ভয়ংকর ছাত্রী

আমার টিউশনি জীবনের এক দুষ্টু ছাত্রীর ভয়ংকর দুষু্বমির কথা বলেছিলাম পাঠকসংখ্যা রসগোল্লায়। এবার বলছি আরেক ছাত্রীর কথা, যে ওই ছাত্রীর চেয়ে আরেকটু বেশিই ভয়ংকর দুষু্ব। যার পরিচয় পেয়েছি প্রথম দিনই। কিসে পড়ে জানতে চাইলে সে বলে, ‘টেবিলে পড়ি, মাঝেমধ্যে খাটে শুয়েও পড়ি, তবে আপনার কাছে সব সময় টেবিলেই পড়ব!’ আগেরটার দুষু্বমি যদিও কখনো শালীনতাবহির্ভূত ছিল না, তবু ভাবলাম, এটাকে আটকানো দরকার। ধমক দিলে সরি বলে দুষু্বমি আর কখনো করবে না বলেও পরদিন বাড়ির কাজ করেছে কি না জানতে চাইলে যা বলেছে, তাতে অবাক না হয়ে পারি না। ‘হ্যাঁ, স্যার, করেছি। কাজের মেয়েটা নেই তো, তাই আজকে একটু বেশিই করেছি। রান্নাঘরে চলেন, আপনাকে সব দেখাচ্ছি।’ আমি নাশতা সবটুকু খাই না কেন, জিজ্ঞেস করলে বলি, ‘সব না খাওয়াটা হলো ভদ্রতা।’ সেদিন চা আর একটা কেক এসেছিল। চা-কেক পুরোটা খাওয়ার পর যা বলল, তাতে আমি পুরোপুরি বোল্ড! ‘স্যার, আপনি আজকে ভদ্রতাও খেয়ে ফেললেন?’ ক্লাস ফাইভে পড়া এই পিচ্চি ছাত্রীটিই একবার ফোন করে বলে, ‘বাবা, নাবিলা তো আজকে একটু বেড়াতে গেছে। তুমি আজকে…।’ যদিও আমার বুঝতে একটুও কষ্ট হয়নি!

শহীদুল আনোয়ার
হাজী মুহাম্মদ মুহসীন কলেজ, চট্টগ্রাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *