০৩. অজু করার সময়ে বিভিন্ন দোয়া পাঠ

অজু করার সময় বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গ ধৌত করার সময়েও বিভিন্ন দোয়া পড়া সুন্নত। নিচে উক্ত দোয়াগুলো দেয়া হলো-

  1. হাতের কবজি ধোয়ার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা ইন্নী আসয়ালুকাল ইউমনা ওয়াল বারাকাতা ওয়া আউযুবিকা মিনাশ শুমি ওয়াল হালাকাতি।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! আমি তোমার নিকট বরকত এবং সৌভাগ্য কামনা করি এবং অকল্যাণ ও দুর্ভাগ্য থেকে আশ্রয় চাই।
  2. কুলি করার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা আইন্নী আলা যিকরিকা ওয়া শুকরিকা ওয়া কাছরাতিচ্ছালাতি আলা হাবীবিকা।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! আমি তোমার নিকট এটাই চাই যে, আমার এই মুখ দিয়ে আমি যেন বেশি বেশি করে তোমার যিকির করতে পারি। বেশি বেশি করে তোমার শোকর আদায় করতে পারি আর বেশি করে তোমার প্রিয় হাবীবের জন্য দুরূদ পড়তে সক্ষম হই।
  3. নাক পরিস্কার করার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা আরিহনী রাইহাতাল জান্নাতি ওয়ালা তুরিহনী রায়িহাতিন্নির।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! আমি তোমার নিকট ফরিয়াদ করছি যে, আমাকে তুমি জান্নাতের সুগন্ধি দ্বারা সুভাসিত কর। জাহান্নামের দুর্গন্ধ দ্বারা দুর্গন্ধী করো না।
  4. মুখমন্ডল ধোয়ার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা বাইয়্যিদ ওয়াজহি বিনুরিকা ইয়াওমা তাবইয়াদ্দু উজুহু আওলিয়ায়িকা।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! কেয়ামতের দিনে তোমার নূর দ্বারা আমার চেহারাকে উজ্জ্বল করো, যেদিন তোমার বন্ধুদের চেহারাকে উজ্জ্বল করবে।
  5. ডান হাত ধোয়ার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা আ’তিনী কিতাবি বিইয়ামীনী ওয়া হাছিবনি হিছাবাই ইয়াসীরা।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! কেয়ামতের দিনে আমার হিসাব সহজ করে দিও এবং আমার আমলনামা ডান হাতে দিও।
  6. বাম হাত ধোয়ার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা লা-তু’তিনী কিতাবী বিশিমালী ওয়ালা মিও অরায়ি জাহরি।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! কেয়ামতের ময়দানে আমার আমলনামা বাম হাতে দিও না এবং আমার পেছন দিক দিয়েও দিও না।
  7. মাথা মাসেহ করার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা আজিল্লানী তাহ্‌তা আরশিকা ইয়াওমা লা-যিল্লা ইল্লা যিল্লুকা।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! কেয়ামতের মাঠে যখন কোথাও কোন ছায়া থাকিবে না, তখন তখন তুমি দয়া করে তোমার আরশের নিচে ছায়া দান করবে।
  8. কান মাসেহ করার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা জয়াল্‌নী মিনাল্লাযীনা ইয়াসতামিযুনাল কাওলা ফাইয়াত্তাবিউনা আহসানাহু।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! এ কানের দ্বারা আমি যেন ভালো কথা শুনে তা পালন করতে পারি সেই তৌফিক তুমি আমাকে দাও।
  9. ঘাড় মাসেহ করার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা আ’তিক রাকাবাতি মিনান্নার।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! দোজখের আগুন থেকে আমার গর্দান মুক্ত কর।
  10. ডান পা ধোয়ার সময় পড়িবে-
    আল্লাহুম্মা ছাব্বিত কাদামী আলাচ্ছিরা-তি ইয়াওমা তাযিল্লু ফীহি আকদামুন ওয়াল্লাহুম্মা ছাব্বিত কাদামী আলাচ্ছিরাতিল মুসতাকিম।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! যে দিন পুলসিরাতের উপর হতে পা ফসকে দোজখে নিক্ষিপ্ত হবে যেই দিন পুলসিরাতের উপর আমার পাদ্বয় তুমি সুদৃঢ় রেখ এবং দুনিয়াতে সরল সঠিক পথের উপর সুদৃঢ় রেখ।
  11. বাম পা ধোয়ার সময় পড়িবে-
  12. আল্লাহুম্মা জয়াল যাম্বী মাগফুরাওঁ ওয়া সায়ী মাশকূরাওঁ ওয়াতিজারাতি লান তাবূরা।
    অর্থাৎ- হে আল্লাহ! আমার পাপসমূহ ক্ষমা করে দাও, আমার সকল চেষ্টা সফল করে দাও। আমার কোন কাজ-কর্ম যেন ক্ষতিগ্রস্থ না হয়, আমার সকল ব্যবসা-বানিজ্য যেন লাভজনক হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *