সিন্ধু-হিন্দোল (১৯২৭)

অ-নামিকা

     তোমারে বন্দনা করি       স্বপ্ন-সহচরী      লো আমার অনাগত প্রিয়া,    আমার পাওয়ার বুকে না-পাওয়ার তৃষ্ণা-জাগানিয়া!       তোমারে বন্দনা করি….      হে আমার মানস-রঙ্গিণী,    অনন্ত-যৌবনা বালা, চিরন্তন বাসনা-সঙ্গিনী!       তোমারে বন্দনা করি….    নাম-নাহি-জানা ওগো...

অতল পথের যাত্রী

অতল পথের যাত্রী –দূর প্রান্তর গিরি অজানার মাঝে জানারে খুঁজিয়া ফিরি হৃদয়ে হৃদয়ে বেদনার শতদল ঘিরিয়া রেখেছে অজানার পদতল। পথের পথে ফিরি, সাথে ফেরে দিবা নিশা, কোথা তাঁর পথ – খুঁজে নাহি মেলে দিশা। কাঁদিয়া বৃথাই আমার নয়নজল সাগর হইয়া – করিতেছে টলমল। সে সায়রে দুলে আমার...

অভিযান

অভিযান নতুন পথের যাত্রা পথিক চালাও অভিযান! উচ্চকণ্ঠে উচ্চারো আজ – ‘মানুষ মহীয়ান!’ চারদিকে আজ ভীরুর মেলা, খেলবি কে আয় নতুন খেলা? জোয়ার জলে ভাসিয়ে ভেলা বাইবি কে উজান? পাতাল ফেড়ে চলবি মাতাল স্বর্গে দিবি টান॥ সমর-সাজের নাই রে সময় বেরিয়ে তোরা আয়, আজ বিপদের পরশ নেব নাঙ্গা...

উন্মনা

উন্মনা ওগো আজ কেন মন উদাস এমন কাঁদছে পুবের হাওয়ার পারা। কে যেন মোর নেই গো কাছে কোন প্রিয়-মুখ আজকে হারা॥ দিকে দিকে বিবাগি মন খুঁজে ফেরে কোন প্রিয়জন। কোথায় সে মোর মনের মতন বুকের রতন নয়নতারা॥ ঘর-দুয়ার আজ বাউল যেন শীতল উদাস মাঠের মতো, ঝরছে গাছে সবুজ পাতা আমার মনের – বনের...

গোপন-প্রিয়া

   পাইনি ব’লে আজো তোমায় বাসছি ভালো, রাণি,    মধ্যে সাগর, এ-পার ও-পার করছি কানাকানি!      আমি এ-পার, তুমি ও-পার,      মধ্যে কাঁদে বাধার পাথার    ও-পার হ’তে ছায়া-তরু দাও তুমি হাত্‌ছানি,    আমি মরু, পাইনে তোমার ছায়ার ছোঁওয়াখানি।        নাম-শোনা দুই বন্ধু মোরা, হয়নি...

চাঁদনিরাতে

চাঁদনিরাতে কোদালে মেঘের মউজ উঠেছে গগনের নীল গাঙে, হাবুডুবু খায় তারা-বুদ্‌বুদ, জোছনা সোনায় রাঙে। তৃতীয় চাঁদের ‘শাম্পানে’চড়ি চলিছে আকাশ-প্রিয়া, আকাশ দরিয়া উতলা হল গো পুতলায় বুকে নিয়া। তৃতীয়া চাঁদের বাকি ‘তেরো কলা’আবছা কালোতে আঁকা, নীলিম প্রিয়ার নীলা ‘গুল রুখ’ অবগুণ্ঠনে...

দারিদ্র্য

হে দারিদ্র্য, তুমি মোরে করেছ মহান্‌। তুমি মোরে দানিয়াছ খ্রীষ্টের সম্মান কন্টক-মুকুট শোভা।-দিয়াছ, তাপস, অসঙ্কোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহস; উদ্ধত উলঙ্গ দৃষ্টি, বাণী ক্ষুরধার, বীণা মোর শাপে তব হ’ল তরবার! দুঃসহ দাহনে তব হে দর্পী তাপস, অম্লান স্বর্ণেরে মোর করিলে বিরস, অকালে...

দ্বারে বাজে ঝঞ্ঝার জিঞ্জির

দ্বারে বাজে ঝঞ্ঝার জিঞ্জির দ্বারে বাজে ঝঞ্ঝার জিঞ্জির, খোলো দ্বার ওঠো ওঠো বীর! নিদাঘের রৌদ্র খর কন্ঠে শোনে প্রদীপ্ত আহ্বান— জয় অভিনব যৌবন-অভিযান!... শ্রান্ত গত বরষের বিশীর্ণ শর্বরী স্থলিত মন্থর পদে দূরে যায় সরি বিরাটের চক্রনেমিতলে। চম্পমালা দোলাইয়া গলে আলোক-তাঞ্জামে...

ফাল্গুনী

   সখি পাতিসনে শিলাতলে পদ্মপাতা,    সখি দিসনে গোলাব-ছিটে খাস্‌ লো মাথা!     যার অন্তরে ক্রন্দন      করে হৃদি মন্থন      তারে হরি-চন্দন        কমলী মালা-    সখি দিসনে লো দিসনে লো, বড় সে জ্বালা!       বল কেমনে নিবাই সখি বুকের আগুন!    এল খুন-মাখা তৃণ নিয়ে খু’নেরা ফাগুন!...

বধূ-বরণ

বধূ-বরণ এতদিন ছিলে ভুবনের তুমি আজ ধরা দিলে ভবনে, নেমে এলে আজ ধরার ধুলাতে ছিলে এতদিন স্বপনে। শুধু শোভাময়ী ছিলে এতদিন কবির মানসে কলিকা নলিন, আজ পরশিলে চিত্ত-পুলিন বিদায়-গোধূলি লগনে। উষার ললাট-সিন্দূর-টিপ সিথিঁতে উড়াল পবনে। প্রভাতের উষা কুমারী, সেজেছ সন্ধ্যায় বধূ উষসী,...

বাসন্তী

বাসন্তী কুহেলির দোলায় চড়ে এল ওই কে এল রে? মকরের কেতন ওড়ে শিমুলের হিঙুল বনে। পলাশের গেলাস-দোলা কাননের রংমহলা, ডালিমের ডাল উতলা লালিমার আলিঙ্গনে॥ না যেতে শীত-কুহেলি ফাগুনের ফুল-সেহেলি এল কি? রক্ত-চেলি করেছে বন উজালা। ভুলালি মন ভুলালি, ওলো ও শ্যাম-দুলালি, তমালে ঢাললি...

বিদায়-স্মরণে

   পথের দেখা এ নহে গো বন্ধু      এ নহে পথের আলাপন।    এ নহে সহসা পথ-চলা শেষে      শুধু হাতে হাতে পরশন।।    নিমেষে নিমেষে নব পরিচয়ে    হ’লে পরিচিত মোদের হৃদয়ে,    আসনি বিজয়ী-এলে সখা হ’য়ে,      হেসে হ’রে নিলে প্রাণ-মন।।    রাজাসনে বসি’ হওনি ক’ রাজা,      রাজা হ’লে বসি,...

মঙ্গলাচরণ

মঙ্গলাচরণ রঙনের রঙে রাঙা হয়ে এল শীতের কুহেলি-রাতি, আমের বউলে বাউল হইয়া কোয়েলা খুঁজিছে সাথি। সাথে বসন্ত-সেনা আগে অজানার ঘেরা-টোপে তব চিরজনমের চেনা । পলাশ ফুলের পেয়ালা ভরিয়া পুরিয়া উঠেছে মধু, তব অন্তরে সঞ্চরে আজ সৃজন-দিনের বধূ – উঠিছে লক্ষ্মী ওই তোমার ক্ষুধার...

মাধবী-প্রলাপ

মাধবী-প্রলাপ আজ লালসা-আলস-মদে বিবশা রতি শুয়ে অপরাজিতায় ধনি স্মরিছে পতি। তার    নিধুবন-উন্মন          ঠোঁটে কাঁপে চুম্বন,          বুকে পীন যৌবন                   উঠিছে ফুঁড়ি, মুখে কাম-কন্ঠক ব্রণ মহুয়া-কুঁড়ি!    করে বসন্ত বনভূমি সুরত কেলি, পাশে কাম-যাতনায় কাঁপে মালতী...

রাখিবন্ধন

রাখিবন্ধন সই পাতাল কি শরতে আজিকে স্নিগ্ধ আকাশ ধরণি? নীলিমা বাহিয়া সওগাত নিয়া নামিছে মেঘের তরণি! অলকার পানে বলাকা ছুটিছে মেঘ-দূত-মন মোহিয়া চঞ্চুতে রাঙা কলমির কুঁড়ি – মরতের ভেট বহিয়া। সখীর গাঁয়ের সেঁউতি-বোঁটার ফিরোজায় রেঙে পেশোয়াজ আশমানি আর মৃন্ময়ী সখী মিশিয়াছে মেঠো...

সিন্ধু (তৃতীয় তরঙ্গ)

সিন্ধু (তৃতীয় তরঙ্গ) হে ক্ষুধিত বন্ধু মোর, তৃষিত জলধি, এত জল বুকে তব, তবু নাহি তৃষার অবধি! এত নদী উপনদী তব পদে করে আত্মদান, বুভুক্ষু! তবু কিতব ভরলি না প্রাণ? দুরন্ত গো, মহাবাহু ওগো রাহু, তিন ভাগগ্রাসিয়াছ-এক ভাগ বাকী! সুরা নাই-পাত্র-হাতে কাঁপিতেছে সাকী! হে দুর্গম! খোলো...

সিন্ধু (দ্বিতীয় তরঙ্গ)

সিন্ধু (দ্বিতীয় তরঙ্গ) হে সিন্ধু, হে বন্ধু মোর হে মোর বিদ্রোহী! রহি’ রহি’ কোন্‌ বেদনায় তরঙ্গ-বিভঙ্গে মাতো উদ্দাম লীলায়! হে উন্মত্ত, কেন এ নর্তন? নিষ্ফল আক্রোশে কেন কর আস্ফালন বেলাভূমে পড়োআছাড়িয়া! সর্বগ্রাসী! গ্রাসিতেছ মৃত্যু-ক্ষুধা নিয়া ধরণীরেতিলে-তিলে! হে অস্থির!...

সিন্ধু (প্রথম তরঙ্গ)

সিন্ধু (প্রথম তরঙ্গ) হে সিন্ধু, হে বন্ধু মোর, হে চির-বিরহী, হে অতৃপ্ত! রহি’ রহি’ কোন্‌ বেদনায় উদ্বেলিয়া ওঠ তুমি কানায় কানায়? কি কথা শুনাতে চাও, কারে কি কহিবে বন্ধু তুমি? প্রতীক্ষায় চেয়ে আছে উর্ধ্বে নীলা নিম্নে বেলা-ভুমি! কথা কও, হে দুরন্ত, বল, তব বুকে কেন এত ঢেউ জাগে,...