষ্টির বাইরে, আছে শুধু প্রবল হোঁচট খাওয়া। মনে হয়, ভেজা মাটি ফুঁড়ে আসছে… Read more কুয়াশায়

কে একজন

হল্‌দে পাখির নরম বুকের মতো বিকেল বিশ্রামের আমেজে বুঁদ ছিল। চোখ বুজে এসেছিল প্রায়, হঠাৎ সে কী ঠোকর কাদাখোঁচা আর… Read more কে একজন

চাদর

গোধূলি রঙের মিহি নির্ভার চাদর গায়ে একজন যোগী এলেন আমার ঘরে খুব নিরিবিলি। আমি ছাড়া জানতে পারেনি কেউ; আমার চেয়ার… Read more চাদর

ছয়তলা বাড়ি

ছয়তলা বাড়ি, বড় একা, চুপচাপ দাঁড়িয়ে রয়েছে, রুক্ষ দরবেশ যেন। মাঝে মাঝে ওর খুব কাছে যাই, প্রবেশ করি না। প্রবেশের… Read more ছয়তলা বাড়ি

জীবনের মতোই

একটি পূর্ণিমা-চাঁদ জেগেছিল হৃদয়ে আমার দু’বছর নয় মাস আগে। সেই চাঁদের কোণায় মালিন্য দিচ্ছে কি লেপে কিংবা কোনও ফেউ চেটে… Read more জীবনের মতোই

দুই পক্ষ

তার জন্মদিনটির ললাটে প্রথম আলো চুমো এঁকে দিলে এক পক্ষ বলে- বহু ভোরবেলাকার, দুপুরের, গোধূলির রঙ মেখে সত্তায় আখেরে সত্তর… Read more দুই পক্ষ

ফের উড়ে যা

হায়রে এমনই পোড়া কপাল বান্ধব তোর, এই ঘিনঘিনে কাদা জলে আটকা পড়লি। জানতাম, তুই ধবধবে ডানা মেলে নীলিমায়, মেঘে মেঘে… Read more ফের উড়ে যা

বিনিময়

ঘণ্টার পর ঘণ্টা এক দৃষ্টিতে একই দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে আমার অসুস্থ চোখ দুটো হাঁপিয়ে উঠেছিল। আমার ছিপের ফাৎনাটা মাঝে… Read more বিনিময়

বিনীত মুদ্রায়

এরকম তাড়াহুড়ো, হুটোপুটি সাজে না তোমাকে। আগে তুমি ছিলে না এমন বাস্তবিক; মৎস্য শিকারির মতো প্রতীক্ষায় থাকতে সুস্থির, যদিও অন্তরে… Read more বিনীত মুদ্রায়

মায়ামৃগ

সকলেই চেনে না কবিকে, কেউ কেউ চেনে তাকে প্রচণ্ড হৈ-হল্লা, ভিড়ে অথবা বিজনে কখনও সখনও। কেউ চিনলেও দূরে সরে যায়… Read more মায়ামৃগ

লিখতে বসব

লঘু পায়ে ভোর এল, বারান্দায় রোদের ঝলক শুয়ে আছে কাৎ হয়ে তরুণীর ভঙ্গিমায়, যেন ওর স্তনে প্রজাপতি এসে বসে আলগোছে,… Read more লিখতে বসব