সমুদ্রে

সকালবেলায় ঘাটে যেদিন 
           ভাসিয়ে দিলেম নৌকাখানি 
কোথায় আমার যেতে হবে 
           সে কথা কি কিছুই জানি । 
শুধু শিকল দিলেম খুলে , 
শুধু নিশান দিলেম তুলে— 
টানি নি দাঁড় , ধরি নি হাল— 
           ভেসে গেলেম স্রোতের মুখে । 
তীরে তরুর ডালে ডালে 
ডাকল পাখি প্রভাত - কালে , 
তীরে তরুর ছায়ায় রাখাল 
           বাজায় বাঁশি মনের সুখে । 
তখন আমি ভাবি নাইকো 
           সূর্য যাবে অস্তাচলে , 
নদীর স্রোতে ভেসে ভেসে 
           পড়ব এসে সাগর - জলে— 
ঘাটে ঘাটে তীরে তীরে 
যে তরী ধায়   ধীরে ধীরে 
বাইতে হবে নিয়ে তারে 
           নীল পাথারে একলা - প্রাণে । 
তারাগুলি আকাশ ছেয়ে 
মুখে আমার রইল চেয়ে , 
সিন্ধু - শকুন উড়ে গেল 
           কূলে আপন কুলায় - পানে । 
দুলুক তরী ঢেউয়ের'পরে 
           ওরে আমার জাগ্রত প্রাণ । 
গাও রে আজি নিশীথ - রাতে 
           অকূল - পাড়ির আনন্দগান । 
যাক - না মুছে তটের রেখা , 
নাই - বা কিছু গেল দেখা , 
অতল বারি দিক - না সাড়া 
           বাঁধন - হারা হাওয়ার ডাকে । 
দোসর - ছাড়া একার দেশে 
একেবারে এক নিমেষে 
লও রে বুকে দু হাত মেলি 
           অন্তবিহীন অজানাকে । 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *