গীতহীন

চলে গেছে মোর বীণাপাণি কতদিন হল সে না জানি । কী জানি কী অনাদরে বিস্মৃত ধূলির পরে ফেলে রেখে গেছে… Read more গীতহীন

তপোবন

মনশ্চক্ষে হেরি যবে ভারত প্রাচীন পুরব পশ্চিম হতে উত্তর দক্ষিণ মহারণ্য দেখা দেয় মহাচ্ছায়া লয়ে। রাজা রাজ্য-অভিমান রাখি লোকালয়ে অশ্বরথ… Read more তপোবন

তৃণ

হে বন্ধু, প্রসন্ন হও, দূর করো ক্রোধ। তোমাদের সাথে মোর বৃথা এ বিরোধ। আমি চলিবারে চাই যেই পথ বাহি সেথা… Read more তৃণ

দিদি

নদীতীরে মাটি কাটে সাজাইতে পাঁজা পশ্চিমি মজুর। তাহাদেরি ছোটো মেয়ে ঘাটে করে আনাগোনা; কত ঘষামাজা ঘটি বাটি থালা লয়ে, আসে… Read more দিদি

দুই উপমা

যে নদী হারায়ে স্রোত চলিতে না পারে সহস্র শৈবালদাম বাঁধে আসি তারে; যে জাতি জীবনহারা অচল অসাড় পদে পদে বাঁধে… Read more দুই উপমা

দুই বন্ধু

মূঢ় পশু ভাষাহীন নির্বাক্‌হৃদয়, তার সাথে মানবের কোথা পরিচয়! কোন্‌ আদি স্বর্গলোকে সৃষ্টির প্রভাতে হৃদয়ে হৃদয়ে যেন নিত্য যাতায়াতে পথচিহ্ন… Read more দুই বন্ধু

দুর্লভ জন্ম

একদিন এই দেখা হয়ে যাবে শেষ, পড়িবে নয়ন-’পরে অন্তিম নিমেষ। পরদিনে এইমত পোহাইবে রাত, জাগ্রত জগৎ-’পরে জাগিবে প্রভাত। কলরবে চলিবেক… Read more দুর্লভ জন্ম

দেবতার বিদায়

দেবতামন্দিরমাঝে ভকত প্রবীণ জপিতেছে জপমালা বসি নিশিদিন। হেনকালে সন্ধ্যাবেলা ধুলিমাখা দেহে বস্ত্রহীন জীর্ণ দীন পশিল সে গেহে। কহিল কাতরকণ্ঠে “গৃহ… Read more দেবতার বিদায়

ধরাতল

ছোটো কথা, ছোটো গীত, আজি মনে আসে। চোখে পড়ে যাহা-কিছু হেরি চারি পাশে। আমি যেন চলিয়াছি বাহিয়া তরণী, কূলে কূলে… Read more ধরাতল

ধ্যান

যত ভালোবাসি, যত হেরি বড়ো ক’রে তত, প্রিয়তমে, আমি সত্য হেরি তোরে। যত অল্প করি তোরে, তত অল্প জানি— কখনো… Read more ধ্যান

নদীযাত্রা

চলেছে তরণী মোর শান্ত বায়ুভরে। প্রভাতের শুভ্র মেঘ দিগন্তশিয়রে। বরষার ভরা নদী তৃপ্ত শিশুপ্রায় নিস্তরঙ্গ পুষ্ট-অঙ্গ নিঃশব্দে ঘুমায়। দুই কূলে… Read more নদীযাত্রা

নারী

তুমি এ মনের সৃষ্টি, তাই মনোমাঝে এমন সহজে তব প্রতিমা বিরাজে। যখন তোমারে হেরি জগতের তীরে মনে হয় মন হতে… Read more নারী

পদ্মা

হে পদ্মা আমার, তোমায় আমায় দেখা শত শত বার। একদিন জনহীন তোমার পুলিনে, গোধূলির শুভলগ্নে হেমন্তের দিনে, সাক্ষী করি পশ্চিমের… Read more পদ্মা

পরবেশ

কে তুমি ফিরিছ পরি প্রভুদের সাজ। ছদ্মবেশে বাড়ে না কি চতুর্গুণ লাজ! পরবস্ত্র অঙ্গে তব হয়ে অধিষ্ঠান তোমারেই করিছে না… Read more পরবেশ

পরিচয়

একদিন দেখিলাম উলঙ্গ সে ছেলে ধুলি-’পরে বসে আছে পা-দুখানি মেলে। ঘাটে বসি মাটি ঢেলা লইয়া কুড়ায়ে দিদি মাজিতেছে ঘটি ঘুরায়ে… Read more পরিচয়

পুঁটু

চৈত্রের মধ্যাহ্নবেলা কাটিতে না চাহে। তৃষাতুরা বসুন্ধরা দিবসের দাহে। হেনকালে শুনিলাম বাহিরে কোথায় কে ডাকিল দূর হতে, “পুঁটুরানী, আয়।” জনশূন্য… Read more পুঁটু

পুণ্যের হিসাব

সাধু যবে স্বর্গে গেল, চিত্রগুপ্তে ডাকি কহিলেন, “আনো মোর পুণ্যের হিসাব।” চিত্রগুপ্ত খাতাখানি সম্মুখেতে রাখি দেখিতে লাগিল তার মুখের কী… Read more পুণ্যের হিসাব