চাচার দাড়ি

কবি রজনীকান্ত সেন একদিন রাজসাহীর বাড়ির বৈঠকখানায় বসে কবিতা লিখছিলেন। এমন সময এক গোঁড়া মুসলমান মকেল তার কাছে এলেন। বৈঠকখানা ঘরে থাকত একটা ব্রাস, চিরুনি আর একটা আয়না। মুসলমান মক্কেল তার কাগজপত্ৰ এগিয়ে দিলেন রজনীকান্তের দিকে। তা হাতে নিয়ে উল্টেপাল্টে দেখতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন রজনীকান্ত। বেশ কিছুক্ষণ কেটে যাবার পর তিনি দেখলেন, মুসলমান মক্কেলটি আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে গুনগুন করে গান গাইতে গাইতে চুল আঁচড়ানোর ব্রাসটি দিয়ে তাঁর মেহেন্দি করা লালচে দাড়ি যত্ন সহকারে আচড়াচ্ছেন। দেখে রজনীকান্ত হাসলেন। সঙ্গে সঙ্গে তার মাথায় একটি দুন্টু বুদ্ধি খেলে গেল। তিনি মক্কেলটিকে হাসতে হাসতে বললেন, চাচা, আপনি যে ব্রাসটি দিয়ে আপনার দাড়ি আঁচড়াচ্ছিলেন, জানেন ওটা কোন জানোয়ারের রোঁয়ায় তৈরী?

মুসলমান মক্কেল দ্রুত হাত থেকে ব্রাসটি নীচে নামিয়ে রেখে জানতে চান, কোন জানোয়ারের? রজনীকান্ত গম্ভীর মুখে বললেন, হুঁ হুঁ, যার নাম শুনলে আপনার কানে আঙুল দেন।

এই কথা শুনে মুসলমান মক্কেলটি, হায় আল্লা! তোবা, তোবা—বলে টান দিয়ে দাড়ি ছিঁড়তে লাগলেন। প্রকাশ্যে নয়, রজনীকান্তু কাণ্ড দেখে মনে মনে হাসতে লাগলেন।

Share This