অসম্পূর্ণ

আছে শ্যাম অঙ্গে রাই অঙ্গ হেলিয়া লো

আছে শ্যাম অঙ্গে রাই অঙ্গ হেলিয়া লো ও কীরূপ দেখি নয়ন মুদিয়া লো ওই কালার বাঁশি করে গান আর রাধা রাধা বলে নাম ______ ———- শ্যামের হাতে মোহন বাঁশি আর রাধার মাথায় বিনোদ-বেণী লো আর দেখিয়া আড় নয়নখানি কী হলো আজ কানুর গো এ কী ভাব বৃন্দাবনে গো দেখি নাই ভাই...
আজ কেন রে প্রাণের সুবল (রাই এলো না যমুনাতে)

আজ কেন রে প্রাণের সুবল (রাই এলো না যমুনাতে)

[youtube]http://www.youtube.com/watch?v=CiJISvgGUT8[/youtube] আজ কেন রে প্রাণের সুবল রাই এলো না যমুনাতে। আমি রাই অপেক্ষায় বসে আছি বসে আছি মোহন বাঁশি নিয়ে হাতে রাই এলো না যমুনাতে। ————- রাধারমণ...

আমার গহন বুকে

আমার গহন বুকে তারে লুকিয়ে রাখি তাকে নিয়ে অধরা শুধু স্বপ্ন আঁকি তার জানা হলো না তাকে বলা হলো না সে ছাড়া আমি যে এক ডানাভাঙা পাখী চারপাশে যা কিছু সবই মনে হয় যেন তার হাসি মাখা ছবি সে ছবির সাথে কথা বলে তাকে (?) আমি একা একা জেগে থাকি সে ছাড়া আমি যে এক ডানাভাঙা পাখী আমার গহন...

আমার সাদা দিলে কাঁদা লাগাই গেলি

আমার সাদা দিলে কাঁদা লাগাই গেলি চাটুরী করিয়া মোরে বান্ধিয়া পিরিতের দোরে বিচ্ছেদের সাগরে ভাসাই গেলি রে বন্ধুয়া পিরিতি আগে বুঝি নাই তুই পিরিতি শিখাইলি তাই …? কেমনে কইরা ভুলি কত না সোহাগ করিয়া …? পিরিত শিখাইয়া কোন পরানে গেলি আমায় ফেলি রে বন্ধুয়া কত দিনের কত...

আমি কুলহারা কলঙ্কিনী

আমি কুলহারা কলঙ্কিনী আমারে কেউ ছুঁইও না গো সজনি ॥ প্রেম করে প্রাণবন্ধুর সনে যে দুঃখ পেয়েছি মনে আমার কেঁদে যায় দিন রজনী ॥ ——————— (কালনীর ঢেউ, গান সংখ্যা – ছিয়ানব্বই) শাহ আব্দুল...

আমি জানছিলাম নি ঐ রঙ্গে দিন যাবে

আমি জানছিলাম নি ঐ রঙ্গে দিন যাবে রে সুজন নাইয়া পার করো দুঃখিনী রাধারে তুমি তো সুজন নাইয়া আমি তো গোয়ালের মাইয়ারে ওরে নাইয়া… তুমি নষ্ট করলা দুধের ভাণ্ড চইয়ারে পার করো দুঃখিনী রাধারে কুক্ষণে বাড়াইলাম পাও খেয়া ঘাটে নাই মোর নাও রে ওরে নাইয়া… আমার খেওয়ানিরে...

আমি ফুল বন্ধু ফুলের ভ্রমরা

আমি ফুল, বন্ধু ফুলের ভ্রমরা। কেমন ভুলিবো আমি বাঁচি না তারে ছাড়া ॥ না আসিলে কালো ভ্রমর, কে হবে যৌবনের দোসর। ——————————- (কালনীর ঢেউ, গান সংখ্যা – আটাত্তর) শাহ আব্দুল...

আমি মাঝি বাইয়া গেলাম

আমি মাঝি বাইয়া গেলাম সারা জনম ভর তবু এই নদীটা কত গভীর পাইলামনা খবর ভাবের সাঁতার জানে যারা ডুব সাঁতারে পার হয় তারা অন্তর সাগর ও… অন্তর...

এইতো সেদিন

এইতো সেদিন আমাকে কাছে ডেকে বলেছিলে- ভালোবাসি ভুলে গেছো নাকি কত না প্রেমের খেলা খেলছ সেদিন নেইকি কিছুই মনে প্রেম সে তো শান্তি নহে গো কামনা ———–? শাওন রাতে ওগো মেঘ বরিষণে তোমার কথাটি পড়ে মনে তুমি ওগো তুমি মোর হৃদয় (প্রেমের) আকাশে তারা হয়ে জ্বলবে...
এতো ভালোবাসা দিয়েছ তবু যে

এতো ভালোবাসা দিয়েছ তবু যে

এতো ভালোবাসা দিয়েছ তবু যে আরো পেতে মন হাত বাড়ায় যত দিন যায় তত বারই আশা চাওয়া যে আমার সীমা ছড়ায় প্রেম পুরনো হয় যত তার গভীরতা বাড়ে তত (কোন সুহৃদ হয়তো পুরো গানটা লিখে দিবেন, তাকে আগাম ধন্যবাদ) —————- চলচ্চিত্র: বন্দিনী (১৯৮৯) গীতিকার: পুলক...

গাছের পাতার মত স্মৃতির পাতা কেন ঝরে পড়ে না

গাছের পাতার মত স্মৃতির পাতা কেন ঝরে পড়ে না কত কথা ভুলে যাই, তোমার কথা কেনো ভুলতে পারি না আশা ছিল বাঁধি ঘর দুজনে মিলে ব্যথা হল সাথী মোর বিরহ দিলে চলে গেছো বলোনি পিছু ফিরে দেখোনি ভুল করে কখনো খুঁজে নিলে না ঝরে যদি কিছু জল চোখেরই নীলে চলে এসো পাবে ঠাঁই মনেরই ঝিলে আমি আছি...

ঘুম এলো না

ঘুম এলো না কাল সারারাত তোমাকে ভেবে ভেবে তোমারই স্মৃতি ভেবে তোমাকে নিয়ে ভেবে তোমারই স্মৃতি এঁকে ঘুম এলো না আমার দু’চোখে ——————– আইয়ুব...

চাঁদেতে জোসনা পাওয়া যায়

চাঁদেতে জোসনা পাওয়া যায় তারাতে নয় একজনই হয় মনের মানুষ সকলে নয় তুমি আমার সেই একজন একথা যেওনা ভুলে মায়ায় বাঁধা এ যে মালা এ মালা যেওনা খুলে প্রেম বলে যে কথা মনে রেখ সে কথা …(?) রূপকথা হয়ে যায় ————- বাপ্পী লাহিড়ী, পুলক...

তুমি আনন্দ আশ্রম আমার মনের

তুমি আনন্দ আশ্রম আমার মনের তুমি অভিনন্দন চির জনমের তুমি ভোরের আকাশ ঝর্ণাধারা তুমি বুকের আঙিনায় কৃষ্ণচূঁড়া তুমি সুখ-স্বপ্ন এই জীবনের আমার মনের… তুমি আশার আলো ভাবনা ……(?) তুমি বাঁধন আমার …..(?) আমরা সাথী হব শেষ মরণে আমার প্রেমে…...
তুমি আমার মনের মানুষ

তুমি আমার মনের মানুষ

তুমি আমার মনের মানুষ মনেরই ভিতর তুমি আমার প্রাণ বন্ধু অন্তরের অন্তর তুমি আমায় করো নাকো কোনদিনও পর তোমায় এক নজর না দেখলে পরে পরান আমার পোড়ে দেখলে পরে দুই নয়নে তৃষ্ণা আরো বাড়ে সামনে আমার প্রেমের সিন্ধু পাইনা তারে এক বিন্দু … … তোমার এত ভালোবাসা আমি …...

তোমাকে চাই আমি আরো কাছে

তোমাকে চাই আমি আরো কাছে তোমাকে বলার অনেক কথা আছে আমি বলতে পারি না মুখে তওবা তওবা দিলে জখম হলো উহু আহা একি শরম লাগে লাগে উহু আহা যদি জানাজানি হয় ভালবাসা কেমন করে হবে মেলামেশা মনে জাগে শুধু ভয় যদি বেশী কিছু হয় আমি চাইতে পারিনা চোখে তওবা তওবা দিলে জখম হলো উহু আহা একি শরম...
তোমার মুখ পানে চাহি (বনমালী তুমি পরজনমে হইও রাধা)

তোমার মুখ পানে চাহি (বনমালী তুমি পরজনমে হইও রাধা)

তোমার মুখ পানে চাহি তোমার গীত সুধা গাহি পরবাসে কেহ নাহি রাধে রাধে অভিমানে কত না হল সাধা… বনমালী তুমি পরজনমে হইও রাধা… (অসম্পূর্ণ)...
পাতা 1/212