গীতালি

গীতালি - কাব্যগ্রন্থ - কবিতার বই - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

অগ্নিবীণা বাজাও তুমি

অগ্নিবীণা বাজাও তুমি কেমন করে। আকাশ কাঁপে তারার আলোর গানের ঘোরে। তেমনি করে আপন হাতে ছুঁলে আমার বেদনাতে, নূতন সৃষ্টি জাগল বুঝি জীবন-‘পরে। বাজে বলেই বাজাও তুমি– সেই গরবে ওগো প্রভু,আমার প্রাণে সকল স’বে। বিষম তোমার বহ্নিঘাতে বারে বারে আমার রাতে জ্বালিয়ে...

অচেনাকে ভয় কী আমার ওরে

অচেনাকে ভয় কী আমার ওরে। অচেনাকেই চিনে চিনে উঠবে জীবন ভরে। জানি জানি আমার চেনা কোনো কালেই ফুরাবে না, চিহ্নহারা পথে আমায় টানবে অচিন-ডোরে। ছিল আমার মা অচেনা, নিল আমায় কোলে। সকল প্রেমই অচেনা গো, তাই তো হৃদয় দোলে। অচেনা এই ভুবন-মাঝে কত সুরেই হৃদয় বাজে, অচেনা এই জীবন...

অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো

অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো সেই তো তোমার আলো। সকল দ্বন্দ্ব-বিরোধ-মাঝে জাগ্রত যে ভালো, সেই তো তোমার ভালো। পথের ধুলায় বক্ষ পেতে রয়েছে যেই গেহ সেই তো তোমার গেহ। সমর-ঘাতে অমর করে রুদ্র নিঠুর স্নেহ সেই তো তোমার স্নেহ। সব ফুরালে বাকি রহে অদৃশ্য যেই দান সেই তো তোমার দান।...

আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে

আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে। এ জীবন পুণ্য করো দহন-দানে। আমার এই দেহখানি তুলে ধরো, তোমার ওই দেবালয়ের প্রদীপ করো, নিশিদিন আলোক-শিখা জ্বলুক গানে। আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে। আঁধারের গায়ে গায়ে পরশ তব সারা রাত ফোটাক তারা নব নব। নয়নের দৃষ্টি হতে ঘুচবে কালো, যেখানে পড়বে...

আঘাত করে নিলে জিনে

আঘাত করে নিলে জিনে, কাড়িলে মন দিনে দিনে। সুখের বাধা ভেঙে ফেলে তবে আমার প্রাণে এলে, বারে বারে মরার মুখে অনেক দুখে নিলাম চিনে। তুফান দেখে ঝড়ের রাতে ছেড়েছি হাল তোমার হাতে। বাটের মাঝে হাটের মাঝে কোথাও আমায় ছাড়লে না যে, যখন আমার সব বিকালো তখন আমায় নিলে কিনে। সুরুল, ৮...

আজি নির্ভয়নিদ্রিত ভুবনে জাগে কে জাগে

আজি       নির্ভয়নিদ্রিত ভুবনে       জাগে    কে    জাগে। ঘন       সৌরভমন্থর পবনে      জাগে    কে    জাগে। কত       নীরব বিহঙ্গ-কুলায়ে মোহন অঙ্গুলি বুলায়ে      জাগে    কে    জাগে। কত       অস্ফুট পুষ্পের গোপনে     জাগে    কে    জাগে। এই       অপার অম্বর-পাথারে স্তম্ভিত...

আপন হতে বাহির হয়ে

আপন হতে বাহির হয়ে বাইরে দাঁড়া, বুকের মাঝে বিশ্বলোকের পাবি সাড়া। এই-যে বিপুল ঢেউ লেগেছে তোর মাঝেতে উঠুক নেচে, সকল পরান দিক-না নাড়া– বাইরে দাঁড়া, বাইরে দাঁড়া। বোস্‌-না ভ্রমর এই নীলিমায় আসন লয়ে অরুণ-আলোর স্বর্ণরেণু মাখা হয়ে। যেখানেতে অগাধ ছুটি মেল্‌ সেথা তোর ডানা...

আবার যদি ইচ্ছা কর আবার আসি ফিরে

আবার যদি ইচ্ছা কর আবার আসি ফিরে দুঃখসুখের-ঢেউ-খেলানো এই সাগরের তীরে। আবার জলে ভাসাই ভেলা, ধুলার ‘পরে করি খেলা, হাসির মায়ামৃগীর পিছে ভাসি নয়ন-নীরে। কাঁটার পথে আঁধার রাতে আবার যাত্রা করি– আঘাত খেয়ে বাঁচি কিম্বা আঘাত খেয়ে মরি। আবার তুমি ছদ্মবেশে আমার সাথে...

আবার   শ্রাবণ হয়ে এলে ফিরে

আবার   শ্রাবণ হয়ে এলে ফিরে, মেঘ-আঁচলে নিলে ঘিরে। সূর্য হারায়, হারায় তারা, আঁধারে পথ হয় যে হারা, ঢেউ দিয়েছে নদীর নীরে। সকল আকাশ, সকল ধরা, বর্ষণেরি বাণী-ভরা। ঝরঝর ধারায় মাতি বাজে আমার আঁধার রাতি, বাজে আমার শিরে শিরে। সুরুল, ১০ ভাদ্র,...

আমার বোঝা এতই করি ভারী

আমার বোঝা এতই করি ভারী– তোমার ভার যে বইতে নাহি পারি। আমারি নাম সকল গায়ে লিখা, হয় নি পরা তব নামের টিকা– তাই তো আমায় দ্বার ছাড়ে না দ্বারী। আমার ঘরে আমিই শুধু থাকি, তোমার ঘরে লও আমারে ডাকি। বাঁচিয়ে রাখি যা-কিছু মোরে আছে তার ভাবনায় প্রাণ তো নাহি বাঁচে–...

আমার সকল রসের ধারা

আমার সকল রসের ধারা তোমাতে আজ হোক-না হারা। জীবন জুড়ে লাগুক পরশ, ভুবন ব্যেপে জাগুক হরষ, তোমার রূপে মরুক ডুবে আমার দুটি আঁখিতারা। হারিয়ে-যাওয়া মনটি আমার ফিরিয়ে তুমি আনলে আবার। ছড়িয়ে-পড়া আশাগুলি কুড়িয়ে তুমি লও গো তুলি, গলার হারে দোলাও তারে গাঁথা তোমার করে সারা। সুরুল, ১০...

আমার     সুরের সাধন রইল পড়ে

আমার     সুরের সাধন রইল পড়ে। চেয়ে চেয়ে কাটল বেলা কেমন করে। দেখি সকল অঙ্গ দিয়ে, কী যে দেখি বলব কী এ– গানের মতো চোখে বাজে রূপের ঘোরে। সবুজ সুধা এই ধরণীর অঞ্জলিতে কেমন করে ওঠে ভরে আমার চিতে। আমার সকল ভাবনাগুলি ফুলের মতো নিল তুলি, আশ্বিনের ওই আঁচলখানি গেল ভরে।...

আমার  আর হবে না দেরি

আমার     আর হবে না দেরি– আমি       শুনেছি ওই বাজে তোমার ভেরী। তুমি কি নাথ, দাঁড়িয়ে আছ আমার যাবার পথে। মনে হয় যে ক্ষণে ক্ষণে মোর বাতায়ন হতে তোমায় যেন হেরি– আমার     আর হবে না দেরি। আমার     কাজ হয়েছে সারা, এখন       প্রাণে বাঁশি বাজায় সন্ধ্যাতারা। দেবার মতো...

আমি অধম অবিশ্বাসী

আমি অধম অবিশ্বাসী, এ পাপমুখে সাজে না যে ‘তোমায় আমি ভালোবাসি’। গুণের অভিমানে মেতে আর চাহি না আদর পেতে, কঠিন ধুলায় বসে এবার চরণসেবার অভিলাষী। হৃদয় যদি জ্বলে, তারে জ্বলিতে দাও, জ্বলিতে দাও। ঘুরব না আর আপন ছায়ায়, কাঁদব না আর আপন মায়ায়– তোমার পানে রাখব...

আমি পথিক, পথ আমারি সাথি

আমি পথিক, পথ আমারি সাথি। দিন সে কাটায় গনি গনি বিশ্বলোকের চরণধ্বনি, তারার আলোয় গায় সে সারা রাতি। কত যুগের রথের রেখা বক্ষে তাহার আঁকে লেখা, কত কালের ক্লান্ত আশা ঘুমায় তাহার ধুলায় আঁচল পাতি। বাহির হলেম কবে সে নাই মনে। যাত্রা আমার চলার পাকে এই পথেরই বাঁকে বাঁকে নূতন হল...

আমি যে আর সইতে পারি নে

আমি যে আর সইতে পারি নে। সুরে বাজে মনের মাঝে গো কথা দিয়ে কইতে পারি নে। হৃদয়-লতা নুয়ে পড়ে ব্যথাভরা ফুলের ভরে গো, আমি সে আর বইতে পারি নে। আজি আমার নিবিড় অন্তরে কী হাওয়াতে কাঁপিয়ে দিল গো পুলক-লাগা আকুল মর্মরে। কোন্‌ গুণী আজ উদাস প্রাতে মীড় দিয়েছে কোন্‌ বীণাতে গো, ঘরে যে...

আমি হৃদয়েতে পথ কেটেছি

আমি          হৃদয়েতে পথ কেটেছি, সেথায় চরণ পড়ে, তোমার            সেথায় চরণ পড়ে। তাই তো আমার সকল পরান কাঁপছে ব্যথার ভরে গো কাঁপছে থরথরে। ব্যথা-পথের পথিক তুমি, চরণ চলে ব্যথা চুমি, কাঁদন দিয়ে সাধন আমার চিরদিনের তরে গো চিরজীবন ধ’রে। নয়নজলের বন্যা দেখে ভয় করি নে আর,...

আলো যে আজ গান করে মোর প্রাণে গো

আলো যে আজ গান করে মোর প্রাণে গো। কে এল মোর অঙ্গনে, কে জানে গো। হৃদয় আমার উদাস ক’রে কেড়ে নিল আকাশ মোরে, বাতাস আমায় আনন্দবাণ হানে গো। দিগন্তের ওই নীল নয়নের ছায়াতে কুসুম যেন বিকাশে মোর কায়াতে। মোর হৃদয়ের সুগন্ধ যে বাহির হল কাহার খোঁজে, সকল জীবন চাহে কাহার পানে গো।...

আলো যে যায় রে দেখা

আলো যে যায় রে দেখা– হৃদয়ের     পুব-গগনে সোনার রেখা। এবারে      ঘুচল কি ভয়। এবারে      হবে কি জয়। আকাশে    হল কি ক্ষয় কালির লেখা। কারে ওই যায় গো দেখা, হৃদয়ের     সাগরতীরে দাঁড়ায় একা? ওরে তুই        সকল ভুলে চেয় থাক্‌       নয়ন তুলে– নীরবে           চরণ-মূলে...

আশীর্বাদ

আশীর্বাদ এই আমি একমনে সঁপিলাম তাঁরে– তোমরা তাঁহারি ধন আলোকে আঁধারে। যখনি আমারি ব’লে ভাবি তোমাদের মিথ্যা দিয়ে জাল বুনি ভাবনা-ফাঁদের। সারথি চালান যিনি জীবনের রথ তিনিই জানেন শুধু কার কোথা পথ। আমি ভাবি আমি বুঝি পথের প্রহরী, পথ দেখাইতে গিয়ে পথ রোধ করি। আমার...