কবি

আমি যে বেশ সুখে আছি 
            অন্তত নই দুঃখে কৃশ , 
সে কথাটা পদ্যে লিখতে 
            লাগে একটু বিসদৃশ । 
সেই কারণে গভীর ভাবে 
            খুঁজে খুঁজে গভীর চিতে 
বেরিয়ে পড়ে গভীর ব্যথা 
            স্মৃতি কিম্বা বিস্মৃতিতে । 
কিন্তু সেটা এত সুদূর 
             এতই সেটা অধিক গভীর 
আছে কি না আছে তাহার 
            প্রমাণ দিতে হয় না কবির । 
মুখের হাসি থাকে মুখে , 
            দেহের পুষ্টি পোষে দেহ ,             
প্রাণের ব্যথা কোথায় থাকে                          
             জানে না সেই খবর কেহ । 
  
                        কাব্য প'ড়ে যেমন ভাব 
                                    কবি তেমন নয় গো । 
                        আঁধার ক'রে রাখে নি মুখ , 
                        দিবারাত্র ভাঙছে না বুক , 
                        গভীর দুঃখ ইত্যাদি সব 
                                    হাস্যমুখেই বয় গো । 
  
ভালোবাসে ভদ্রসভায় 
            ভদ্র পোশাক পরতে অঙ্গ , 
ভালোবাসে ফুল্ল মুখে 
            কইতে কথা লোকের সঙ্গ । 
বন্ধু যখন ঠাট্টা করে 
            মরে না সে অর্থ খুঁজে , 
ঠিক যে কোথায় হাসতে হবে 
            একেক সময় দিব্যি বুঝে । 
সামনে যখন অন্ন থাকে 
             থাকে না সে অন্যমনে , 
সঙ্গীদলের সাড়া পেলে 
            রয় না বসে ঘরের কোণে । 
বন্ধুরা কয় ‘ লোকটা রসিক' , 
            কয় কি তারা মিথ্যামিথ্যি ? 
শত্রুরা কয় ‘ লোকটা হাল্কা' , 
            কিছু কি তার নাইকো ভিত্তি ? 
  
                        কাব্য দেখে যেমন ভাব 
                                কবি তেমন নয় গো । 
                        চাঁদের পানে চক্ষু তুলে 
                        রয় না পড়ে নদীর কূলে , 
                          গভীর দুঃখ ইত্যাদি সব 
                                   মনের সুখেই বয় গো । 
  
সুখে আছি লিখতে গেলে 
             লোকে বলে , ‘ প্রাণটা ক্ষুদ্র ! 
আশাটা এর নয়কো বিরাট , 
            পিপাসা এর নয়কো রুদ্র । ' 
পাঠকদলে তুচ্ছ করে , 
            অনেক কথা বলে কঠোর— 
বলে , ‘ একটু হেসে - খেলেই 
            ভরে যায় এর মনের জঠর । ' 
কবিরে তাই ছন্দে বন্ধে 
            বানাতে হয় দুখের দলিল । 
মিথ্যা যদি হয় সে তবু 
            ফেলো পাঠক চোখের সলিল । 
তাহার পরে আশিস কোরো 
            রুদ্ধকণ্ঠে ক্ষুব্ধবুকে , 
কবি যেন আজন্মকাল 
           দুখের কাব্য লেখেন সুখে । 
  
                    কাব্য যেমন কবি যেন 
                           তেমন নাহি হয় গো । 
                     বুদ্ধি যেন একটু থাকে , 
                    স্নানাহারের নিয়ম রাখে , 
                    সহজ লোকের মতোই যেন 
                             সরল গদ্য কয় গো । 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *