ঋগ্বেদ ০৮।০৬৮

ঋগ্বেদ ০৮।০৬৮
ঋগ্বেদ সংহিতা ।। ৮ম মণ্ডল সূক্ত ৬৮
শেষ ছয়টি ঋকের ঋক্ষ ও অশ্বমেধের দানস্তুতি দেবতা; অপরগুলির ইন্দ্র দেবতা। অঙ্গিরাগোত্রোৎপন্ন প্রিয়মেধ ঋষি।

১। হে বলবান্ এবং সৎপতি ইন্দ্র! তুমি বহুকৰ্ম্মা এবং হিংসকগণের অভিভব কারী, আমরা রক্ষা এবং সুখের জন্য তোমাকে রথের ন্যায় আবর্তিত করিতেছি।

২। হে প্রভূত বলশালী, অত্যন্ত প্রাজ্ঞ, বহুকৰ্ম্মা এবং পূজনীয় ইন্দ্র! তুমি বিশ্বব্যাপ্ত মহত্বের দ্বারা জগৎ আপূরিত করিয়াছ।

৩। তুমি মহান, তোমার মহত্ত্বদ্বারা পৃথিবীতে ব্যাপ্ত হিরণ্ময় বজ্র হস্তদ্বয়ে গ্রহণ করে।

৪। আমি সমস্ত শত্রুগণের প্রতিগমনকারী ও দুর্দমনীয় বলের পতি ইন্দ্রকে তোমাদিগের লোকসমূহের গমনের সহিত এবং রথের গমনের সহিত আহ্বান করি (১)।

৫। নেতাগণ রক্ষার্থে যাহাকে নানা প্রকারে যুদ্ধে আহ্বান করেন, সেই সর্বদা বর্ধমান ইন্দ্রকে সাহায্যার্থে আগমনের জন্য আহ্বান করি।

৬। অপরিমিত শরীরবিশিষ্ট ও স্তুতিদ্বারা পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর ধনবিশিষ্ট এবং ধনসমূহের স্বামী উগ্র ইন্দ্রকে আহ্বান করি।

৭। যিনি নেতা এবং মনুষ্যগণের যজ্ঞমুখস্থিত আনুপূর্বিক স্তুতি শ্রবণ করিতে সক্ষম, সেই ইন্দ্রকেই আমি মহৎ ধন লাভ কবিবার জন্য সোমপানে আহ্বান করি।

৮। হে বলবান্! মনুষ্য তোমার সখ্য ব্যাপ্ত করিতে পারে না, তোমার বল ব্যাপ্ত করিতে পারে না।

৯। হে বজ্ৰবান! আমরা যেন তোমাকর্তৃক রক্ষিত হইয়া এবং তোমার সাহায্যে জলে স্নান করিবার জন্য এবং সূৰ্য্য দর্শন করিবার জন্য সংগ্রামে মহৎ ধন জয় করি।

১০। হে স্তুতির দ্বারা অত্যন্ত স্তুতিযোগ্য ইন্দ্র! আমি প্রাজ্ঞ, যাহাতে তুমি আমাদিগকে সংগ্রামে রক্ষা কর, আমরা তোমাকে সেইরূপে যজ্ঞের দ্বারা যাচ্ঞা করি, তোমাকে স্তুতি দ্বারা যাচ্ঞা করি।

১১। হে বজ্রবান! তোমার সখ্য স্বাদু, তোমার প্রণয়ন স্বাদু এবং তোমার যজ্ঞ বিস্তারযোগ্য।

১২। আমাদের পুত্রের জন্য প্রভূত দান কর, আমাদের পৌত্রের জন্য প্রভূত দান কর এবং আমাদের নিবাসের জন্য প্রভূত দান কর। আমাদের জীবনের জন্য অভিলষিত প্রদান কর।

১৩। মনুষ্যগণের জন্য হিত প্রার্থনা করি, গাভীর জন্য হিত প্রার্থনা করি, রথের জন্য সুন্দর পথ প্রার্থনা করি, যজ্ঞ প্রার্থনা করি।

১৪। ছয় জন নেতা সোমজন্য, হর্যহেতু, উপভোগার্হ ধনযুক্ত হইয়া দুইজন দুইজন করিয়া আমার নিকট আগমন করে।

১৫। ইন্দ্রোতের নিকট হইতে ঋজুগামী অশ্বদ্বয় গ্রহণ করিয়াছি, ঋক্ষের পুত্রের নিকট হইতে হরিৎবর্ণ অশ্বদ্বয় গ্রহণ করিয়াছি এবং অশ্বমেধের পুত্রের নিকট হইতে রোহিত বর্ণ অশ্বদ্বয় গ্রহণ করিয়াছি (২)।

১৬। অতিথিগ্বের পুত্রের নিকট হইতে সুরথবিশিষ্ট অশ্বসমূহ গ্রহণ করিয়াছি; ঋক্ষের পুত্রের নিকট হইতে সুন্দর রশ্মি অভীশু(৩) বিশিষ্ট অশ্বসমূহ গ্রহণ করিয়াছি এবং অশ্বমেধের পুত্রের নিকট হইতে সুরূপ অশ্বসমূহ গ্রহণ করিয়াছি।

১৭। অতিথিগ্বের পুত্র শুদ্ধকৰ্ম্মা ইন্দ্রোতের নিকট হইতে বধূযুক্ত ছয়টী অশ্ব(৪) গ্রহণ করিয়াছি।

১৮। দীপ্তিমতী, সেচনসমর্থ অশ্ববিশিষ্টা, দীপ্তিমতী এবং সুন্দর কশবতী (বড়বা) ও এই ঋজুগামী অশ্বগণের মধ্যে আছে।

১৯। হে অন্নপ্রদগণ! নিন্দক মনুষ্যও যেন তোমাদিগের প্রতি নিন্দা আরোপ না করে।


(১) ঋষি মরুৎগণকে, অথবা যজমানগণকে সম্বোধন করিয়া বলিতেছেন।

(২) ঋক্ষের পুত্রের ও অশ্বমেধের পুত্রের যজ্ঞে ইন্দ্রোত তাঁহার পিতা অতিথিগ্বের সহিত আগমন করিয়া ঋষিকে অশ্বদ্বয় প্রদান করিয়াছিলেন। সায়ণ।

(৩) দীপ্তিবিশিষ্ট, অথবা লাগামবিশিষ্ট।

(৪) বধুযুক্ত অশ্ব কী? অশ্বের সহিত বোধ হয় অশ্বী দানও করা হইয়াছিল, নিম্নের ঋক দেখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *