বুদ্ধির ঝিলিক

বুদ্ধির ঝিলিক - তিন গোয়েন্দা সিরিজ - সেবা প্রকাশনী। প্রথম প্রকাশ : নভেম্বর, ১৯৯০

০১. বিকেল বেলা কেসের রিপোর্ট লিখছিল

বিকেল বেলা কেসের রিপোর্ট লিখছিল রবিন মিলফোর্ড। বাইরে বসন্তের রোদ। ছোট ছেলেমেয়েরা খেলছে। একটা গাড়ির দরজা বন্ধ হওয়ার শব্দ হল। কাজ থেকে ফিরেছেন রবিনের বাবা মিস্টার মিলফোর্ড। কয়েক মিনিট পর ঘরে ঢুকলেন তিনি। রবিনকে দেখে হাসি ফুটল মুখে। বললেন, এই যে, গোয়েন্দা। গুপ্তধন...

০২. পরদিন সকালে তাড়াতাড়ি নাস্তা সেরে

পরদিন সকালে তাড়াতাড়ি নাস্তা সেরে সাইকেল নিয়ে স্যালভিজ ইয়ার্ডে চলে এল মুসা। সবুজ ফটক এক-এর কাছাকাছি এসে দেখল, বেড়ার ধারে ঘাপটি মেরে রয়েছে রবিন। কিশোর ফোন করেছিল তোমাকে? চেঁচিয়ে জিজ্ঞেস করল মুসা। না, ফিসফিস করে জবাব দিল রবিন। হেডকোয়ার্টারের কাছে ঘুরঘুর করছে। কে যেন।...

০৩. কারমলের বাড়িতে রওনা হল তিন গোয়েন্দা

স্কুল ছুটি হতেই কারমলের বাড়িতে রওনা হল তিন গোয়েন্দা। বোটানিক্যাল গার্ডেন আর একটা বড় পার্কের পাশে বাড়িটা। খানিক দূরে পাহাড়। সাইকেল, চালাতে চালাতে কিশোর বলল, কড়া নজর রাখবে। বলা যায় না, আমাদের ওপরও চোখ রাখতে পারে কেউ। খাইছে! কিশোর, দেখ! হাত তুলে পাহাড়ের নিচে দেখাল...

০৪. পরদিন সকালে নাস্তার পরে

পরদিন সকালে নাস্তার পরেও কিশোর ফোন করছে না দেখে রবিনকে ফোন করল মুসা। আমাকেও তো করেনি, রবিন জানাল। শেষে আর অপেক্ষা না করে স্যালভিজ ইয়ার্ডে চলল দুজনে। হেডকোয়ার্টারে কিশোরকে পাওয়া গেল না। তাই তাকে ঘরে খুঁজতে চলল। বাড়ির সামনে পিকআপ ট্রাকটার ইঞ্জিন মেরামত করছেন রাশেদ...

০৫. আগের দিনের চেয়ে বিচিত্র দৃশ্য

আগের দিনের চেয়ে বিচিত্র দৃশ্য কারমলের বাড়িতে। পুলিশের লোক দাঁড়িয়ে আছে হাত গুটিয়ে, কিছুই করার নেই ওদের। জিনিসপত্র ছড়াচ্ছে, লাথি মেরে বোতল ভাঙছে রত্নশিকারিরা। রেগে গেছে। যেন বুঝতে পারছে ঠকানো হয়েছে ওদেরকে। কটেজের লিভিংরুমে ঢুকল তিন গোয়েন্দা। ওদের জন্যে নরিকে ফলের রস...

০৬. শান্ত রইল কিশোর

শান্ত রইল কিশোর। আপনি কি ডেপুটি গ্যারেট? হ্যাঁ, বলেই গর্জে উঠল শেরিফ, অনেক জ্বালাতন হয়েছে! মরা মানুষের ধাঁধা, যত্তসব! তোমাদেরকে অ্যারেস্ট করলাম। কিন্তু, প্রতিবাদ জানাল রবিন, আমরা… শান্তকণ্ঠে কিশোর বলল, ভাল করে খেয়াল করে দেখুন, ডেপুটি, পাতাগুলো কেমন শুকিয়ে আছে।...

০৭. ভেসে চলেছে হাউসবোট

ভেসে চলেছে হাউসবোট। ঝাঁপ দিয়ে পড়, চিৎকার করে বলল কিশোর। সাঁতরে উঠব। নাআ! সময়মত নেতৃত্ব নিয়ে নিয়েছে মুসা। চুপ করে দাঁড়িয়ে থাক। দুজনেই। জমে গেল যেন কিশোর আর রবিন। স্রোত খুব বেশি, মুসা বলল। টেনে নিয়েই যাবে, বুঝতে পারছি। জরুরী কণ্ঠে নির্দেশ দিল, জলদি গিয়ে ওপরে ওঠ। মুসাকে...

০৮. কয়েক ঘন্টা পর রিসিভার রেখে

কয়েক ঘন্টা পর রিসিভার রেখে আপনমনেই বলল মুসা, যাক, ভূতকে টেলিফোন করা শেষ। পেছনে যে বাবা এসে দাঁড়িয়েছেন, খেয়াল করেনি। কি বললে? জিজ্ঞেস করলেন মিস্টার আমান। ভূতকে ফোন করেছ? তোমার শরীর ভাল তো? অ্যাঁ… না না, ভূত নয়, ভূত-থেকে-ভূতে। কিশোরের আবিষ্কার। আর কিছুক্ষণের...

০৯. অনুসরণ করা হচ্ছে

কিশোর বলল, আমাদেরকে অনুসরণ করা হচ্ছে। বাস ডিপো থেকে মুকখানেক দূরে রয়েছে ওরা। ট্রাফিক লাইটের কারণে বাধ্য না হলে থামত না, পেছনেও তাকাত না কিশোর, দেখতও না। কই? রবিন বলল। আমি তো কিছু দেখছি না। একটা গাড়ির পেছনে বসে পড়েছে। সাইকেল নিয়ে আসছিল। অদ্ভুত পোশাক আর হ্যাট পরেছে।...

১০. খেঁকিয়ে উঠল জেনি

খেঁকিয়ে উঠল জেনি, মনে করেছ এত সহজে হাল ছেড়ে দেব? এতই চমকে গেছে, কথা হারিয়ে ফেলেছে রবিন আর মুসা। রাগে কাঁপছে কিশোর। তবে জিভ সংযত রাখল। দেখতে চাইছে, কি ঘটে। ভালই অভিনয় করেছ, জেনি, বোঝা যাচ্ছে, বোনকে বলে, ছেলেদের দিকে চেয়ে দাঁত খিচাল মাইক। তুমিও কম করনি, হেসে উঠল জেনি।...

১১. চেঁচিয়ে উঠল মুসা

খাইছে! চেঁচিয়ে উঠল মুসা। কী, কিশোর? শোন, পকেট থেকে নকলটা বের করল কিশোর। তিন নাম্বার ধাঁধায় বলছেঃ অ্যাট দ্য টেনথ বল অভ টোয়াইন, ইউ অ্যাণ্ড মি; সী আওয়ার হ্যাণ্ডসাম মাগ অ্যাহেড। হাসল সে। বাস থেকে অনেক কিছু দেখা যায়। তার মধ্যে। একটার ছন্দ মিলে যায় বল অভ টোয়াইনের সঙ্গে। এবং...

১২. ওদের মাথার ওপরে এসে

ওদের মাথার ওপরে এসে আচমকা আবার উঠতে শুরু করল জিনিসটা। বেশ চওড়া এক চক্কর নিয়ে ঘুরে আবার রওনা হয়ে গেল যেদিক থেকে এসেছিল সেদিকে। অদৃশ্য হয়ে গেল ছাউনির আড়ালে। ও-ওটা কি?…ভূ-ভূ… তোতলাতে লাগল মুসা। অট্টহাসি শোনা গেল ছাউনির পেছন থেকে। বেরিয়ে এল এক বুড়ো, ছোটখাট...

১৩. পকেট থেকে নকলটা বের করল

পকেট থেকে নকলটা বের করল গোয়েন্দাপ্রধান। আপনমনেই বলল, টেনথ বল অভ টোয়াইন আমাদেরকে নিয়ে এসেছে শপিং সেন্টারে। তারপরে? ইউ অ্যাণ্ড মি; সী আওয়ার হ্যান্ডসাম মাগ অ্যাহেড। রবিন বলল, ইউ অ্যাণ্ড মি হল আ কাপ অভ টী। মরেছে, সেন্টারে গিজগিজ করছে লোক, সেদিকে তাকিয়ে বলল মুসা। এক কাপ চা...

১৪. মাগ মানে কি

বাবা, মাগ মানে কি? জিজ্ঞেস করল মুসা। পরদিন সকালে, খবরের কাগজ পড়ছিলেন মিস্টার আমান। কাগজটা নামিয়ে বললেন, মাগ মানে মগ। কাগজ আবার তুলতে তুলতে বললেন, অবশ্য যদি সেকেণ্ড-রেট কোন লোকের কথা না বল… মানে? রাস্তায় ধরে পথিককে পিটিয়ে যে জিনিসপত্র কেড়ে নেয় তাকেও বলে মাগ। নাহ।...

১৫. বন্ধ ঘরের ভেতরে উঁকি দিয়ে

বন্ধ ঘরের ভেতরে উঁকি দিয়ে দেখার চেষ্টা করল মুসা। কিছুই দেখতে পাচ্ছি না। বাঁচাও, বাঁচাও! শোনা গেল আবার। অফিসের পেছন থেকে আসছে! বলে উঠল রবিন। পেছনে তিনটে পার্ক করা কার আর একটা ভ্যান দেখা গেল। আবার শোনা গেল হিচড়ানোর আওয়াজ। মনে হচ্ছে ভ্যানের ভেতরে, মুসা অনুমান করল।...

১৬. সামনের দরজা দিয়ে বেরিয়ে

সামনের দরজা দিয়ে বেরিয়ে ঘুরে টাউন হলের একপাশে চলে এল কিশোর। পেছনে ছুটছে তার সহকারীরা। জোরে জোরে নিঃশ্বাস ফেলছে সবাই, চোখ উজ্জ্বল। থমকে দাঁড়াল গোয়েন্দাপ্রধান। দেয়ালে একটা খিলানমত দেখা গেল, দরজা ছিল এককালে বোঝা যায়, ম্যারিজ লাইসেন্স ব্যুরো থেকে বেরোনোর। কি করব এখন,...

১৭. চুপচাপ থাক

চুপচাপ থাক, তাহলে জখম হবে না, ড্রাইভারের সিট থেকে বলল খাটো লোকটা। পেছনের সিটে গাদাগাদি করে বসেছে চারজনে, দৈত্যটার একপাশে মুসা, আরেক পাশে রবিন আর কিশোর। পেছনের জানালার পর্দা টেনে দেয়া হয়েছে। আরেকটা ছেলে কোথায়, মিস্টার হিউগ? দানবটা জিজ্ঞেস করল। পার্টি তো বলল শুধু এই...

১৮. টাউন হলের সামনে

টাউন হলের সামনেই রয়েছে সাইকেলগুলো। তাড়াতাড়ি বন্দরে রওনা হল ওরা। বন্দরের এক কোণে ঘাটে বাঁধা রয়েছে বিশাল এক সমুদ্রগামী জাহাজ। কয়েকটা আলো দেখা যাচ্ছে ওটাতে। ছেলেরা পৌঁছে দেখল, সারি দিয়ে লোক নেমে আসছে ওটা থেকে। শুঁটকি আর এজটারের খেয়াল রেখ, সাবধান করে দিল কিশোর। লোকের...

১৯. এক ঘন্টা পরে

এক ঘন্টা পরে। ঘাটে ফ্লাডলাইটের উজ্জ্বল আলোর নিচে দাঁড়িয়ে আছে রবিন, মুসা, নরি, সঙ্গে চীফ ইয়ান ফ্লেচার আর ক্যাপ্টেন। পাশে অন্ধকারে মাথা ভুলে রেখেছে বিশাল জাহাজটা। ঘড়ি দেখলেন ক্যাপ্টেন। আটটা প্রায় বাজে, চীফ, বললেন তিনি। এক ঘন্টা হয়ে গেল। আমার মনে হয় আর অপেক্ষা করা ঠিক...

২০. বিড়বিড় করল জেনি

শয়তান! বিড়বিড় করল জেনি। আস্ত শয়তান! শয়তানের আবার রসিকতা! তার দিকে ফিরে কঠোর গলায় চীফ বললেন, আপনি আর আপনার ভাইয়ের জন্যে এটা শয়তানী হতে পারে, ম্যাডাম, তবে অনেকের জন্যে সত্যি রসিকতা। ক্যাপ্টেন, শো-এর সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেও এদের জাহাজে থাকার পারমিশন আছে? কিংবা জাহাজের...