ট্রেজার আইল্যান্ড – রবার্ট লুই স্টিভেনসন

ট্রেজার আইল্যান্ড - রবার্ট লুই স্টিভেনসন । রূপান্তরঃ রকিব হাসান

০১. বুড়ো নাবিক

গল্পটি বলছে কিশোর জিম। ওদের সরাইখানা অ্যাডমিরাল বেনবোয় এসে উঠল বেয়াড়া, কর্কশ স্বভাবের এক নাবিক। কাদের ভয়ে যেন আতঙ্কিত হয়ে রয়েছে লোকটা সারাক্ষণ। জিমকে বলল, এক-পা খোঁড়া কোন নাবিক দেখলে যেন চট করে খবর দেয় তাকে। কিন্তু কিছুতেই কোন লাভ হল না। বেশিদিন লুকিয়ে থাকতে পারল না...

০২. ব্লাক ডগ

০২. ব্লাক ডগ শীত এসে গেল। দ্রুত বাড়ছে ঠান্ডা। প্রচন্ড তুষারপাত তো আছেই, সেই সঙ্গে প্রবল ঝড়। ক্রমেই খারাপের দিকে চলেছে বাবার অবস্থা। বোঝা যাচ্ছে, এই শীত কাটিয়ে উঠতে পারবে না। বাবা শয্যাশায়ী, ফলে, সরাইয়ের সমস্ত দায়িত্ব এসে পড়েছে আমার আর মার ওপর। ব্যস্ততার মাঝে অবাঞ্ছিত...

০৩. কালো মার্কা

০৩. কালো মার্কা বারোটা নাগাদ শরবত আর ওষুধ নিয়ে গেলাম নাবিকের ঘরে। তেমনি পড়ে আছে নাবিক। বিছানার সঙ্গে মিশে আছে একেবারে। সাংঘাতিক দুর্বল। কিন্তু চেহারায় পরিষ্কার উত্তেজনা লক্ষ্য করলাম। বিছানার পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। চোখ মেলল নাবিক। ক্লান্ত মৃদুকণ্ঠে বলল, তুমি ছাড়া এখানকার...

০৪. জাহাজী-সিন্দুক

০৪. জাহাজী-সিন্দুক অন্ধের নিয়ে আসা কাগজের টুকরোটা পড়ল মা। আমি আগেই পড়ে ফেলেছি। শঙ্কিত হয়ে পড়ল মা। সাংঘাতিক বিপদ ঘনিয়ে আসছে, মায়ের মত আমিও বুঝতে পারছি। ক্যাপ্টেন নিজেই আমাকে বলেছে, তার কিছু জমানো টাকা আছে। থাকলে ওগুলো আছে ওই সিন্দুকেই। এটা নিশ্চয় অনুমান করে ফেলেছে...

০৫. অন্ধের পরিণতি

০৫. অন্ধের পরিণতি লোকগুলোকে পরিষ্কার দেখতে পাচ্ছি। মাকে নিয়ে নেমে ব্রিজের তলায় বসিয়ে রেখে এসেছি। কৌতূহল দমন করতে না পেরে ঝোপঝাড়ের আড়ালে আড়ালে চলে এসেছি সরাইয়ের কাছে। গা-ঢাকা দিয়ে বসেছি একটা ঝোপের ভেতরে। মুখটা বের করে রেখেছি শুধু। সরাইয়ের দরজাটা দেখা যাচ্ছে। রাস্তাটাও...

০৬. মানচিত্র

০৬. মানচিত্র বাড়িতে পাওয়া গেল না ডাক্তার লিভসীকে। চাকরাণী জানাল, বিকেলে বেরিয়ে গেছেন ডাক্তার। হল-এ গেছেন। রাতের খাওয়াটা জমিদার বন্ধু ট্রেলনীর ওখানেই সারবেন। সেখানেই যাব, বললেন ডানস। রাস্তা বেশি না। চাঁদের আলোয় পথ দেখে এগিয়ে চলেছি আমরা। পথের দুপাশে সারি সারি গাছ, পাতা...

০৭. ব্রিস্টলে

০৭. ব্রিস্টলে দশদিনে জাহাজ-নাবিক জোগাড় করতে পারলেন না জমিদার ট্রেলনী, তারচেয়ে অনেক বেশি সময় লেগে গেল। ১৭…সালের ১ মার্চ, ব্রিস্টলের ওল্ড অ্যাংকর সরাইখানা থেকে ডাক্তার লিভসীর কাছে একটা চিঠি লিখলেন ট্রেলনী। চিঠিটা হলঃ প্রিয় লিভসী, জাহাজ কেনা হয়েছে, প্রয়োজনীয়...

০৮. স্পাই গ্লাস

০৮. স্পাই গ্লাস পরদিন সকালে নাস্তার পর পাই গ্লাস সরাইয়ে যেতে বললেন আমাকে ট্রেলনী। জন সিলভারকে দেবার জন্যে একটা চিঠি দিলেন আমার হাতে। সরাইয়ের ঠিকানাটা বুঝিয়ে বললেনঃ ডকের ধার ধরে যেতে যেতে সাগরের পাড়েই একটা ছোট্ট বাড়ি, দেয়ালে মস্ত দূরবীনের ছবি আঁকা, ওটাই স্পাই গ্লাস...

০৯. বারুদ-বন্দুক

০৯. বারুদ-বন্দুক জাহাজে উঠতেই এগিয়ে এসে আমাদের সালাম জানাল মেট অ্যারো। চামড়ার রঙ তামাটে, চোখ ট্যারা, কানে ইয়ারিং। কোন এক সময় নৌবাহিনীতে ছিল হয়ত। ট্রেলনীর সঙ্গে তার সদ্ভাব, সহজেই বোঝা যায়। অ্যারোর সঙ্গে কথা বলছেন ট্রেলনী, এই সময় কয়েকজন নাবিকের পেছনে ধীর পায়ে এগিয়ে এলেন...

১০. সমুদ্র যাত্রা

১০. সমুদ্র যাত্রা কর্মব্যস্ততার মাঝে কাটল সারাটা রাত। এক রাতে এর অর্ধেক কাজও কখনও করিনি অ্যাডমিরাল বেনুবোয়। নতুন সংসার গোছানোর মতই ক্যাপ্টেনের আদেশে হিসপানিওলার মালপত্র গোছগাছ করতে হল আমাদের। এর ওপর অতিথিদের অভ্যর্থনা আর খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা যেন গোদের ওপর বিষফোড়ার মত...

১১. পিপের ভেতরে বসে শোনা কথা

১১. পিপের ভেতরে বসে শোনা কথা না না, আমি না। ফ্লিন্ট ছিল ক্যাপ্টেন, সিলভারের গলা শোনা গেল। আমি ছিলাম কোয়ার্টার মাস্টার। সেবারই পা হারিয়েছি আমি। পিউ হারিয়েছিল চোখ… তার মানে ফ্লিন্টই ছিল সর্দার? একজন প্রশ্ন করল। হ্যাঁ, বলল সিলভার। ভয়ঙ্কর লোক ছিল। তার দলের সবাই ছিল...

১২. যুদ্ধ-আলোচনা

১২. যুদ্ধ-আলোচনা লাফিয়ে উঠে পড়ল ডাকাতেরা। ছুটোছুটি শুরু করে দিল। যার যার জায়গায় ফিরে যাচ্ছে। এই সুযোগে টুক করে বেরিয়ে এলাম পিপে থেকে। ছুটলাম জাহাজের পেছনে। ডাক্তার লিভসী আর হান্টারের দেখা পেলাম ওখানেই। একে একে অনেকেই এসে জড়ো হল সেখানে। ছোট্ট মেঘের আড়ালে ঢুকে গিয়েছিল...

১৩. দ্বীপে নামলাম

১৩. দ্বীপে নামলাম পরদিন খুব ভোরে উঠলাম বিছানা থেকে উঠেই চলে এলাম ডেকে। রাতের বেলা অনেকখানি পথ পেরিয়ে এসেছে হিসপানিওলা, দ্বীপের দক্ষিণ-পুবে নিচু তীরের প্রায় আধ মাইলের মধ্যে এসে পড়েছে। ভালমতই চোখে পড়ছে এখন দ্বীপটা। বেশির ভাগই ধূসর জঙ্গলে ছাওয়া। নিচু জমিতে ইতস্তত ছড়ানো...

১৪. প্রথম আঘাত

১৪. প্রথম আঘাত জনবসতিশূন্য দ্বীপ। জীবনে এই প্রথম অজানা অচেনা এলাকায় ঘোরার রোমাঞ্চ অনুভব করলাম। পেছনে নাবিকদের গলার আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। এগিয়ে চললাম। কতগুলো গাছ দেখতে ওকের মত, কিন্তু আসলে ওক নয় ওগুলো। পাতাগুলো অনেকটা উইলোর মত। অজানা ফুলের গন্ধ বাতাসে। ডালে ডালে বিচিত্র...

১৫. দ্বীপান্তরের আসামী

১৫. দ্বীপান্তরের আসামী একটা পাইন গাছের নিচে এসে দাঁড়িয়েছে সে। বনমানুষ না ভালুক, বোঝার উপায় নেই। মাথার লালচে, জট পাকানো লম্বা লম্বা চুল নেমে এসেছে কাঁধ পর্যন্ত। হাতে পায়ে বড় বড় নখ। ছাগলের ছালে ঢেকে রেখেছে শরীর। চামড়ার রঙ সাদা। কি করব আমি এখন? একদিকে ডাকাতের দল,...

১৬. ডাক্তার লিভসীর বিবৃতি

১৬. ডাক্তার লিভসীর বিবৃতি দ্বীপের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দুটো বোট। কেবিনে বসে ক্যাপ্টেন আর ট্রেলনীর সঙ্গে কথা বলছি আমি। সকালের মতই বাতাস স্তব্ধ। সামান্যতম হাওয়া নেই। পালে বাতাস লাগাতে পারলে জাহাজে থেকে যাওয়া ছজন ডাকাতকে শেষ করে এক্ষুনি নোঙর তুলে পালাতাম এখান থেকে। কিন্তু...

১৭. দুর্গ

আবার জিম হকিন্সের বিবৃতি ১৭. দুর্গ আশ্চর্য তো! বলল বেন গান, জলদস্যুদের পতাকা নয় এটা! তোমার বন্ধুরা উড়িয়েছে নিশ্চয়! কিন্তু…জাহাজ ছেড়ে ওখানে গেল কেন ওরা? একটা দুর্গ আছে ওখানে। নিশ্চয় জাহাজ থেকে পালিয়ে গিয়ে ওখানে আশ্রয় নিয়েছে। তাহলে তো জাহাজটা দখলই করে নিয়েছে...

১৮. সন্ধির প্রস্তাব

১৮. সন্ধির প্রস্তাব উত্তেজিত কথাবার্তায় সকালে ঘুম ভাঙল আমার। কে একজন বলে উঠল, একি! এ যে সিলভার! খোঁড়া ডাকাতটার নাম কানে যাওয়ামাত্র ধড়মড়িয়ে উঠে বসলাম। চোখ রগড়াতে রগড়াতে বেরিয়ে এলাম আঙিনায়। বেড়ার ফোকরে চোখ ঠেকিয়ে দেখছে আমার সঙ্গীরা সবাই। আমিও এগিয়ে গিয়ে একটা ফোকরে চোখ...

১৯. আক্রমণ

১৯. আক্রমণ সিলভার চলে যেতেই আমাদের দিকে চোখ পড়ল ক্যাপ্টেনের। একমাত্র আব্রাহাম গ্রে ছাড়া কেউই নিজেদের জায়গায় নেই, সবাই চলে এসেছে কথা শুনতে। রেগে আগুন হয়ে গেলেন শ্মলেট। যার যার নিজের জায়গায় যান! কর্কশ কণ্ঠে ধমকে উঠলেন ক্যাপ্টেন। মিস্টার ট্রেলনী, ডাক্তার লিভসী, আপনাদের...

২০. আবার সাগরে

২০. আবার সাগরে বেলা বারোটা নাগাদ লাশগুলোকে কবর দেয়া শেষ করলাম আমরা। তারপর লাঞ্চ সেরে নিলাম। খাওয়ার পর জমিদার ট্রেলনীর সঙ্গে পরামর্শ করে একটা বন্দুক, দুটো পিস্তল, একটা ছুরি আর ম্যাপটা নিয়ে বেরিয়ে পড়লেন ডাক্তারচাচা। বেড়ার বাইরে এসে দাঁড়িয়ে চারদিকটা একবার তীক্ষ্ণ চোখে...