ঋগ্বেদ ০৮।০৬৩

ঋগ্বেদ ০৮।০৬৩
ঋগ্বেদ সংহিতা ।। ৮ম মণ্ডল সূক্ত ৬৩
ইন্দ্র দেবতা; কেবল শেষ ঋকের দেবগণ দেবতা। কণ্বের পুত্র প্রগাথ ঋষি।

১। তিনি প্রধান, তিনি পূজ্যগণের কৰ্ম্মপ্রযুক্ত কমনীয়, তিনি আগমন করিতেছেন। ইন্দ্রকে লাভ করিবার উপায়স্বরূপ কৰ্ম্ম সকলকে পিতা মনু দেবগণের মধ্যে প্ৰাপ্ত হইয়াছিলেন।

২। সোমাভিষবে নিযুক্ত প্রস্তর সকল স্বর্গের নিৰ্ম্মাতা ইন্দ্রকে পরিত্যাগ করে না, উকথ ও স্তোত্র সকল উচ্চারণ করা উচিত।

৩। বিদ্বান ইন্দ্র অঙ্গিরাগণের জন্য গোসকল অপাবৃত করিয়াছিলেন, তাহার সেই পুরুষত্ত্বের স্তুতি করি।

৪। ইন্দ্র পূর্বের ন্যায় একালেও কবিগণের বর্ধয়িতা, স্তোতার কাৰ্য্য নির্বাহক, সুখকর, অর্চনীয় সোমের হোমকালে আমাদিগের রক্ষার্থ গমন করুন।

৫। স্বাহাদেবীর পতির উদ্দেশে যাগকারিগণ, হে ইন্দ্র! তোমারই কীৰ্ত্তিসকল গান করিতেছে, স্তোতাগণ শীঘ্র ধনদানার্থ ইন্দ্রের স্তব করিতেছে।

৬। সমস্ত বীৰ্য্য, সমস্ত কৰ্ত্তব্য কাৰ্য্য ইন্দ্ৰেই বৰ্ত্তমান, স্তোতাগণ ইন্দ্রকে অধ্বর বলিয়া জানেন।

৭। যখন পঞ্চ জনপদের লোক ইন্দ্রের উদেশে স্তুতি ঘোষণা করে, তখন ইন্দ্র আপনার মহিমায় শত্ৰুগণকে বধ করেন। আৰ্য্য ইন্দ্র স্তোতাকৃত পূজার নিবাসস্থান।

৮। হে ইন্দ্র! যেহেতু তুমি সেই সকল পৌরুষকর কাৰ্য্য করিয়াছ, অতএব তোমায় এই স্তুতি করিতেছি, চক্রের পথ রক্ষা কর।

৯। বৃষ্টিপ্রদ ইন্দ্রের প্রদত্ত নানাপ্রকার অন্ন লব্ধ হইলে লোক সকল জীবনার্থে নানা প্রকার কৰ্ম্ম করে, পশুগণের ন্যায় তাহারা যব গ্রহণ করে।

১০। আমরা স্তোত্রকারী, রক্ষাভিলাষী ঋত্বিক। তোমাদের সহিত যেন আমরা মরুৎবিশিষ্ট ইন্দ্রের বর্ধনার্থ অন্নের পালক হই।

১১। তুমি যাগকালে প্ৰাদুর্ভূত ও তেজোবিশিষ্ট। হে শূর ইন্দ্র! মন্ত্রের দ্বারা সত্যই তোমার স্তব করিব, সহায়তায় জয়লাভ করিব।

১২। জলসেকবিশিষ্ট ভয়ঙ্কর মেঘগণ এবং আহবানে আনন্দযুক্ত যে বৃত্রহন্তা ইন্দ্র স্তুতিকারী ও শাস্ত্র পাঠকারী যজমানের নিকট বেগে আগমন করেন, তিনিও আমাদের রক্ষা করুন। ইন্দ্রই দেবগণের জ্যেষ্ঠ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *