০৫. সার সংক্ষেপ – শ্রেণী-বিন্যাস

সার সংক্ষেপ – শ্রেণী-বিন্যাস

প্রমাণ ও যুক্তিসিদ্ধ অনুমানের সাহায্যে আমরা যাহা পাইলাম তাহার সারমর্ম এখন এইভাবে আমরা প্রকাশ করিতে পারি। সুপ্রাচীন বাঙলার শ্রেণী-বিন্যাস সম্বন্ধে পঞ্চম শতকের আগে উপাদানের অভাবে কিছু বলা কঠিন। তবে কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্ৰ, জাতকের গল্প, মিলিন্দপঞহ, পেরিপ্লাস-গ্রন্থ, টলেমির বিবরণ, কথাসরিৎসাগরের গল্প, বাৎস্যায়নের কামসূত্র, মহাভারতের গল্প, গ্ৰীক ঐতিহাসিকদের বিবরণ, এবং সমসাময়িক সাহিত্যে প্রাচীন বাঙলার শিল্প-ব্যাবসা-বাণিজ্যের সমৃদ্ধির যে পরিচয় পাওয়া যায় তাহাতে মনে হয়, শিল্পী, বণিক ও ব্যবসায়ীদের একাধিক সুসমৃদ্ধ সুনির্দিষ্ট অর্থনৈতিক শ্রেণী দেশে বিদ্যমান ছিল, এবং রাষ্ট্রে ও সমাজে তাহাদের প্রভাব এবং আধিপত্যও ছিল যথেষ্ট। ধনোৎপাদন ও বণ্টন ব্যবস্থায় এই শ্রেণীগুলির প্রভুত্ব সহজেই অনুমেয়। বাৎস্যায়নের কামসূত্রে গৌড়, বঙ্গ, পুণ্ডে যে নাগর-সভ্যতার পরিচয় পাওয়া যায় তাহা যে সদাগরী ধনতন্ত্রেরই সৃষ্টি এ-সম্বন্ধে সন্দেহ প্রকাশের কোনও কারণ দেখি না। ধর্ম ও অধ্যাপনাজীবী একটি শ্রেণীর আভাসও পাওয়া যায়, এবং এই শ্রেণী জৈন এবং বৌদ্ধ যতি ও ব্রাহ্মণদের লইয়া গঠিত। অঙ্গ-বঙ্গ-কলিঙ্গের ব্ৰাহ্মণদিগকে অর্জন অনেক ধনরত্ন উপহার দিয়াছিলেন, এ-তথ্য মহাভারতেই উল্লিখিত আছে (১৷৷২১৬)। বাৎস্যায়নও গৌড়-বঙ্গের ব্রাহ্মণদের কথা বলিতেছেন (৬।৩৮,৪১); সদাগরী ধনতন্ত্রপুষ্ট নাগর-সভ্যতা তাহাদেরও স্পর্শ করিয়াছিল। বাঙলায় স্বাধীন স্বতন্ত্র রাষ্ট্র তখন ছিল না। কিন্তু কৌম সমাজযন্ত্রের কথা ছাড়িয়া দিলেও কেন্দ্রীয় রাষ্ট্রের রাষ্ট্রযন্ত্র তো একটা ছিলই; মহাস্থানশিলাখণ্ড-লিপিই তাহার প্রমাণ। সেই রাষ্ট্রযন্ত্রকে কেন্দ্ৰ করিয়া যত ক্ষুদ্র ও সংকীর্ণই হউক, রাজপদোপজীবীদের একটি শ্রেণীও গড়িয়া উঠিয়াছিল, এই অনুমান অসঙ্গত নয়। ইহাদেরই অভিজাত প্রতিনিধি হইতেছেন গলদন— বাঙলায় মৌর্যরাষ্ট্রের প্রতিনিধি অর্থাৎ মহামাত্র। সর্বনিম্ন শ্রেণী:স্তরের একটু আভাসও পাওয়া যাইতেছে। বাৎস্যায়নের কামসূত্রে; এই স্তরে ছিল ক্ৰীতদাসেরা। বাৎস্যায়ন এই ক্রীতদাসদের কথা বলিয়াছেন। (৬৩৮)। পৃথিবীর সর্বত্রই সদাগরী ধনতন্ত্রের সঙ্গে ক্রীতদাস প্রথা অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িত; বাঙলাদেশেও তাহার ব্যতিক্রম হয় নাই। হিন্দু আমলের শেষ পর্যন্ত এই প্রথা বাঙলাদেশে প্রচলিত ছিল, জীমূতবাহন তাহার দায়ভাগ গ্রন্থে সেই সাক্ষ্য দিতেছেন। বাঙলায় দাস ক্রয়-বিক্রয়ের প্রথা অষ্টাদশ-ঊনবিংশ শতকেও প্রচলিত ছিল, তাহার প্রমাণস্বরূপ পট্ৰিকৃত দলিলপত্র আজও বাঙলার সর্বত্র পাওয়া যায়। ক্রমপ্রসারমান আর্য-ব্রাহ্মণ্য-বৌদ্ধ সমাজ ও সংস্কৃতির প্রান্তসীমায় যে-সমস্ত আদিবাসী কোম স্থান পাইতেছিলেন তাহারাও অর্থনৈতিক শ্রেণীসমূহের নিম্নস্তরেই নিবদ্ধ হইতেছিলেন, এ-অনুমানও খুব অসঙ্গত নয়।

