কোনো জাপানি কবিতার ইংরাজি অনুবাদ হইতে (বাতাসে অশথপাতা পড়িছে খসিয়া)

বাতাসে অশথপাতা পড়িছে খসিয়া, বাতাসেতে দেবদারু উঠিছে শ্বসিয়া। দিবসের পরে বসি রাত্রি মুদে আঁখি, নীড়েতে বসিয়া যেন পাহাড়ের পাখি। শ্রান্ত… Read more কোনো জাপানি কবিতার ইংরাজি অনুবাদ হইতে (বাতাসে অশথপাতা পড়িছে খসিয়া)

তারা ও আঁখি (কাল সন্ধ্যাকালে ধীরে সন্ধ্যার বাতাস)

কাল সন্ধ্যাকালে ধীরে সন্ধ্যার বাতাস বহিয়া আনিতেছিল ফুলের সুবাস। রাত্রি হ’ল, আঁধারের ঘনীভূত ছায়ে পাখিগুলি একে একে পড়িল ঘুমায়ে। প্রফুল্ল… Read more তারা ও আঁখি (কাল সন্ধ্যাকালে ধীরে সন্ধ্যার বাতাস)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১ (মধুর সূর্যের আলো, আকাশ বিমল)

মধুর সূর্যের আলো, আকাশ বিমল, সঘনে উঠিছে নাচি তরঙ্গ উজ্জ্বল। মধ্যাহ্নের স্বচ্ছ করে সাজিয়াছে থরে থরে ক্ষুদ্র নীল দ্বীপগুলি, শুভ্র… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১ (মধুর সূর্যের আলো, আকাশ বিমল)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১০ (কেমনে কী হল পারি নে বলিতে)

কেমনে কী হল পারি নে বলিতে, এইটুকু শুধু জানি– নবীন কিরণে ভাসিছে সে দিন প্রভাতের তনুখানি। বসন্ত তখনো কিশোর কুমার,… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১০ (কেমনে কী হল পারি নে বলিতে)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১১ (রবির কিরণ হতে আড়াল করিয়া রেখে)

রবির কিরণ হতে আড়াল করিয়া রেখে মনটি আমার আমি গোলাপে রাখিনু ঢেকে– সে বিছানা সুকোমল, বিমল নীহার চেয়ে, তারি মাঝে… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১১ (রবির কিরণ হতে আড়াল করিয়া রেখে)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১২ (দেখিনু যে এক আশার স্বপন)

দেখিনু যে এক আশার স্বপন শুধু তা স্বপন, স্বপনময়– স্বপন বই সে কিছুই নয়। অবশ হৃদয় অবসাদময় হারাইয়া সুখ শ্রান্ত… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১২ (দেখিনু যে এক আশার স্বপন)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১৩ (নহে নহে এ মনে মরণ)

নহে নহে এ মনে মরণ। সহসা এ প্রাণপূর্ণ নিশ্বাসবাতাস নীরবে করে যে পলায়ন, আলোতে ফুটায় আলো এই আঁখিতারা নিবে যায়… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ১৩ (নহে নহে এ মনে মরণ)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ২ (সারাদিন গিয়েছিনু বনে)

সারাদিন গিয়েছিনু বনে ফুলগুলি তুলেছি যতনে। প্রাতে মধুপানে রত মুগ্ধ মধুপের মতো গান গাহিয়াছি আনমনে। এখন চাহিয়া দেখি, হায়, ফুলগুলি… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ২ (সারাদিন গিয়েছিনু বনে)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৪ (প্রভাতে একটি দীর্ঘশ্বাস)

প্রভাতে একটি দীর্ঘশ্বাস একটি বিরল অশ্রুবারি ধীরে ওঠে, ধীরে ঝরে যায়, শুনিলে তোমার নাম আজ। কেবল একটুখানি লাজ– এই শুধু… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৪ (প্রভাতে একটি দীর্ঘশ্বাস)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৫ (গোলাপ হাসিয়া বলে, আগে বৃষ্টি যাক চলে)

১ গোলাপ হাসিয়া বলে, “আগে বৃষ্টি যাক চলে, দিক দেখা তরুণ তপন– তখন ফুটাব এ যৌবন।’ গেল মেঘ, এল উষা,… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৫ (গোলাপ হাসিয়া বলে, আগে বৃষ্টি যাক চলে)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৬ (হাসির সময় বড়ো নেই)

হাসির সময় বড়ো নেই, দু দণ্ডের তরে গান গাওয়া। নিমেষের মাঝে চুমো খেয়ে মুহূর্তে ফুরাবে চুমো খাওয়া। বেলা নাই শেষ… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৬ (হাসির সময় বড়ো নেই)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৮ (নিদাথের শেষ গোলাপ কুসুম)

নিদাথের শেষ গোলাপ কুসুম একা বন আলো করিয়া, রূপসী তাহার সহচরীগণ শুকায়ে পড়েছে ঝরিয়া। একাকিনী আহা, চারি দিকে তার কোনো… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৮ (নিদাথের শেষ গোলাপ কুসুম)

বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৯ (ওই আদরের নামে ডেকো সখা মোরে)

ওই আদরের নামে ডেকো সখা মোরে! ছেলেবেলা ওই নামে আমায় ডাকিত– তাড়াতাড়ি খেলাধুলা সব ত্যাগ করে অমনি যেতেম ছুটে, কোলে… Read more বিদেশী ফুলের গুচ্ছ – ৯ (ওই আদরের নামে ডেকো সখা মোরে)

বিসর্জন (যে তোরে বাসেরে ভালো, তারে ভালোবেসে বাছা)

যে তোরে বাসেরে ভালো, তারে ভালোবেসে বাছা, চিরকাল সুখে তুই রোস্‌। বিদায়! মোদের ঘরে রতন আছিলি তুই, এখন তাহারি তুই… Read more বিসর্জন (যে তোরে বাসেরে ভালো, তারে ভালোবেসে বাছা)

সম্মিলন (সেথায় কপোত-বধূ লতার আড়ালে)

সেথায় কপোত-বধূ লতার আড়ালে দিবানিশি গাহে শুধু প্রেমের বিলাপ। নবীন চাঁদের করে একটি হরিণী আমাদের গৃহদ্বারে আরামে ঘুমায়। তার শান্ত… Read more সম্মিলন (সেথায় কপোত-বধূ লতার আড়ালে)

সূর্য ও ফুল (মহীয়সী মহিমার আগ্নেয় কুসুম)

মহীয়সী মহিমার আগ্নেয় কুসুম সূর্য, ধায় লভিবারে বিশ্রামের ঘুম। ভাঙা এক ভিত্তি-‘পরে ফুল শুভ্রবাস, চারি দিকে শুভ্রদল করিয়া বিকাশ মাথা… Read more সূর্য ও ফুল (মহীয়সী মহিমার আগ্নেয় কুসুম)