চিত্রা

অন্তর্যামী

এ কী কৌতুক নিত্যনূতন ওগো কৌতুকময়ী , আমি যাহা কিছু চাহি বলিবারে বলিতে দিতেছ কই । অন্তরমাঝে বসি অহরহ মুখ হতে তুমি ভাষা কেড়ে লহ , মোর কথা লয়ে তুমি কথা কহ মিশায়ে আপন সুরে । কী বলিতে চাই সব ভুলে যাই , তুমি যা বলাও আমি বলি তাই , সংগীতস্রোতে কূল নাহি পাই , কোথা ভেসে যাই দূরে...

আবেদন

ভৃত্য । জয় হোক মহারানী । রাজরাজেশ্বরী , দীন ভৃত্যে করো দয়া । রানী । সভা ভঙ্গ করি সকলেই গেল চলি যথাযোগ্য কাজে আমার সেবকবৃন্দ বিশ্বরাজ্যমাঝে , মোর আজ্ঞা মোর মান লয়ে শীর্ষদেশে জয়শঙ্খ সগর্বে বাজায়ে । সভাশেষে তুমি এলে নিশান্তের শশাঙ্ক-সমান ভক্ত ভৃত্য মোর । কী প্রার্থনা ?...

উর্বশী

নহ মাতা , নহ কন্যা , নহ বধূ , সুন্দরী রূপসী , হে নন্দনবাসিনী উর্বশী! গোষ্ঠে যবে সন্ধ্যা নামে শ্রান্ত দেহে স্বর্ণাঞ্চল টানি তুমি কোনো গৃহপ্রান্তে নাহি জ্বাল সন্ধ্যাদীপখানি , দ্বিধায় জড়িত পদে কম্প্রবক্ষে নম্রনেত্রপাতে স্মিতহাস্যে নাহি চল সলজ্জিত বাসরশয্যাতে স্তব্ধ...

উৎসব

মোর অঙ্গে অঙ্গে যেন আজি বসন্ত-উদয় কত পত্রপুষ্পময় । যেন মধুপের মেলা গুঞ্জরিছে সারাবেলা , হেলাভরে করে খেলা অলস মলয় । ছায়া আলো অশ্রু হাসি নৃত্য গীত বীণা বাঁশি , যেন মোর অঙ্গে আসি বসন্ত-উদয় কত পত্রপুষ্পময় । তাই মনে হয় আমি পরম সুন্দর , আমি অমৃতনির্ঝর । সুখসিক্ত নেত্র মম...

এবার ফিরাও মোরে

সংসারে সবাই যবে সারাক্ষণ শত কর্মে রত , তুই শুধু ছিন্নবাধা পলাতক বালকের মতো মধ্যাহ্নে মাঠের মাঝে একাকী বিষণ্ন তরুচ্ছায়ে দূরবনগন্ধবহ মন্দগতি ক্লান্ত তপ্তবায়ে সারাদিন বাজাইলি বাঁশি । ওরে তুই ওঠ্‌ আজি ; আগুন লেগেছে কোথা ? কার শঙ্খ উঠিয়াছে বাজি জাগাতে জগৎ-জনে ? কোথা হতে...

গৃহশত্রু

আমি একাকিনী যবে চলি রাজপথে নব অভিসারসাজে , নিশীথে নীরব নিখিল ভুবন , না গাহে বিহগ , না চলে পবন , মৌন সকল পৌর ভবন সুপ্তনগরমাঝে — শুধু আমার নূপুর আমারি চরণে বিমরি বিমরি বাজে । অধীর মুখর শুনিয়া সে স্বর পদে পদে মরি লাজে । আমি চরণশব্দ শুনিব বলিয়া বসি বাতায়নকাছে — অনিমেষ...

চিত্রা

জগতের মাঝে কত বিচিত্র তুমি হে তুমি বিচিত্ররূপিণী । অযুত আলোকে ঝলসিছ নীল গগনে , আকুল পুলকে উলসিছ ফুলকাননে , দ্যুলোকে ভূলোকে বিলসিছ চলচরণে , তুমি চঞ্চলগামিনী । মুখর নূপুর বাজিছে সুদূর আকাশে , অলকগন্ধ উড়িছে মন্দ বাতাসে , মধুর নৃত্যে নিখিল চিত্তে বিকাশে কত মঞ্জুল রাগিণী ।...

