১০. কিছুক্ষণ অতঃপর উভয়েই স্তব্ধ

কিছুক্ষণ অতঃপর উভয়েই স্তব্ধ হয়ে আত্মগত চিন্তায় বিভোর হয়ে থাকে এবং আবার এক সময় ডাঃ সানিয়ালই প্রশ্ন করেন, তাহলে আপনার ধারণা মিঃ রায় যে গত রাত্রে মিস সুলতা করকে নিশ্চয়ই কেউ-না-কেউ কফির সঙ্গে ইচ্ছে করে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তাকে ঘুম পাড়াবার চেষ্টা করেছিল!

বলাই বাহুল্য। অন্যথায় তার উপস্থিতিতে মিঃ চৌধুরীকে ওভাবে হত্যা করা তত সম্ভবপর হত না।

I see! আচ্ছা মিঃ রায়, আপনার কি তাহলে মনে হয় মিস সুলতা কর এই হত্যার ষড়যন্ত্রের মধ্যে আছে?

ষড়যন্ত্রের মধ্যে আছে কিনা জানি না তবে হত্যার সময়টিতে সে অকুস্থানে উপস্থিত ছিল সেটাই যে সব চাইতে বড় কথা এখন।

কিন্তু–

এর মধ্যে আর কোন কিন্তু নেই ডাক্তার—তবে হ্যাঁ, She was in deep sleep হত্যার সময়টিতে এটা ঠিকই।

অতঃপর ডাঃ সানিয়াল যেন বলবার মত কোন কথাই আর খুঁজে পান না। এবং কিরীটীও নিঃশব্দে বসেই ধূমপান করতে করতে পীতাভ ধোঁয়া উদগীরণ করতে থাকে।

সহসা একসময় যেন চিন্তাগ্রস্ত মনটাকে একটা নাড়া দিয়ে চুরুটের অগ্রভাগ হতে ভস্মাবশেষ ছাইটা আঙুলের টোকা দিয়ে ঝাড়তে ঝাড়তে মৃদুকণ্ঠে কিরীটী বলে, ডাক্তার, আপনার পরামর্শটা ভেবে দেখলাম মন্দ নয়—আর একবার বাজিয়ে দেখতে ক্ষতি কি? আপনি গিয়ে একটিবার মিস করকে এ ঘরে পাঠিয়ে দিতে পারেন, তাকে আবার cross করে না হয় দেখা যাক।

নিশ্চয়ই, এখুনি পাঠিয়ে দিচ্ছি।

ডাঃ সানিয়াল ঘর হতে বের হয়ে গেলেন।

.

দশ-পনের মিনিট পরেই বাইরে মৃদু পদশব্দ শোনা গেল এবং বোঝা গেল পদশব্দ এগিয়ে আসছে এবং পদশব্দ ঘরের বাইরে বদ্ধ দরজার সামনে এসে থামল।

মৃদু কণ্ঠে কিরীটী আহ্বান জানায়, আসুন সুলতা দেবী। দরজা খোলাই আছে।

সত্যি সুলতাই। সুলতা দরজা ঠেলে ঘরে এসে প্রবেশ করল।

কিরীটী চেয়ারটার উপরে সোজা হয়ে বসে একটু নড়েচড়ে।

সুলতা ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে মুহূর্তের জন্য একবার কিরীটীর মুখের দিকে চোখ তুলে তাকাল এবং কিরীটীর স্থির নিষ্কম্প দুই চোখের শান্ত দৃষ্টির সঙ্গে বারেকের জন্য দৃষ্টি বিনিময় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রায় সে মুখখানি অবনত করে ভূমিতলে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

কারও মুখেই কোন কথা নেই।

কয়েক মুহূর্ত ঘরের মধ্যে যেন একটা বিশ্রী স্তব্ধতা থমথম করতে থাকে।

কিরীটীই পুনরায় আড়চোখে সুলতার সর্বাঙ্গে বারেকের জন্য তার দুই চক্ষুর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি বুলিয়ে নেয়।

মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সুলতার সমগ্র মুখখানিতে দুশ্চিন্তার একটা কালো ছায়া যেন সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

