বুলবুল (দ্বিতীয় খণ্ড)

বুলবুল (দ্বিতীয় খণ্ড) / নজরুল গীতি

অনেক ছিল বলার যদি সেদিন ভালোবাসতে

অনেক ছিল বলার, যদি সেদিন ভালোবাসতে। পথ ছিল গো চলার, যদি দু-দিন আগে আসতে॥ আজকে মহাসাগর-স্রোতে চলেছি দূর পারের পথে ঝরা পাতা হারায় যথা ‍ সে আঁধারে ভাসতে॥ গহন রাতি ডাকে আমায় এলে তুমি আজকে কাঁদিয়ে গেলে হায় গো আমার বিদায় বেলার সাঁঝকে। আসতে যদি হে অতিথি ছিল যখন শুক্লা তিথি...

আজও ফাল্গুনে বকুল কিংশুকের বনে

মঞ্জুভাষিণী আজও ফাল্গুনে বকুল কিংশুকের বনে কহে কোন কথা হৃদয় স্বপ্নে আনমনে মৃদু মর্মরে পথের পল্লবের সাথে গাহে কোন গীতি নিশীথে পানসে জ্যোৎস্নাতে খোঁজে কার স্মৃতি নীরস শুভ্র চন্দনে॥ গ্রহে চন্দ্রে কয়, সে কি গো মৃত্যুদ্বার খুলে হয়ে সৃষ্টি পার গিয়াছে অমৃতের কূলে কাঁদে কোন...

আধো রাতে যদি ঘুম ভেঙে যায়

আধো রাতে যদি ঘুম ভেঙে যায়, চাঁদ নেহারিয়া প্রিয় মোরে যদি মনে পড়ে, বাতায়ন বন্ধ করিয়া দিয়ো॥ সুরের ডুরিতে জপমালা সম তব নাম গাঁথা ছিল প্রিয়তম দুয়ারে ভিখারি গাহিলে সে গান তুমি ফিরে না চাহিয়ো॥ অভিশাপ দিয়ো, বকুল-কুঞ্জে যদি কুহু গেয়ে ওঠে, চরণে দলিয়ো সেই জুঁই গাছে আর যদি ফুল...

আনো গোলাপ-পানি, আনো আতরদানি গুলবাগে

আনো গোলাপ-পানি, আনো আতরদানি গুলবাগে সেহেলি গো কিছু ভালো নাহি লাগে॥ বেদুইন ছেলের বাঁশি কারে ডাকে কেঁদে কেঁদে অনুরাগে॥ মরুযাত্রীদের উটের সারি যেমন চাহে তৃষার বারি তেমনই মম পিয়াসি পরান যেন কার প্রেম-অমৃত বারি মাগে॥ চাঁদের পিয়ালাতে জোছনা-শিরাজি ঝরে যায় আমারই হৃদয় কেন গো...

আমার ভুবন কান পেতে রয় প্রিয়তম তব লাগিয়া

আমার ভুবন কান পেতে রয় প্রিয়তম তব লাগিয়া। দীপ নিভে যায়, সকলে ঘুমায়, মোর আঁখি রহে জাগিয়া প্রিয়তম তব লাগিয়া॥ তারারে শুধাই, ‘কত দেরি আর? কখন আসিবে বিরহী আমার?’ ওরা বলে, ‘হেরো পথ চেয়ে তার নয়ন উঠেছে রাঙিয়া’। প্রিয়তম তব লাগিয়া॥ ‘আসিতেছে সে কি মোর অভিসারে’ কাঁদিয়া শুধাই...

আমায় নহে গো ভালোবাস শুধু ভালোবাস মোর গান

আমায় নহে গো, ভালোবাস শুধু ভালোবাস মোর গান। বনের পাখিরে কে চিনে রাখে গান হলে অবসান। চাঁদেরে কে চায়, জোছনা সবাই যাচে গীত শেষে বীণা পড়ে থাকে ধূলি মাঝে; তুমি বুঝিবে না, আলো দিতে পোড়ে কত প্রদীপের প্রাণ। যে কাঁটা-লতার আঁখি-জল, হায়, ফুল হয়ে ওঠে ফুটে, ফুল নিয়ে তায় – দিয়েছ কি...

আমি আছি বলে দুখ পাও তুমি

আমি আছি বলে দুখ পাও তুমি, তাই আমি যাব চলে। এবার ঘুমাও প্রদীপের কাজ শেষ হয়ে গেছে জ্বলে॥ আর আসিবে না কোনো অশান্তি, আর আসিবে না ভয়ের ভ্রান্তি, আর ভাঙিবে না ঘুম নিশীথে গো, ‘জাগো প্রিয়া জাগো’ বলে॥ হয়তো আবার সুদূর শূন্যে আকাশে বাজিবে বাঁশি, গোপী-চন্দন-গন্ধ আসিবে বাতায়ন-পথে...

আমি চাঁদ নহি, চাঁদ নহি অভিশাপ

আমি চাঁদ নহি, চাঁদ নহি অভিশাপ। শূন্য গগনে আজও নিরাশায় আকাশে করি বিলাপ॥ শত জনমের অপূর্ণ সাধ লয়ে – (আমি) গগনে কাঁদি গো ভুবনের চাঁদ হয়ে, জোছনা হইয়া ঝরে গো আমার অশ্রু বিরহ-তাপ॥ কলঙ্ক হয়ে বুকে দোলে মোর তোমার স্মৃতির ছায়া, এত জোছনায় ঢাকিতে পারি নি তোমার মধুর মায়া কোন সে...

আমি চিরতরে দূরে চলে যাব

আমি চিরতরে দূরে চলে যাব, তবু আমারে দেব না ভুলিতে। (আমি) বাতাস হইয়া জড়াইব কেশ, বেণি যাবে যবে খুলিতে॥ তোমার সুরের নেশায় যখন ঝিমাবে আকাশ কাঁদিবে পবন রোদন হইয়া আসিব তখন তোমার বক্ষে ঝুরিতে॥ আসিবে তোমার পরমোৎসব কত প্রিয়জন কে জানে মনে পড়ে যাবে – কোন সে ভিখারি পায়নি ভিক্ষা...

আমি জানি তব মন আমি বুঝি তব ভাষা

আমি জানি তব মন আমি বুঝি তব ভাষা। তব কঠিন হিয়ার তলে জাগে কী গভীর ভালবাসা॥ ওগো উদাসীন! আমি জানি তব ব্যথা, আহত পাখির বুকে বাণ বিঁধে কোথা, কোন অভিমানে ভুলিয়াছ তুমি ভালবাসিবার আশা॥ তুমি কেন হানো অবহেলা অকারণে আপনাকে, প্রিয়া, যে হৃদয়ে বিষ থাকে – সেই হৃদয়েই অমৃত থাকে। তব...

আমি নহি বিদেশিনি

আমি নহি বিদেশিনি। (ওই) ঝিলের ঝিনুক, বিলের শালুক ছিল মোর সঙ্গিনী॥ ওই বাঁধা-ঘাট, ওই বালুচর, মাটির প্রদীপ, ওই মেটে ঘর চেনে মোরে ওই তুলসীতলার নববধূ ননদিনি॥ ‘বউ কথা কও’ পাখি– বাদলা নিশীথে মনের নিভৃতে আজও যায় মোরে ডাকি। এত কালো চোখ এলোকেশ-ভার এত শ্যাম-মেঘ আছে কোথা আর (ওই)...

আমি পুরব দেশের পুরনারী

আমি পুরব দেশের পুরনারী গাগরি ভরিয়া এনেছি গো অমৃত-বারি। পদ্মাকূলের আমি পদ্মিনী বঁধু গো, এনেছি শাপলা পদ্মের মধু গো ঘন বনছায়ার শ্যামলী মায়ায় শান্তি আনিয়াছি ভরি হেমঝারি॥ আমি শঙ্খনগর হতে আনিয়াছি শাঁখা, অভয়শঙ্খ ঝিল ছেনে এনেছি সুনীল কাজল গো বিল ছেনে এনেছি চন্দনপঙ্ক। এনেছি শত...

আমি সন্ধ্যামালতী বনছায়া অঞ্চলে

আমি সন্ধ্যামালতী বনছায়া অঞ্চলে লুকাইয়া রই ঘন পল্লব-তলে॥ বিহগের গীতি ভ্রমরের গুঞ্জন নীরব হয় যখন আমি চাঁদেরে তখন পূজা করি আঁখিজলে॥ আমি লুকাইয়া কাঁদি বনের শকুন্তলা, মনের কথা এ জীবনে হল না বলা। গভীর নিশীথে বন-ঝিল্লির সুরে ডাকি দূর বন্ধুরে আমি ঝরে পড়ি যবে প্রভাতে সবার...

আর অনুনয় করিবে না কেউ কথা কহিবার তরে

আর অনুনয় করিবে না কেউ কথা কহিবার তরে। আর দেখিবে না স্বপন রাতে গো কেহ কাঁদে হাত ধরে। তব মুখ ঘিরে আর মোর দু-নয়ন ভ্রমরের মতো করিবে না জ্বালাতন তব পথ আর পিছল হবে না আমার অশ্রু ঝরে॥ তোমার ভুবনে পড়িবে না আর কোনোদিন ছায়া মম তোমার পূর্ণচাঁদের তিথিতে আসিব না রাহু-সম। আর শুনিবে...

উজান বাওয়ার গান গো এবার

উজান বাওয়ার গান গো এবার, গাসনে ভাটিয়ালি, আর গাসনে ভাটিয়ালি। নতুন আশার চাঁদ উঠেছে কুমড়ো জালির ফালি যেন কুমড়ো জালির ফালি॥ ‍বান এসেছে, বাঁধ ভেঙেছে, নায়ে দোলা লাগে ; আড় বাঁশিতে তান ছেড়ে তুই দাঁড় বেয়ে চল আগে ; দেখ জোয়ার-জলে ডুবে গেছে চরের চোরাবালি॥ কালো বউ-এর চোখ যেন, দেখ...

এ কূল ভাঙে ও কূল গড়ে এই তো নদীর খেলা

এ কূল ভাঙে ও কূল গড়ে, এই তো নদীর খেলা (রে ভাই) এই তো বিধির খেলা। সকাল বেলার আমির রে ভাই ফকির সন্ধ্যাবেলা॥ সেই নদীর ধারে কোন ভরসায় (ওরে বেভুল) বাঁধলি বাসা সুখের আশায়, যখন ধরল ভাঙন পেলিনে তুই পারে যাবার ভেলা॥ এই দেহ ভেঙে হয় রে মাটি, মাটিতে হয় দেহ, যে কুমোর গড়ে সেই দেহ –...

এই বিশ্বে আমার সবাই চেনা

এই বিশ্বে আমার সবাই চেনা, কেউ অচেনা নাই যারে দেখি হয় মনে সেই বন্ধু প্রিয় ভাই কেউ অচেনা নাই॥ কোন সে লোকে, নাই তা মনে চেনা ছিল সবার সনে দেখে এদের প্রাণ জুড়িয়ে যায় রে আমার তাই। কেউ অচেনা নাই॥ চোখ যারে কয় ‘চিনতে নারি’ প্রাণ কেন রে কাঁদে (তারেই) জড়িয়ে ধরতে চায় এই বুক (যে)...

এবার যখন উঠিবে সন্ধ্যাতারা – সাঁঝ আকাশে

এবার যখন উঠিবে সন্ধ্যাতারা – সাঁঝ আকাশে দেখতে পাবে দুটি নতুন তারা – তাহার পাশে॥ চেয়ে দেখো ভালো করে কার দুটি চোখ যেন মরে তারা হয়ে ধরার পানে চাহে তোমার আঁখি দেখার আশে॥ যে দুটি চোখ নিত্য লোকের মাঝে তোমায় দিত লাজ পড়বে মনে গো – সেই দুটি চোখ চিরতরে এই পৃথিবী হতে – হারিয়ে...

ওগো সুন্দর তুমি আসিবে বলিয়া বনপথে পড়ে ঝরি

ওগো সুন্দর তুমি আসিবে বলিয়া বনপথে পড়ে ঝরি রাঙা অশোকের মঞ্জরী হাসে বনদেবী বেণিতে জড়ায়ে মালতীর বল্লরি, নব কিশলয় পরি। কুমুদি কালিকা ঈষৎ হেলিয়া, চাঁদেরে নেহারি হাসে মুচকিয়া মহুয়ার বনে ভ্রমর ভ্রমরী ফিরিতেছে গুঞ্জরি॥ যাহা কিছু হেরি ভালো লাগে আজ লুকাইতে নারি হাসি, কাজ করি আর...

ওগো প্রিয়, তব গান

ওগো প্রিয়, তব গান! আকাশ গাঙের জোয়ারে উজান বহিয়া যায়। মোর কথাগুলি বুকের দুয়ারে –পথ খুঁজে নাহি পায়। ওগো দখিনা পবন, ফুলের সুরভি বহো ওরই সাথে মোর না-বলা বাণী লহো, ওগো মেঘ, তুমি মোর হয়ে গিয়ে কহো, বন্দিনী গিরি ঝরনা পাষাণ-তলে যে কথা কহিতে চায়॥ ওরে ও সুরমা, পদ্মা, কর্ণফুলি,...