জীবনদেবতা

ওহে অন্তরতম , মিটেছে কি তব সকল তিয়াষ আসি অন্তরে মম । দুঃখসুখের লক্ষ ধারায় পাত্র ভরিয়া দিয়েছি তোমায় , নিঠুর পীড়নে নিঙাড়ি বক্ষ দলিত দ্রাক্ষাসম । কত যে বরন কত যে গন্ধ কত যে রাগিণী কত যে ছন্দ গাঁথিয়া গাঁথিয়া করেছি বয়ন বাসরশয়ন তব — গলায়ে গলায়ে বাসনার সোনা প্রতিদিন আমি...

জ্যোৎস্নারাত্রে

শান্ত করো , শান্ত করো এ ক্ষুব্ধ হৃদয় হে নিস্তব্ধ পূর্ণিমাযামিনী । অতিশয় উদ্‌ভ্রান্ত বাসনা বক্ষে করিছে আঘাত বারম্বার , তুমি এসো স্নিগ্ধ অশ্রুপাত দগ্ধ বেদনার 'পরে । শুভ্র সুকোমল মোহভরা নিদ্রাভরা করপদ্মদল , আমার সর্বাঙ্গে মনে দাও বুলাইয়া বিভাবরী , সর্ব ব্যথা দাও ভুলাইয়া...

দিনশেষে

দিনশেষ হয়ে এল , আঁধারিল ধরণী , আর বেয়ে কাজ নাই তরণী । ‘ হ্যাঁগো এ কাদের দেশে বিদেশী নামিনু এসে ' তাহারে শুধানু হেসে যেমনি — অমনি কথা না বলি ভরা ঘট ছলছলি নতমুখে গেল চলি তরুণী । এ ঘাটে বাঁধিব মোর তরণী । নামিছে নীরব ছায়া ঘনবনশয়নে , এ দেশ লেগেছে ভালো নয়নে । স্থির জলে নাহি...

দুঃসময়

বিলম্বে এসেছ , রুদ্ধ এবে দ্বার , জনশূন্য পথ , রাত্রি অন্ধকার , গৃহহারা বায়ু করি হাহাকার ফিরিয়া মরে । তোমারে আজিকে ভুলিয়াছে সবে , শুধাইলে কেহ কথা নাহি কবে , এহেন নিশীথে আসিয়াছ তবে কী মনে করে । এ দুয়ারে মিছে হানিতেছ কর , ঝটিকার মাঝে ডুবে যায় স্বর , ক্ষীণ আশাখানি ত্রাসে...

দুরাকাঙ্ক্ষা

কেন নিবে গেল বাতি । আমি অধিক যতনে ঢেকেছিনু তারে জাগিয়া বাসররাতি , তাই নিবে গেল বাতি । কেন ঝরে গেল ফুল । আমি বক্ষে চাপিয়া ধরেছিনু তারে চিন্তিত ভয়াকুল , তাই ঝরে গেল ফুল । কেন মরে গেল নদী । আমি বাঁধ বাঁধি তারে চাহি ধরিবারে পাইবারে নিরবধি , তাই মরে গেল নদী । কেন ছিঁড়ে গেল...

ধূলি

অয়ি ধূলি , অয়ি তুচ্ছ , অয়ি দীনহীনা , সকলের নিম্নে থাক নীচতম জনে বক্ষে বাঁধিবার তরে ; সহি সর্ব ঘৃণা কারে নাহি কর ঘৃণা । গৈরিক বসনে হে ব্রতচারিণী তুমি সাজি উদাসীনা বিশ্বজনে পালিতেছ আপন ভবনে । নিজেরে গোপন করি , অয়ি বিমলিনা , সৌন্দর্য বিকশি তোল বিশ্বের নয়নে । বিস্তারিছ...

নগরসংগীত

কোথা গেল সেই মহান শান্ত নব নির্মল শ্যামলকান্ত উজ্জ্বলনীলবসনপ্রান্ত সুন্দর শুভ ধরণী । আকাশ আলোকপুলকপুঞ্জ , ছায়াসুশীতল নিভৃত কুঞ্জ , কোথা সে গভীর ভ্রমরগুঞ্জ , কোথা নিয়ে এল তরণী । ওই রে নগরী — জনতারণ্য , শত রাজপথ , গৃহ অগণ্য , কতই বিপণি , কতই পণ্য কত কোলাহলকাকলি । কত-না...

নববর্ষে

নিশি অবসানপ্রায় , ওই পুরাতন বর্ষ হয় গত! আমি আজি ধূলিতলে এ জীর্ণ জীবন করিলাম নত । বন্ধু হও , শত্রু হও , যেখানে যে কেহ রও , ক্ষমা করো আজিকার মতো পুরাতন বরষের সাথে পুরাতন অপরাধ যত । আজি বাঁধিতেছি বসি সংকল্প নূতন অন্তরে আমার , সংসারে ফিরিয়া গিয়া হয়তো কখন ভুলিব আবার । তখন...

নারীর দান

একদা প্রাতে কুঞ্জতলে অন্ধ বালিকা পত্রপুটে আনিয়া দিল পুষ্পমালিকা । কণ্ঠে পরি অশ্রুজল ভরিল নয়নে ; বক্ষে লয়ে চুমিনু তার স্নিগ্ধ বয়নে । কহিনু তারে ‘ অন্ধকারে দাঁড়ায়ে রমণী কী ধন তুমি করিছ দান না জান আপনি । পুষ্পসম অন্ধ তুমি অন্ধ বালিকা , দেখ নি নিজে মোহন কী যে তোমার মালিকা...

নীরব তন্ত্রী

‘ তোমার বীণায় সব তার বাজে , ওহে বীণকার , তারি মাঝে কেন নীরব কেবল একখানি তার । ' ভবনদীতীরে হৃদিমন্দিরে দেবতা বিরাজে , পূজা সমাপিয়া এসেছি ফিরিয়া আপনার কাজে । বিদায়ের ক্ষণে শুধাল পূজারি , ‘ দেবীরে কী দিলে ? তব জনমের শ্রেষ্ঠ কী ধন ছিল এ নিখিলে ?' কহিলাম আমি , সঁপিয়া এসেছি...

পূর্ণিমা

পড়িতেছিলাম গ্রন্থ বসিয়া একেলা সঙ্গীহীন প্রবাসের শূন্য সন্ধ্যাবেলা করিবারে পরিপূর্ণ । পণ্ডিতের লেখা সমালোচনার তত্ত্ব ; পড়ে হয় শেখা সৌন্দর্য কাহারে বলে — আছে কী কী বীজ কবিত্বকলায় ; শেলি , গেটে , কোল্‌রীজ কার কোন্‌ শ্রেণী । পড়ি পড়ি বহুক্ষণ তাপিয়া উঠিল শির , শ্রান্ত হল মন...

প্রস্তরমূর্তি

হে নির্বাক্‌ অচঞ্চল পাষাণসুন্দরী , দাঁড়ায়ে রয়েছ তুমি কত বর্ষ ধরি অনম্বরা অনাসক্তা চির-একাকিনী আপন সৌন্দর্যধ্যানে দিবসযামিনী তপস্যামগনা । সংসারের কোলাহল তোমারে আঘাত করে নিয়ত নিষ্ফল — জন্মমৃত্যু দুঃখসুখ অস্ত-অভ্যুদয় তরঙ্গিত চারি দিকে চরাচরময় , তুমি উদাসিনী । মহাকাল...

প্রেমের অভিষেক

তুমি মোরে করেছ সম্রাট । তুমি মোরে পরায়েছ গৌরবমুকুট । পুষ্পডোরে সাজায়েছ কণ্ঠ মোর ; তব রাজটিকা দীপিছে ললাটমাঝে মহিমার শিখা অহর্নিশি । আমার সকল দৈন্য-লাজ আমার ক্ষুদ্রতা যত ঢাকিয়াছ আজ তব রাজ-আস্তরণে । হৃদিশয্যাতল শুভ্র দুগ্ধফেননিভ কোমল শীতল তারি মাঝে বসায়েছ , সমস্ত জগৎ...