বসুন সুলতা দেবী, ঐ চেয়ারটায় বসুন। স্নিগ্ধ কণ্ঠে কিরীটী সুলতাকে বলে কথাগুলো। সুলতা কিরীটীর নির্দেশে সামনের শূন্য চেয়ারটা একটু ঠেলে নিয়ে বসল।

কিরীটী লক্ষ্য করে, সামনাসামনি চেয়ারে বসলেও সুলতা যেন তার দিকে চোখ তুলে চাইছে না।

 কিরীটী সুলতার দিকেই চেয়ে ছিল।

দু হাত তার চেয়ারের দুদিককার হাতলের ওপরে ন্যস্ত। দু হাতের দশ আঙুলের সাহায্যে সে চেয়ারের হাতল দুটো যেন চেপে ধরেছে।

কিরীটী নিঃশব্দে পূর্ববৎ ধূমপান করতে থাকে।

অদূরে টেবিলের উপর রক্ষিত টাইমপিসটা কেবল ঘরের নিস্তব্ধতা একঘেয়ে টিক টিক শব্দ তুলে ভঙ্গ করে চলেছে।

দুজনের একজনও কোন কথা না বলায় মনে হচ্ছিল যেন একটা সুকঠিন স্তব্ধতা ঘরের নিস্তরঙ্গ বায়ুস্তরে কুৎসিত একটা জিজ্ঞাসার চিহ্নের মত পাক খেয়ে খেয়ে চলেছে।

পরস্পর যেন পরস্পরের মুখের দিকে চেয়ে অপেক্ষা করছে, কে কাকে এবং কে আগে প্রশ্ন করবে।

কিছুক্ষণ পরে কিরীটীই সেই স্তব্ধতা ভঙ্গ করে এক সময় দগ্ধ চুরুটের অগ্রভাগের ছাইটা সম্মুখের ত্রিপয়ের ওপরে রক্ষিত অ্যাসট্রেটার ওপরে ঠুকে ঝাড়তে ঝাড়তে বলে, সুলতা দেবী, কয়েকটা কথা আপনার কাছ থেকে জানবার জন্য কষ্ট দিলাম আপনাকে।

সুলতা কিরীটীর মুখের দিকে চোখ তুলে তাকাল, কিন্তু কিরীটীর কথার কোন প্রত্যুত্তর দিল না।

দুভাগ্যবশতঃ গতরাত্রে ঘটনা-বিপর্যয়ে ঠিক দুর্ঘটনাটার সময়ই মিঃ চৌধুরীর শিয়রের সামনে আপনার উপস্থিতিটা বলতে বলতে কথার মধ্যে একটুখানি ইতস্ততঃ করেই যেন কিরীটী আবার তার অর্ধসমাপ্ত বক্তব্যের জের টেনে বলে, বুঝতেই পারছেন মিস কর, পুলিসের কাছে আপনার জবানবন্দিরই সব চাইতে বেশী মূল্য এখন।

কিন্তু–সুলতা কিরীটীর দিকে মুখ তুলে কি যেন বলতে চেষ্টা করতেই, কিরীটী মৃদু স্মিতকণ্ঠে। বলে, অবশ্য ঠিক দুর্ঘটনাটা যে সময় ঘটে আপনিই অকুস্থানের সর্বাপেক্ষা কাছাকাছি ছিলেন এবং এ-কথাও মিথ্যে নয় যে আপনার এ হত্যার ব্যাপারে কোনপ্রকার স্বার্থেরই যোগাযোগ থাকতে পারে না, তাহলেও বুঝতেই পারছেন এক্ষেত্রে আপনি যে একেবারে খুব সহজেই সমস্ত প্রকার সন্দেহ থেকে রেহাই পাবেন তাও নয়।

কিরীটীর কথায় সুলতার চোখেমুখে যেন একটা চাপা আতঙ্কের অস্পষ্ট আভাস জেগে ওঠে সহসা।

আপনি কি আমাকে সন্দেহ করেন মিঃ রায়?

অত্যন্ত নিম্নকণ্ঠে ঢোঁক গিলে সুলতা প্রশ্ন করে।

কিরীটী মৃদু হেসে বলে, আপনি বোধ হয় জানেন না সুলতা দেবী, অনুসন্ধানের ব্যাপারে আমরা গোড়াতেই ঐ সন্দেহ নিয়েই কাজ শুরু করি, কিন্তু সে কথা যাক, ভয় পাবেন না যেন তাই বলে। বলছিলাম সমস্ত কিছুকেই একটা সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখতে শুরু করে ক্রমে ক্রমে আমরা নিঃসন্দেহে গিয়ে পৌঁছই। সন্দেহই আমাদের নিঃসন্দেহের সত্যে পৌঁছে দেয়।

কিরীটী কথা বলতে বলতে এক সময় চেয়ার হতে উঠে ঘরের মধ্যে ধীরে ধীরে পায়চারি শুরু করে দেয় এবং পায়চারি করতে করতেই পুনরায় তার বক্তব্যের মধ্যে ফিরে যায়, এবার আমাদের আসল ও কাজের কথায় আসা যাক—যে জন্য আপনাকে ডেকে এনেছি এ ঘরে। আমি যে প্রশ্নগুলো আপনাকে করব, আশা করি ভেবেচিন্তে তার যথাযথ উত্তর দেবেন।

বলুন?

প্রথমতঃ আপনার কি মনে আছে ঠিক কত রাত পর্যন্ত আপনি জেগে ছিলেন?

ঠিক কারেক্ট টাইম বলতে পারব না হয়ত, তবে মনে হয় সোয়া তিনটে পর্যন্ত বোধ হয় জেগে ছিলাম।

বেশ। আপনি আপনার গত রাত্রির জবানবন্দিতে বলেছেন, কফি পানের পরই কিছুক্ষণের মধ্যে নাকি আপনি ঘুমিয়ে পড়েন। মনে পড়ে আপনার?

হ্যাঁ, এমন ঘুম পেয়েছিল যে কিছুতেই জেগে থাকতে পারলাম না। তাছাড়া রায়বাহাদুরও ঘুমিয়ে পড়ায়–

কিরীটী আবার বলে, আচ্ছা ডাক্তারের কাছেই শুনেছিলাম, ইদানীং প্রায় কোন ঘুমের ওষুধেই নাকি রায়বাহাদুরের তেমন ভাল ঘুম আসত না এবং সেই কারণেই সমস্ত রাত ধরেই। ডাক্তারকে ও আপনাকে বলতে গেলে প্রায় তটস্থ হয়ে——মানে কখন ডাকবেন সেই জন্য। সর্বক্ষণই প্রায় সজাগ হয়ে থাকতে হত, কথাটা কি সত্যি?

হ্যাঁ। মৃদুকণ্ঠে সুলতা জবাব দেয়।

তাই যদি হবে তো অমন চট্ করে মাত্র একটা ঘুমের বড়ি খেয়েই ঘুমিয়ে পড়লেন কি করে?

সুলতা চুপ করে আছে। কিরীটীর প্রশ্নের কোন জবাব দিচ্ছে না।

মুহূর্তকাল চুপ করে থেকে কিরীটী পুনরায় প্রশ্ন করে, আপনার সঙ্গে শকুনিবাবুর কতদিনকার আলাপ মিস কর?

কিরীটীর প্রশ্নে হঠাৎ যেন একটু চমকেই সুলতা তার মুখের দিকে তাকায়।

কিরীটী সেই চমকানোটুকু লক্ষ্য করেই এবারে বলে, কই, কথাটার আমার জবাব দিলেন না!

সুলতা মৃদুকণ্ঠে বলে, বছর দুই হবে।

দু বছর?

হ্যাঁ, আমার জন্ম এখানে, আমি এখানেই মানুষ। বাবা এখানকার একটা কোলিয়ারীর অ্যাসিসটেন্ট ম্যানেজার ছিলেন।

Excuse me, শকুনিবাবুর সঙ্গে আপনার প্রথম পরিচয় কি করে হল?

রায়বাহাদুরের কোলিয়ারীর হাসপাতালে কলকাতা থেকে নার্সিং শিখে এসে প্রথম যখন বছর দুই আগে চাকরি নিই—হাসপাতালের ডাক্তারবাবু মিঃ ঘোষের বন্ধু ছিলেন, সেই সূত্রে হাসপাতালে ঐ সময় ওঁর যাতায়াত ছিল এবং সেই সময়েই আমাদের পরস্পরের আলাপ-পরিচয় হয়।

একটা কথা সুলতা দেবী, রায়বাহাদুরের এখানে আপনাকে কাজে নিযুক্ত করবার ব্যাপারে মিঃ ঘোষের কোন হাত ছিল কি?

কিরীটীর প্রশ্নটা এত পরিষ্কার যে প্রথমটায় সুলতা কিছুই জবাব দিতে পারে না। নিঃশব্দে বসে কেবল নিজের পরিধেয় শাড়ির আঁচলের পাড়টা টেনে টেনে সোজা করতে থাকে। কিরীটীও সুলতাকে দ্বিতীয় আর কোন প্রশ্ন না করে তীক্ষ্ণ সজাগ দৃষ্টিতে তার প্রতি চেয়ে থাকে।

অতঃপর কিছুক্ষণ ঐভাবেই নিস্তব্ধতার মধ্যেই কেটে যায়।

ধীরে ধীরে এক সময় সুলতা আবার মুখ তুলে বারেকের জন্য কিরীটীর প্রতি দৃষ্টিপাত করল এবং শান্ত ধীর কণ্ঠে বললে, না, আমার এখানে কাজে নিয়োগ সম্পর্কে মিঃ ঘোষের কোন তদারকের প্রয়োজন হয়নি, কারণ আমি রায়বাহাদুরের হাসপাতালেই চাকরি করছিলাম। কাজেই হাসপাতালের ডাক্তারবাবুই নার্সের প্রয়োজন হওয়ায় আমার কথা ডাঃ সানিয়ালকে বলায় এখানে আমার চাকরি হয়। বলতে গেলে হাসপাতালের ডাক্তারবাবুই আমার এখানে চাকরি করে দেন।

কিরীটী আবার কিছুক্ষণ চুপ করে বসে নিঃশব্দে ধূমপান করতে থাকে।

আচ্ছা এমনও তো হতে পারে, মিঃ ঘোষই হাসপাতালের ডাক্তারবাবুকে বলে এখানে– আপনার নিয়োগ যাতে হয় সে বিষয়ে সাহায্য করেছিলেন?

কিরীটীর প্রশ্নে সুলতা কর মুহূর্তের জন্য চোখ তুলে কিরীটীর মুখের দিকে তাকায়, তারপর শান্ত ধীর কণ্ঠে বললে, না, আপনার সে সন্দেহ সত্যি নয়, তাছাড়া সে রকম কোন কিছু হয়ে থাকলে আমি নিশ্চয়ই জানতে পারতাম।

মুহূর্তের জন্যই কিরীটীর চোখের তারা দুটি চকচক করে ওঠে এবং যে উদ্দেশ্যে সে একই প্রশ্ন বারংবার ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে সুলতাকে করছিল সেটা যে কতকটা সিদ্ধ হয়েছে তাতেই তার কিছুটা আনন্দ হয়। অতঃপর কিরীটী তার দ্বিতীয় প্রশ্ন করে।

মিস কর, এবারে আপনাকে আমি আবার গত রাত্রি সম্পর্কে কয়েকটা প্রশ্ন করতে চাই।

বলুন? শান্ত স্বর সুলতার।

গতরাত্রের জবানবন্দিতে এবং আজও এই কিছুক্ষণ আগে আপনি বলেছেন, কফি পানের পরই আপনার দু চোখের পাতায় অসহ্য ঘুম নেমে আসে, আপনি কোনমতেই আর চোখ খুলে রাখতে পারেন না, আপনি ঘুমোতে বাধ্য হন।

শেয়ার বা বুকমার্ক করে রাখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *