মাছে-ভাতে বাঙালি

রসনা তৃপ্তিতে বাঙালির চাই মাছ। আর নিত্যকার রান্নার চেয়ে একটু ভিন্নস্বাদ পেলে তো কথাই নেই। দেখুন শাহানা পারভীনের দেওয়া রান্নাগুলো।

লবঙ্গ-রুই
উপকরণ: রুই মাছ ৫-৬ টুকরা, লবঙ্গ ৪-৫টি, তেজপাতা ১টি, নারকেলের দুধ ঘন ১ কাপ, পেঁয়াজ মোটা করে কাটা ৭-৮টি, কাঁচা মরিচ ৫-৬টি, ময়দা ১ টেবিল-চামচ, চিনি ১ চা-চামচ, ঘি ১ টেবিল-চামচ, লবণ স্বাদমতো, লেবুর রস ২ টেবিল-চামচ, তেল প্রয়োজনমতো।
প্রণালি: মাছ কেটে ধুয়ে লবণ ও লেবুর রস মাখিয়ে রাখতে হবে ৫ মিনিট। এরপর মাছ হালকা বাদামি করে ভেজে তুলে রাখতে হবে। কড়াইতে ৪ টেবিল-চামচ তেল দিয়ে লবঙ্গ ও তেজপাতার ফোড়ন দিতে হবে। পেঁয়াজ হালকা করে ভেজে চিনি ও ময়দা দিয়ে আরও একটু ভাজতে হবে। নারকেলের দুধ ও কাঁচা মরিচ দিয়ে অপেক্ষা করতে হবে। ফুটে উঠলে মাছগুলো দিয়ে প্রয়োজন হলে আধা কাপ পানিও দেওয়া যেতে পারে। ঝোল ঘন হলে ঘি দিয়ে পরিবেশন করা যায়।

লেবু-পাবদা
উপকরণ: পাবদা মাছ ৭-৮টি, লেবুর রস ১ টেবিল-চামচ, লেবুপাতা ২টি (সরু সরু করে কুচি করা), পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল প্রয়োজনমতো।
প্রণালি: পাবদা মাছ কেটে ও ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখতে হবে। এরপর কড়াইয়ে তেল দিয়ে পেঁয়াজ, রসুন, জিরা, হলুদ, মরিচ, লবণ ও সামান্য পানি দিয়ে একটু মসলা কষিয়ে নিতে হবে। মসলা কষানো হলে পাবদা মাছগুলো দিয়ে একটু নেড়ে ১ কাপ গরম পানি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। মাছ মাখামাখা হলে তাতে লেবুর রস ও লেবুপাতা কুচি ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে মজাদার লেবু-পাবদা মাছ।

কই মাছের পাতুরি
উপকরণ: কই মাছ ৪টি, ২টি কাঁচা মরিচসহ সরষে বাটা ১ টেবিল-চামচ, নারকেল বাটা ১ টেবিল-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ ১ টেবিল-চামচ, মরিচ গুঁড়া সামান্য, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ৪টি, লাউপাতা বড় ৪টি, লবণ স্বাদমতো, সরষের তেল প্রয়োজনমতো, সুতা পরিমাণমতো।
প্রণালি: প্রথমে কই মাছ কেটে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। লাউপাতা ও সুতা ছাড়া তেলসহ সব মসলা একসঙ্গে মাখিয়ে কই মাছ ১৫ মিনিট ম্যারিনেট করে রাখতে হবে। ৪টি বড় লাউপাতায় একটি করে মাছ ও একটি করে কাঁচা মরিচ দিয়ে ভালো করে মুড়িয়ে সুতা দিয়ে পেঁচিয়ে বেঁধে নিতে হবে। প্রতিটি মাছ বাঁধা হলে সসপ্যানে মাছের সমান করে পানি দিয়ে সেদ্ধ করতে হবে। পানি শুকিয়ে এলে পাঁচ মিনিট পর তা নামিয়ে সুতা খুলে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করা যায় মজাদার কই মাছের পাতুরি।

কাতলা মাছের কালিয়া
উপকরণ: কাতলা মাছ ৫ টুকরা, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল-চামচ, আদা-রসুন বাটা ১ চা-চামচ, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, ধনেগুঁড়া আধা চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, গরম মসলা গুঁড়া আধা চা-চামচ, কাজু বাদাম বাটা ১৪-১৫টি, টমেটো সস ২ টেবিল-চামচ, ময়দা ১ টেবিল-চামচ, ফেটানো ডিম অর্ধেকটা, আলু ডুমো করে কাটা ২টি (মাঝারি), কাঁচা মরিচ ফালি ৪-৫টি, লবণ স্বাদমতো, ঘি বা তেল প্রয়োজনমতো।
প্রণালি: কাতলা মাছ কেটে ও ধুয়ে তাতে হলুদ, মরিচ, আদা-রসুন বাটা, লবণ, ময়দা ও ফেটানো ডিম দিয়ে মাখিয়ে রাখতে হবে ৫ মিনিট। তারপর মাছগুলো ডুবোতেলে ভেজে তুলে রাখতে হবে। আলুগুলো মসলা মাখিয়ে ভেজে রাখতে হবে।
কড়াইয়ে ২ টেবিল-চামচ তেল ও ১ টেবিল-চামচ ঘি দিয়ে তাতে পেঁয়াজ বাটা, আদা-রসুন বাটা, জিরা বাটা, ধনে গুঁড়া, কাজু বাদাম বাটা, টমেটো সস দিয়ে কষিয়ে নিতে হবে। মসলা কষানো হলে ১ কাপ দুধ বা পানি দিয়ে তাতে ভাজা মাছ ও ভাজা আলু দিতে হবে। তেল ওপরে উঠে এলে গরম মসলা গুঁড়া ও কাঁচা মরিচ ছড়িয়ে দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

সূত্র: প্রথম আলো, জুন ১৪, ২০১১

2 thoughts on “মাছে-ভাতে বাঙালি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *