কত রূপে এঁকেছি

বৃদ্ধ বয়সে রবীন্দ্রনাথ ছবি আঁকার নেশায় মগ্ন হয়ে পড়েন। রানী চন্দ সেই সময় কবির কাছে এসে বসে থাকতেন। এবং প্রয়োজন মত কবিকে সাহায্য করতেন। যেমন, রঙ গুলে দেওয়া, তুলি এগিয়ে দেওয়া ইত্যাদি। কবি মাঝে মধ্যে রানী চন্দকে সামনে রবীন্দ্ৰনাথ ঠাকুরের রঙ্গ রসিকতা বসিয়ে মডেল করেও ছবি আঁকতেন। কিন্তু হয়, ছবি শেষ হলে রানী চন্দ সেই ছবির সঙ্গে নিজের কোনো মিল খুজে পেতেন না। তিনি ছবি দেখে হেসে কবিকে বলতেন, ‘গুরুদেব, এ কার ছবি? এ তো আমি নই!’

তখন রবীন্দ্ৰনাথ হেসে উত্তর দিতেন, ‘না রে এ তোরই ছবি, তোর তো গর্ব হওয়া উচিত, আমি তোকে কত রূপে এঁকেছি, দেখতো!’

রানী চন্দকে কবিগুরু বিশেষ স্নেহ করতেন।