ঋগ্বেদ ০৫।৭০

৭০ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে মিত্র ও বরুণ! আমি যেন তোমাদের অনুগ্রহ ভাজন হই, কারণ তোমরা নিশ্চয়ই বিশেষরূপে রক্ষাকারী। ২। হে হিংসাবর্জিত দেবদ্বয়! আমরা যেন তোমাদের নিকট হতে ভোজনার্থে আন্ন লাভ করি। হে রুদ্রগণ! আমরা যেন তোমাদেরই হই। ৩। তোমাদরে রক্ষাদ্বারা আমাদরে রক্ষা কর ও উৎকৃষ্ট ত্রাণ দ্বারা আমাদের পরিত্রাণ কর। আমরা যেন আমাদের […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৯

৬৯ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে মিত্র ও বরুণ! তোমরা বলশাল যজমানের বলবৃদ্ধি করে এবং অবিরত যজ্ঞ রক্ষা করে, দীপ্তিমান তিন লোক তিন দ্যুলোক ও তিনটি জগৎ ধারণ করে আছ। ২। হে মিত্র ও বরুণ! তোমাদের আজ্ঞাক্রমে ধেনুগণ দুগ্ধবতী হয়, নদী সকল সুমধুর বারি প্রদান করে এবং দীপ্তিমান তিনটি বারিবাহক ও বারিবর্ষক অর্থাৎ অগ্নি, বায়ু […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৮

৬৮ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১।হে ঋত্বিগণ! তোমরা উচ্চৈস্বরে মিত্র ও বরুণের সম্যক স্তব কর। হে প্রভূত বলশালী মিত্র ও বরুণ! তোমরা এ মহাযজ্ঞে উপস্থিত হও। ২। যে মিত্র বরুণ উভয়েই সকলের অধীশ্বর, বারিবর্ষণকারী, দীপ্তিমান ও দেবগণের মধ্যে সমধিক স্তবার্হ। ৩। তারা উভয়েই আমাদের দিব্য ও পার্থিব মহাধন প্রদান করতে সমর্থ। হে দেবদ্বয়! দেবগণের মধ্যে তোমাদের […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৭

৬৭ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে দীপ্তিমান অদিতির পুত্র, মিত্র বরুণ ও অর্যমা! তোমরা সম্প্রতি সম্পূর্ণ, পূজ্য, অতিমহৎ ও প্রবৃদ্ধ বল ধারণ করছ। ২। হে মিত্রও বরুণ! যখন তোমরা আনন্দজনক যজ্ঞভূমিতে আস, হে মানবগণের রক্ষাকারী, শত্রুসংহারকগণ! তখন তোমরা আমাদরে সুখ বিধান কর। ৩। সর্বজ্ঞ মিত্র, বরুণ ও অর্যমা স্ব স্ব পদের ন্যায় আমাদরে যজ্ঞকার্যে সমবেত […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৬

৬৬ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১।হে জ্ঞানসন্ন মনুষ্য! তুমি সৎকর্মের অনুষ্ঠানকারী ও শত্রু সংহারক দেবদ্বয়কে আহ্বান কর; সত্যরূপ পূজনয়ি হব্যগৃহীতা বরুণকে হব্যপ্রদান কর। ২। তোমরা উভয়ে অপ্রতিহত ও অসুরীয় (১) বলের অধিকারী বলে, সুর্য যেরূপ অন্তরীক্ষে স্থাপিত হয়েছেন, তদ্রুপ মনুষ্যগণের মধ্যে তোমাদের উদ্দেশে যজ্ঞ সংস্থাপিত হয়েছে। ৩। তোমরা রাতহব্যের প্রকৃষ্ট স্তবে শত্রুপরাভবকারী বল লাভ করে এ […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৫

৬৫ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। দেবগণের মধ্যে তোমাদের স্তব যিনি অবগত আছেন, তিনি সৎকর্মের অনুষ্ঠানকারী। মনোজ্ঞমুর্তি মিত্র ও বরুণ যার স্তব গ্রহণ করেন, তিনি যেন আমাদরে স্তুতিবিষয়ে উপদেশ দেন। ২। নিয়তিশয় দীপ্তিশাল সে দুই অধিপতি সুদুর হতে আহ্বান করলেও শ্রবণ করে থাকেন। যজমানগণের অধীশ্বর ও যজ্ঞের বর্ধয়িতা সে দুয়ের প্রত্যেক ব্যক্তির কল্যাণ বিধানার্থে বিচরণ করছেন। […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৪

৬৪ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে মিত্র ও বরুণ! আমি এ মন্ত্রদ্বারা তোমাদের আহ্বান করছি, গোপাল যেরূপ বাহুবলদ্বারা গোযূথকে সঞ্চালিত করে, সেরূপ তোমরা উভয়েই শত্রুদরে অপসারিত কয় ও স্বর্গের পথ প্রদর্শন কর। ২। তেমরা উভয়ে প্রজ্ঞা সম্পন্ন হস্তদ্বারা স্তবকারী আমাকে অভিমত সুখ প্রদান কর কারণ তোমাদের প্রদত্ত বাঞ্চিত সুখ সকল স্থানেই ব্যাপ্ত আছে। ৩। যেন […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬৩

৬৩ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে বারিরক্ষক, সত্যদর্শী মিত্র ও বরুণ! তোমরা স্বর্গের অত্যুন্নত প্রদেশে রথোপরি আরোহণ কর। এ যজ্ঞে তোমরা যে যজমানকে রক্ষা করছ বৃষ্টি স্বর্গ হতে তার উদ্দেশে সুমধুর বারি বর্ষণ করে। ২। হে স্বর্গদ্রষ্টা মিত্র ও বরুণ! তোমরা আমাদের যজ্ঞে সমধিক দীপ্তিশালী হয়ে ভুবণ শাসন করছ। আমরা তোমাদরে নিকট বৃষ্টিরূপ ধন এবং […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬২

৬২ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। আমি তোমাদরে আবাসভূত, ঋতদ্বারা আচ্ছাদিত, ধ্রুব ও ঋত সূর্যমন্ডল দর্শন করেছি। সে স্থানে অবস্থিত অশ্বগণকে উপাসকগণ স্তোত্রদ্বারা বিমুক্ত করেন। সে স্থানে সহস্র সংখ্যক রশ্মি সমবেত হয়ে অবস্থিতি করে। দেবমূর্তিসমূহের মধ্যে সে এক শ্রেষ্ঠ মুর্তি আমি দেখেছি। ২। হে মিত্র ও বরুণ! তোমাদরে এ মাহাত্ম্য অতি প্রশস্ত, যা দিয়ে নিরন্তর পরিভ্রমণকারী […]

ঋগ্বেদ ০৫।৬১

৬১ সুক্ত ।। অনুবাদঃ ১। হে শ্রেষ্ঠতম নেতাগণ! কে তোমরা সুদূরবর্থী প্রদেশ হতে একে একে উপস্থিত হয়েছ? ২। তোমাদরে অশ্বগণ কোথায়? বঙ্গা কোথায়? কিরূপ সামর্থ্য? কিরূপেই বা গমন করছ? অশ্বগণের পৃষ্ঠদেশ আস্তরণ ও নাসিকাদ্বয়ে বন্ধনরজ্জু লক্ষিত হচ্ছে। ৩। অশ্বগণের জঘন দেশে কশাঘাত হচ্ছে, তারা যশ্তু তাড়িত হয়ে প্রসবোন্মুখী নারীর ন্যায় উরু বিবৃত করছে। ৪। হে […]