কাকাবাবু ও সিন্দুক-রহস্য (২০০৫)

কাকাবাবু ও সিন্দুক-রহস্য (২০০৫) – কাকাবাবু ও সন্তু সমগ্র - সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

০১. কাকাবাবু হাসতে হাসতে বললেন

কাকাবাবু হাসতে হাসতে বললেন, জোজো একাই সব গল্প বলবে? আমরা বুঝি গল্প জানি না? জোজো বলল, আমি তো গল্প বলি না! সব সত্যি ঘটনা। সন্তু জিজ্ঞেস করল, তুই যে বললি, একটা গোরিলা নারকোল গাছে উঠে নারকোল ছিঁড়ে ছিঁড়ে তোর দিকে ছুড়ে মেরেছিল, সেটা গল্প নয়? আমরা শুনেছি, গল্পের গোরু গাছে...

০২. ট্রেনটা বাদামপাহাড় স্টেশনে পৌঁছোল

ট্রেনটা বাদামপাহাড় স্টেশনে পৌঁছোল ঠিক সন্ধের মুখে। কাকাবাবুদের সঙ্গে সেই সাধুবাবাও নামলেন এখানে। এখনও চক্ষু বোজা। সেই অবস্থাতেও ট্রেন থেকে নামতে কোনও অসুবিধে হল না। দিব্যি হেঁটে চললেন গেটের দিকে। বিনয়ভূষণ মহাপাত্র নামে একজন পুলিশ অফিসারের স্টেশনে অপেক্ষা করার কথা।...

০৩. সকালবেলা প্রথম ঘুম ভাঙল সন্তুর

সকালবেলা প্রথম ঘুম ভাঙল সন্তুর, নীচে চেঁচামেচি শুনে। সন্তু খাট থেকে নেমে জানলাটা খুলে দিল। প্রথমেই চোখে পড়ল, বাড়ির সামনের দিকটায় আর রাস্তায় বেশ জল জমে আছে। বৃষ্টি হয়েছে সারারাত। গাছপালাগুলো স্নান করে সেজেগুজে আছে। নীচে তিন-চারজন লোক কথাবার্তা বলছে উত্তেজিতভাবে।...

০৪. মোট সাতখানা মোটা মোটা খাতা

মোট সাতখানা মোটা মোটা খাতা। লম্বাটে ধরনের, লাল কাপড় দিয়ে বাঁধানো। কাকাবাবু খাতাগুলো দেখতে দেখতে বললেন, আগেকার দিনে এই ধরনের খাতাকে বলা হত খেরোর খাতা। সন্তু জিজ্ঞেস করল, কেন, ওরকম নাম ছিল কেন? খেরো মানে কি হিসেব? কাকাবাবু বললেন, না। এই লাল রঙের মোটা কাপড়কে বলে খেরো। এই...

০৫. সন্তু আর জোজো কমলিকার সঙ্গে

সন্তু আর জোজো কমলিকার সঙ্গে নীচে নেমে এল। সন্তু জিজ্ঞেস করল, প্রবীর যাবে না? কমলিকা বলল, না। বাবা দাদাকে এক জায়গায় পাঠিয়েছেন কিছু জিনিসপত্র কিনে আনার জন্য। জোজো বলল, জিপগাড়িটাও তো নেই, তা হলে আমরা যাব কীসে? কমলিকা বলল, হেঁটেই যাব। খুব বেশি দূর তো নয়! জোজো বলল, এই...

০৬. কাকাবাবু অনেকক্ষণ ধরে বিছানায়

কাকাবাবু অনেকক্ষণ ধরে বিছানায় শুয়ে শুয়ে হিসেবের খাতাটা খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে লাগলেন। তারপর ঘুমিয়ে পড়লেন একসময়। বিকেলের দিকে তার ঘুম ভাঙল। জানলার বাইরে ঝকঝক করছে রোদ। সন্তু আর জোজো ফেরেনি। তিনি ভাবলেন, এই রোদ্দুরে কোথায় ওরা ঘুরে বেড়াচ্ছে কে জানে! তিনি খাট থেকে নেমে...

০৭. গর্তে পড়ে যাওয়ার পর

গর্তে পড়ে যাওয়ার পর সন্তু আর জোজো দুজনেই প্রথমটা হকচকিয়ে গেল। সন্তু বলল, এটা কী ব্যাপার হল রে জোজো? জোজো বলল, উঃ উঃ, আমার খুব লেগেছে। আমার পা ভেঙে গেছে বোধহয়! সন্তু বলল, যাঃ, তোর যখন-তখন পা ভাঙে। এখানে তো নরম মাটি দেখছি। আমার কিছু হয়নি। জোজো বলল, পা ভাঙেনি বোধহয়।...

০৮. কাকাবাবু বসে আছেন রাজবাড়ির সামনে

কাকাবাবু বসে আছেন রাজবাড়ির সামনে বাগানে। নটবর সিংহ তাকে একটা চেয়ার এনে দিয়েছে। আকাশে গুমগুম শব্দ হচ্ছে মেঘের। বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে মাঝে মাঝে। কিন্তু বৃষ্টি আসার নাম নেই। হাওয়া বইছে বেশ জোরে। সেই হাওয়ায় ভেসে আসছে বনজঙ্গলের গন্ধ। কাকাবাবু মাঝে মাঝে ঘড়ি দেখছেন। এখন রাত পৌনে...

০৯. কিরণচন্দ্র ভঞ্জদের জ্বর

কিরণচন্দ্র ভঞ্জদের জ্বর অনেকটা কমেছে। তবু শরীর খুব দুর্বল। কথা বললেন খুব আস্তে আস্তে। কাকাবাবুদের দেখে ইজিচেয়ার থেকে উঠে দাড়ানোর চেষ্টা করতেই কাকাবাবু বললেন, উঠবেন না, বসুন, বসুন! সন্তু আর জোজোও এসেছে কাকাবাবুর সঙ্গে। কিরণচন্দ্র বললেন, আমার আর এখানে থাকা হবে না। ছেলে...