জগদীশচন্দ্র বসু

বিজ্ঞানলক্ষ্মীর প্রিয় পশ্চিমমন্দিরে            দূর সিন্ধুতীরে, হে বন্ধু, গিয়েছ তুমি; জয়মাল্যখানি           সেথা হতে আনি দীনহীনা জননীর লজ্জানত শিরে           পরায়েছ ধীরে। বিদেশের মহোজ্জ্বল মহিমামণ্ডিত           পণ্ডিতসভায় বহু সাধুবাদধ্বনি নানা কণ্ঠরবে           শুনেছ...

জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা

জনগণমন-অধিনায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা! পঞ্জাব সিন্ধু গুজরাট মরাঠা দ্রাবিড় উত্‍‌কল বঙ্গ বিন্ধ্য হিমাচল যমুনা গঙ্গা উচ্ছলজলধিতরঙ্গ      তব শুভ নামে জাগে,    তব শুভ আশিস মাগে,                    গাহে তব জয়গাথা। জনগণমঙ্গলদায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা!...

জননীর দ্বারে আজি

জননীর দ্বারে আজি ঐ শুন গো শঙ্খ বাজে। থেকো না থেকো না, ওরে ভাই, মগন মিথ্যা কাজে॥      অর্ঘ্য ভরিয়া আনি ধরো গো পূজার থালি,      রতনপ্রদীপখানি যতনে আনো গো জ্বালি,      ভরি লয়ে দুই পাণি বহি আনো ফুলডালি,               মার আহ্বানবাণী রটাও ভুবনমাঝে॥...

জন্মদিনের গান

বেহাগ। চৌতাল ভয় হতে তব অভয়মাঝারে           নূতন জনম দাও হে! দীনতা হইতে অক্ষয় ধনে, সংশয় হতে সত্যসদনে, জড়তা হইতে নবীন জীবনে           নূতন জনম দাও হে!                                                 আমার ইচ্ছা হইতে, হে প্রভু,           তোমার ইচ্ছামাঝে— আমার স্বার্থ...

জীবন যখন শুকায়ে যায় করুণাধারায় এসো

     জীবন যখন শুকায়ে যায় করুণাধারায় এসো।      সকল মাধুরী লুকায়ে যায়,   গীতসুধারসে এসো॥ কর্ম যখন প্রবল-আকার   গরজি উঠিয়া ঢাকে চারি ধার      হৃদয়প্রান্তে, হে জীবননাথ,   শান্ত চরণে এসো॥ আপনারে যবে করিয়া কৃপণ   কোণে পড়ে থাকে দীনহীন মন...

জীবনমরণের সীমানা ছাড়ায়ে

জীবনমরণের সীমানা ছাড়ায়ে, বন্ধু হে আমার, রয়েছ দাঁড়ায়ে॥         এ মোর হৃদয়ের বিজন আকাশে         তোমার মহাসন আলোতে ঢাকা সে,         গভীর কী আশায় নিবিড় পুলকে              তাহার পানে চাই দু বাহু বাড়ায়ে॥         নীরব নিশি তব চরণ নিছায়ে         আঁধার-কেশভার দিয়েছে বিছায়ে।...

জীবিত ও মৃত

প্রথম পরিচ্ছেদ রানীহাটের জমিদার শারদাশংকরবাবুদের বাড়ির বিধবা বধূটির পিতৃকুলে কেহ ছিল না; সকলেই একে একে মারা গিয়াছে। পতিকুলেও ঠিক আপনার বলিতে কেহ নাই, পতিও নাই পুত্রও নাই। একটি ভাশুরপো, শারদাশংকরের ছোটো ছেলেটি, সেই তাহার চক্ষের মণি। সে জন্মিবার পর তাহার মাতার বহুকাল...

জুতা-আবিষ্কার

কহিলা হবু, ‘শুন গো গোবুরায়,        কালিকে আমি ভেবেছি সারা রাত্র— মলিন ধূলা লাগিবে কেন পায়        ধরণী‐মাঝে চরণ‐ফেলা মাত্র! তোমরা শুধু বেতন লহ বাঁটি,        রাজার কাজে কিছুই নাহি দৃষ্টি। আমার মাটি লাগায় মোরে মাটি,        রাজ্যে মোর একি এ অনাসৃষ্টি!             শীঘ্র এর...

জয়পরাজয়

রাজকন্যার নাম অপরাজিতা। উদয়নারায়ণের সভাকবি শেখর তাঁহাকে কখনো চক্ষেও দেখেন নাই। কিন্তু যে দিন কোনো নূতন কাব্য রচনা করিয়া সভাতলে বসিয়া রাজাকে শুনাইতেন সে দিন কণ্ঠস্বর ঠিক এতটা উচ্চ করিয়া পড়িতেন যাহাতে তাহা সেই সমুচ্চ গৃহের উপরিতলের বাতায়নবর্তিনী অদৃশ্য শ্রোত্রীগণের...