সানাই

অধরা

অধরা মাধুরী ধরা পড়িয়াছে           এ মোর ছন্দবন্ধনে। বলাকাপাঁতির পিছিয়ে-পড়া ও পাখি,           বাসা সুদূরের বনের প্রাঙ্গণে।      গত ফসলের পলাশের রাঙিমারে           ধরে রাখে ওর পাখা,      ঝরা শিরীষের পেলব আভাস           ওর কাকলিতে মাখা। শুনে যাও বিদেশিনী,      তোমার...

অনাবৃষ্টি

প্রাণের সাধন কবে নিবেদন                 করেছি চরণতলে, অভিষেক তার হল না তোমার                 করুণ নয়নজলে।      রসের বাদল নামিল না কেন                 তাপের দিনে।      ঝরে গেল ফুল মালা পরাই নি                 তোমার গলে।      মনে হয়েছিল, দেখেছি করুণা                ...

অবসান

জানি দিন অবসান হবে,     জানি তবু কিছু বাকি রবে।         রজনীতে ঘুমহারা পাখি             এক সুরে গাহিবে একাকী-                 যে শুনিবে, সে রহিবে জাগি         সে জানিবে, তারি নীড়হারা             স্বপন খুঁজিছে সেই তারা                 যেথা প্রাণ হয়েছে বিবাগী। কিছু...

আহ্বান

    জ্বেলে দিয়ে যাও সন্ধ্যাপ্রদীপ             বিজন ঘরের কোণে।     নামিল শ্রাবণ, কালো ছায়া তার             ঘনাইল বনে বনে। বিস্ময় আনো ব্যগ্র হিয়ার পরশ-প্রতীক্ষায়     সজল পবনে নীল বসনের চঞ্চল কিনারায়,             দুয়ার-বাহির হতে আজি ক্ষণে ক্ষণে তব কবরীর কবরীমালার...

উদ্‌বৃত্ত

তব দক্ষিণ হাতের পরশ               কর নি সমর্পণ। লেকে আর মোছে তব আলো ছায়া                  ভাবনার প্রাঙ্গণে         খনে খনে আলিপন।     বৈশাখে কৃশ নদী         পূর্ণ স্রোতের প্রসাদ না দিল যদি             শুধু কুণ্ঠিত বিশীর্ণ ধারা                 তীরের প্রান্তে...

কৃপণা

        এসেছিনু দ্বারে ঘনবর্ষণ রাতে,     প্রদীপ নিবালে কেন অঞ্চলাঘাতে। কালো ছায়াখানি মনে পড়ে গেল আঁকা,     বিমুখ মুখের ছবি অন্তরে ঢাকা,         কলঙ্করেখা যেন     চিরদিন চাঁদ বহি চলে সাথে সাথে।     কেন বাধা হল দিতে মাধুরীর কণা         হায় হায়, হে কৃপণ্য।...

গান

    যে ছিল আমার স্বপনচারিণী এতদিন তারে বুঝিতে পারি নি,         দিন চলে গেছে খুঁজিতে।     শুভক্ষণে কাছে ডাকিলে,         লজ্জা আমার ঢাকিলে,             তোমারে পেরেছি বুঝিতে।         কে মোরে ফিরাবে অনাদরে,             কে মোরে ডাকিবে কাচে,         কাহার প্রেমের বেদনার...

গানের খেয়া

যে গান আমি গাই        জানি নে সে            কার উদ্দেশে। যবে জাগে মনে        অকারণে            চপল হাওয়া        সুর যায় ভেসে            কার উদ্দেশে। ঐ মুখে চেয়ে দেখি,        জানি নে তুমিই সে কি অতীত কালের মুরতি এসেছ            নতুন কালের বেশে।        কভূ জাগে মনে,...

গানের জাল

দৈবে তুমি         কখন নেশায় পেয়ে আপন-মনে         যাও চলে গান গেয়ে। যে আকাশের সুরের লেখা লেখ         বুঝি না তা, কেবল রহি চেয়ে।     হৃদয় আমার অদৃশ্যে যায় চলে,     প্রতিদিনের ঠিকঠিকানা ভোলে-     মৌমাছিরা আপনা হারায় যেন         গন্ধের পথ বেয়ে।         গানের টানা...

ছায়াছবি

আমার প্রিয়ার সচল ছায়াছরি                সজল নীলাকাশে।      আমার প্রিয়া মেঘের ফাঁকে ফাঁকে           সন্ধ্যাতারায় লুকিয়ে দেখে কাকে, সন্ধ্যাদীপের লুপ্ত আলো স্মরণে তার ভাসে।           বারিঝরা বনের গন্ধ নিয়া পরশহারা বরণমালা গাঁথে আমার প্রিয়া।      আমার প্রিয়া ঘন...

দ্বিধা

    এসেছিলু তবু আস নাই, তাই                     জানায়ে গেলে     সমুখের পথে পলাতকা পদ-পতন ফেলে।                 তোমার সে উদাসীনতা         উপহাসভরে জানালো কি মোর দীনতা। সে কি ছল-করা অবহেলা, জানি না সে–           চপল চরণ সত্য কি ঘাসে ঘাসে                  গেল...

নতুন রঙ

এ ধূসর জীবনের গোধূলী,            ক্ষীণ তার উদাসীন স্মৃতি, মুছে-আসা সেই ম্লান ছবিতে            রঙ দেয় গুঞ্জনগীতি। ফাগুনের চম্পকপরাগে            সেই রঙ জাগে, ঘুমভাঙা কোকিলের কূজনে            সেই রঙ লাগে, সেই রঙ পিয়ালের ছায়াতে         ঢেলে দেয় পুর্ণিমাতিথি। এই ছবি...

পূর্ণা

     তুমি গো পঞ্চদশী শুক্লা নিশার অভিসারপথে      চরম তিথির শশী। স্মিত স্বপ্নের আভাস লেগেছে      বিহ্বল তব রাতে। ক্বচিৎ চকিত বিহগকাকলি তব যৌবনে উঠিছে আকুলি নব আষাঢ়ের কেতকীগন্ধ-      শিথিলিত নিদ্রাতে।      যেন অশ্রুত বনমর্মর তোমার বক্ষে কাঁপে থরথর।      অগোচর চেতনার...

বাণীহারা

ওগো মোর     নাহি যে বাণী     আকাশে হৃদয় শুধু বিছাতে জানি।         আমি অমাবিভাবরী আলোকহারা             মেলিয়া তারা         চাহি নিঃশেষ পথপানে             নিষ্ফল আশা নিয়ে প্রাণে।         বহুদূরে বাজে তব বাঁশি,             সকরুণ সুর আসে ভাসি                 বিহ্বল...

বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল

বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান, আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান॥ মেঘের ছায়ায় অন্ধকারে রেখেছি ঢেকে তারে এই-যে আমার সুরের ক্ষেতের প্রথম সোনার ধান॥ আজ এনে দিলে, হয়তো দিবে না কাল-- রিক্ত হবে যে তোমার ফুলের ডাল। এ গান আমার শ্রাবণে শ্রাবণে তব বিস্মৃতিস্রোতের প্লাবনে ফিরিয়া...

বিদায়

বসন্ত সে যায় তো হেসে, যাবার কালে      শেষ কুসুমের পরশ রাখে বনের ভালে।                তেমনি তুমি যাবে জানি,           ঝলক দেবে হাসিখানি, অলক হতে কসবে অশোক নাচের তালে। ভাসান-খেলার তরীখানি চলবে বেয়ে,      একলা ঘাটে রইব চেয়ে।           অস্তরবি তোমার পালে               ...

মরিয়া

        মেঘ কেটে গেল             আজি এ সকাল বেলায়।         হাসিমুখে এসো             অলস দিনেরি খেলায়।     আশানিরাশার সঞ্চয় যত             সুখদুঃখের ঘেরে ভরে ছিল যাহা সার্থক আর             নিষ্ফল প্রণয়েরে, অকূলের পানে দিব তা ভাসায়ে             ভাঁটার গাঙের ভেলায়।...

মানসী

    মনে নেই, বুঝি হবে অগ্রহান মাস,             তখন তরণীবাস                 ছিল মোর পদ্মাবক্ষ-‘পরে।             বামে বালুচরে     সর্বশূণ্য শুভ্রতার না পাই অবধি।             ধারে ধারে নদী কলরবধারা দিয়ে নিঃশব্দেরে করিছে মিনতি।     ওপারেতে আকাশের প্রশান্ত প্রণতি...

মুক্তপথে

বাঁকাও ভুরু দ্বারে আগল দিয়া,           চক্ষু করো রাঙা, ঐ আসে মোর জাত-খোয়ানো প্রিয়া           ভদ্র-নিয়ম-ভাঙা। আসন পাবার কাঙাল ও নয় তো           আচার-মানা ঘরে– আমি ওকে বসাব হয়তো           ময়লা কাঁথার ‘পরে। সাবধানে রয় বাজার-দরের খোঁজে           সাধু...

শেষ কথা

রাগ কর নাই কর, শেষ কথা এসেছি বলিতে     তোমার প্রদীপ আছে, নাইকো সলিতে।         শিল্প তার মূল্যবান, দেয় না সে আলো,     চোখেতে জড়ায় লোভ, মনেতে ঘনায় ছায়া কালো অবসাদে। তবু তারে প্রাণপণে রাখি যতনেই,         ছেড়ে যাব তার পথ নেই। অন্দকারে অন্ধদৃষ্টি নানাবিধ স্বপ্ন দিয়ে...