 

পঞ্চম-সপ্তম শতক পর্ব

পঞ্চম শতকের গোড়া হইতে প্রায় অষ্টম শতকের মাঝামাঝি পর্যন্ত শ্রেণীবিন্যাসগত সামাজিক চেহারাটা সুস্পষ্ট ধরিতে পারা অনেক সহজ। এই পর্বে বাঙালী সমাজ প্রধানত শিল্প ও ব্যাবসা-বাণিজ্য নির্ভর; অর্থনৈতিক শ্রেণী হিসাবে শিল্পী-বণিক-ব্যবসায়ীর উল্লেখ না থাকিলেও সমাজে ও রাষ্ট্রে তীহাদের প্রাধান্য পরিষ্কার বুঝা যাইতেছে। কৃষক, ক্ষেত্রকর, কৃষিকর্ম, সবই সমাজে রহিয়াছে, কৃষিকর্মের বলে সমাজে ধনোৎপাদনও হইতেছে, কিন্তু যেহেতু সমাজ প্রথমত ও প্রধানত শিল্প-ব্যাবসা-বাণিজ্য নির্ভর, এবং ভূমি সম্পদ ও কৃষিকৰ্ম সামাজিক ধনের স্বল্প অংশ মাত্র, সেই হেতু কৃষকরা তখনও সুসমৃদ্ধ-সুসম্বন্ধ শ্রেণী হিসাবে গড়িয়া উঠিবার অবকাশ পান নাই, এবং সেইভাবে রাষ্ট্রে ও সমাজে স্বীকৃতিলাভও করিতে পারেন নাই। কিন্তু ষষ্ঠ শতকেই সামন্ত প্রথা স্বীকৃতি ও প্রতিষ্ঠালাভ করিতেছে, ভূমির চাহিদা বাড়িতে আরম্ভ করিয়াছে; বুঝা যাইতেছে, সমাজ ভূমিসম্পদকেই যেন প্রধান সম্পদ বলিয়া মানিয়া লইবার দিকে অগ্রসর হইতেছে। সপ্তম শতকের শেষার্ধ ও অষ্টম শতকের প্রথমার্ধপ্রায় জুড়িয়া রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক আবর্ত এবং পৌরাণিক ব্ৰাহ্মণ্যধর্মের দ্রুত অগ্রগতির স্রোতে এই বিবর্তন যেন সম্পূর্ণ হইল; শিল্প-ব্যাবসা-বাণিজ্য যেন ধনোৎপাদনের প্রথম ও প্রধান উপায় আর রহিল না। ইহার কারণ একাধিক; ভুমি-বিন্যাস, বর্ণবিন্যাস, ধনসম্বল, রাজবৃত্ত প্রভৃতি অধ্যায়ে নানা প্রসঙ্গে আমি এই সব কারণের উল্লেখ করিয়াছি; এখানে পুনরুল্লেখ করিয়া লাভ নাই। যাহা হউক, এই পর্বে অভিজাত ও অনভিজাত রাজপুরুষ, সংব্যবহারী ও রাজসেবকদের দেখা পাইতেছি; কিন্তু স্বাধীন স্বতন্ত্র রাষ্ট্র দেশে তখনও গড়িয়া উঠে নাই বলিয়া রাজকর্মচারী বা রাজসেবকদের সুনির্দিষ্ট শ্ৰেণী তখনও গড়িয়া উঠে নাই; তাহার সূচনামাত্র দেখা যাইতেছে। জৈন, বৌদ্ধ ও ব্রাহ্মণ্যধর্ম ও সংস্কৃতির ধারক ও নিয়ামক বুদ্ধি-বিদ্যা-জ্ঞান-ধৰ্মজীবী শ্রেণীর পরিচয় এই যুগে সুস্পষ্ট। তাহাদের মর্যাদা ও সম্মাননা সমাজে প্রতিষ্ঠিত হইয়া গিয়াছে, এবং তাহারা যে রাষ্ট্র ও সমাজের প্রতিপাল্য সেই দাবিও স্বীকৃত হইয়াছে। নিম্নতর শ্রেণী:স্তরের লোকেরা তো নিশ্চয়ই ছিলেন; কিন্তু তাহারা সমাজের প্রধান শ্রেণীগুলির বাহিরে। অর্থনৈতিক শ্রেণী হিসাবে তাহারা গড়িয়া উঠেন নাই, সেই হিসাবে তাহাদের কোনো মূল্য স্বীকৃতও হয় নাই; উল্লেখও সেই হেতু নাই।

 

অষ্টম হইতে ত্ৰয়োদশ শতক পর্ব

অষ্টম হইতে ত্ৰয়োদশ শতক পর্যন্ত অর্থাৎ আদিপর্বের শেষ পর্যন্ত বাঙালী সমাজ প্রধানত ও প্রথমত কৃষিনির্ভর। সামন্ত প্রথা সুপ্রতিষ্ঠিত, ভূমিই সমাজের প্রধান সম্পদ এবং সেই ভূমির অধিকারের বিচিত্র ক্রমসংকুচীয়মান স্তর লইয়াই এই যুগের সমাজ। ইহার একপ্রান্তে জনপদজোড়া ভূমির অধিকার লইয়া দোর্দণ্ডপ্রতাপে দণ্ডায়মান মুষ্টিমেয় মহামাণ্ডলিকমহাসামন্তরা; অন্যদিকে লেশমাত্র ভূমিবিহীন অসংখ্য প্রজার দল; মধ্যস্থলে ভূমিস্বত্বাধিকারের নানা স্তর। এই বিচিত্র স্তরই প্রধানত শ্রেণীনির্দেশের দ্যোতক। ইহাই এই যুগের প্রথম ও প্রধান সামাজিক বৈশিষ্ট্য। যেহেতু সমাজ প্রধানত ভূমিনির্ভর সেই হেতু এই পর্বে কৃষক-ক্ষেত্রকর শ্রেণীও সুস্পষ্ট সুনির্দিষ্ট সীমারেখা লইয়া চোখের সম্মুখে ফুটিয়া উঠিয়াছে। একই কারণে গ্রাম্য সমাজে ভূমিসম্পদসমৃদ্ধ একটি ভূম্যধিকারী, এবং আর একটি কৃষিসম্পদসমৃদ্ধ গ্রাম্য কুটুম্ব, গৃহস্থ, ভদ্র শ্রেণীও গড়িয়া উঠিয়াছে। ইহাদের ঠিক পৃথক একটি। শ্রেণী বলা হয়তো উচিত নয়, বরং একই শ্রেণীর বিভিন্ন স্তর বলিলেই যথাৰ্থ বলা হয়। শিল্পী, বণিক এবং ব্যবসায়ীরাও সমাজে আছেন; শিল্পকর্ম, ব্যাবসা-বাণিজ্যও চলিতেছে। কিন্তু ভূমিনির্ভর, কৃষিনির্ভর সমাজে শিল্প-ব্যাবসা-বাণিজ্য ধনোৎপাদনের অন্যতম উপায় মাত্র, প্রধান উপায় আর নহে। সেইজন্য শ্রেণী হিসাবে এই শ্রেণীদের অস্তিত্বের খবর নাই, রাষ্ট্রে এবং সমাজে তাহাদের প্রাধান্যও আর নাই। স্বতন্ত্র স্বাধীন স্বসীমাবদ্ধ রাষ্ট্র গড়িয়া উঠিবার ফলে রাজপাদোপজীবী বলিয়া একটি বিশেষ সুস্পষ্ট শ্রেণী এই পর্বে গড়িয়া উঠিয়াছে। ইহাদের মধ্যেও আবার বিভিন্ন স্তর; একপ্রান্তে উপরিক, রাজস্থানীয়, মহাসেনাপতি, মহাধৰ্মাধ্যক্ষ, মহামন্ত্রী ইত্যাদি; অন্যপ্রান্তে তরিক, শৌন্ধিক, গৌলিক, চাটভাট, ক্ষুদ্র করণ, বেতনভুক সৈন্য, প্রহরী ইত্যাদি। যাহাই হউক, রাজপদোপজীবী শ্রেণীরই আনুষঙ্গিক ছায়ারূপে রাষ্ট্ৰসেবক শ্রেণীর আভাসও সুস্পষ্ট। ইহাদের মধ্যে ভূমিসম্পদ-নির্ভর শ্রেণী:স্তর সমূহের লোকেদের দর্শনও মিলিতেছে। বিদ্যা-বুদ্ধি-জ্ঞান-ধৰ্মজীবী শ্রেণীও সুস্পষ্ট; এই শ্রেণীতেও বিভিন্ন স্তর। একপ্রান্তে তিন্তিড়িপত্র ও শাকান্নভুক বিনয়নম্র ব্রাহ্মণ পুরোহিত বা পণ্ডিত; অন্যপ্রান্তে প্রভূত অর্থসমৃদ্ধ রাজপণ্ডিত বা পুরোহিত, পেঁৗরোহিত্য ও অধ্যাপনার ছদ্মবেশে সমৃদ্ধ ভূম্যধিকারী। ভূমিহীন সমাজ শ্রমিকশ্রেণীও সুস্পষ্ট; ইহারা অধিকাংশ অস্ত্যজ বা স্লেচ্ছ বর্ণবদ্ধ, স্বল্পসংখ্যক মধ্যম-সংকর বা অসৎশুদ্র পর্যায়ের নিম্নস্তরে। পালপর্বে চণ্ডাল পর্যন্ত সমাজের নিম্নতম শ্রমিক শ্রেণী:স্তর সমাজদৃষ্টির সম্মুখে উপস্থিত; কিন্তু সেন-আমলে ব্রাহ্মণ্য সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির অত্যুচ্চারণের ফলে, সমাজ ও রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক দৃষ্টির আচ্ছন্নতার ফলে তাহাদিগকে সমাজদৃষ্টির বাহিরে রাখিয়া দেওয়া হইয়াছে। বৌদ্ধ মহাযান-বজ্ৰযান। —মন্ত্রযান-সহজযানে ডোম-ডোন্ধী, শবর-শবরীদেরও স্বীকৃতি ছিল; চর্যাগীতিই তাহার প্রমাণ। ব্রাহ্মণ্য সংস্কার ও সংস্কৃতিতে তাহা ছিল না, কাজেই সেন-আমলে সমাজ-শ্রমিক শ্রেণীর এই অবজ্ঞা কিছু অস্বাভাবিক নয়।

শেয়ার বা বুকমার্ক করে রাখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *