ছি ছি, চোখের জলে ভেজাস নে

          ছি ছি,  চোখের জলে ভেজাস নে আর মাটি।
          এবার   কঠিন হয়ে থাক্‌-না ওরে, বক্ষোদুয়ার আঁটি—
              জোরে       বক্ষোদুয়ার আঁটি॥
          পরানটাকে গলিয়ে ফেলে   দিস নে, রে ভাই, পথে ঢেলে
                             মিথ্যে অকাজে—
          ওরে    নিয়ে তারে চলবি পারে কতই বাধা কাটি,
              পথের       কতই বাধা কাটি॥
          দেখলে ও তোর জলের ধারা   ঘরে পরে হাসবে যারা
                             তারা চার দিকে—
          তাদের      দ্বারেই গিয়ে কান্না জুড়িস,   যায় না কি বুক ফাটি,
              লাজে        যায় না কি বুক ফাটি?।
দিনের বেলা জগত্‍‌-মাঝে   সবাই যখন চলছে কাজে   আপন গরবে—
          তোরা  পথের ধারে ব্যথা নিয়ে করিস ঘাঁটাঘাঁটি—
                        কেবল   করিস ঘাঁটাঘাঁটি॥


স্বরবিতান ৪৬

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *