০৯. সামবেদীয়  অন্নপ্রাশন

সামবেদীয়  অন্নপ্রাশন *

অনুবাদ।–পুত্র-সন্তানের পক্ষে ষষ্ঠ বা অষ্টম মাসে এবং কন্যা-সন্তানের পক্ষে পঞ্চম বা সপ্তম মাসে শুভ দিনে পিতা স্নান ও বৃদ্ধিশ্রাদ্ধ সমাধা পূর্বক শুচি নামক অগ্নিকে স্থাপন করিয়া বিরূপাক্ষ-জন্তা কুশণ্ডিকা সমাপন করত প্রকৃতকর্মারম্ভে প্রাদেশ প্রমাণ ঘৃতাক্ত সমিধূ তূষ্ণীভাবে অগ্নিতে আহুতি দিয়া মহাব্যাহৃতি। হোম করিবে। মহাব্যাহৃতি হোমের মন্ত্র মূলে লিখিত আছে। পরে “প্রজাপতিঋষিগায়ত্ৰীচ্ছল আদিত্যো দেবতা পুরুষধিপত্য কামস্য চতুষ্পথেহগ্নাবাদিত্যাভিমুখস্যাজ্যহোমে বিনিয়োগ ওঁ অন্নং বৈকচ্ছস্যমন্নং” ইত্যাদি মন্ত্র দ্বারা হোম করিতে হয়। উক্ত মন্ত্রের ভাবার্থ এই যে, “অন্নই এক আচ্ছাদক অর্থাৎ রক্ষক। অন্নই অখিল ভূতকে রক্ষা করে। অনুযুক্ত অর্থাৎ ঐশ্বৰ্যসমন্বিত ব্যক্তিগণই শ্ৰী; তন্মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ বিয়োচন অর্থাৎ সূৰ্যদের অন্ন দ্বারা আধিপত্য অর্পণ করুন। যাবতীয় অন্নরসের শ্রেষ্ঠ ধৃত এবং তিনিই তেজঃ ও সম্পৎ, আমি তদিচ্ছায় হোম করিতেছি।” ইত্যাদি মন্ত্রে হোম করিবে। পরে মহাব্যাহৃতি হোম করিয়া প্রাদেশ প্রমাণ ঘৃতাক্ত সমিধ্‌ তূষ্ণীভাবে আহুতি দিয়া প্রকৃতকর্ম সমাপন পূৰ্ব্বক সৰ্ব্বকৰ্মসাধারণ শাট্যায়ন, হোমাদি বামদেবগানা উদীচ্য কৰ্ম্ম সমাপন করত “প্ৰজাপতিঋষিবৃহতীচ্ছলোহগ্নপতিৰ্দেব কুমারস্যান্ন প্রাশনে বিনিয়োগঃ। ওঁ অন্নপতেহস্য নো ধেহ্যনমীরস্য শুষ্মিণঃ প্ৰদাতার তার্ষ উজ্জং নো ধেহি দ্বিপদে শং চতুষ্পদে স্বাহা” এই মন্ত্রে অর্থাৎ “অন্নপতি সূৰ্য্য আরোগ্য প্ৰদ ও অগ্নিবর্ধক অন্নবল সমর্পণ করুন এবং অন্নদাতাকে পরিত্রাণ করুন। আমাদিগকে চতুষ্পদাবস্থায় অর্থাং যুগ্মকভাবে এবং দ্বিপদাবস্থায় অর্থাৎ অযুগ্মভাবে কল্যাণ বিধান করুন।” এই মন্ত্রে কুমারের মুখে অন্ন প্রদান করিবে। তদনন্তর কর্মকারয়িতৃ-ব্রাহ্মণকে দক্ষিণা দিতে হয়।

ইতি সামবেদীয় অন্নপ্রাশন সমাপ্ত।

————–

* শৈশবস্থার তৃতীয় সংস্কারকেই অন্নপ্রাশন কহে। পুত্র সন্তান হইলে ছয় মাসে বা আট মাসে এবং কন্যা সন্তান হইলে পঞ্চম বা সপ্তম মাসে এই সংস্কার করণীয়। এই সংস্কার দ্বারা শিশুর সঙ্কীকরণ-দোষের অপনোদন হয়। খাদ্যাখাদ্য-বিচার-রাহিত্যই সঙ্করীকরণ-দোষের লক্ষণ। এই সংস্কার দ্বারা শিশুর খাদ্যদ্রব্য নির্দিষ্ট হইয়া থাকে। অমাদিগের দেশে। এখন এই রীতি প্রচলিত হইয়া গিয়াছে যে, মাতুলকেই অন্ন খাওয়াইয়া দিতে হয়, তাহার অভাবে অন্য ব্যক্তি খাওয়াইবে; কিন্তু পিতা মাত নহেন। ইহার তাৎপৰ্য এই যে, আমাদিগের বঙ্গদেশে গোষ্ঠীপতি দ্বিজাতিরা দৌহিত্র সন্তানের প্রতি বিশেষ আদর প্রদর্শন পূর্বকই এই রীতি প্রচলিত করিয়া গিয়াছেন। পরন্তু উহা তাদৃশ দোষাবহ নহে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *