পুবের হাওয়া

অবসর

অবসর লক্ষ্মী আমার! তোমার পথে আজকে অভিসার, অনেক দিনের পর পেয়েছি মুক্তি-রবিবার। দিনের পর দিন গিয়েছে হয়নি আমার ছুটি, বুকের ভিতর ব্যর্থ কাঁদন পড়ত বৃথাই লুটি বসে ঢুলত আঁখি দুটি! আহা আজ পেয়েছি মুক্ত হাওয়া লাগল চোখে তোমার চাওয়া তাইতো প্রাণে বাঁধ টুটেছে রুদ্ধ কবিতার। তোমার...

আশা

আশা মহান তুমি প্রিয় এই কথাটির গৌরবে মোর চিত্ত ভরে দিয়ো। অনেক আশায় বসে আছি যাত্রা-শেষের পর তোমায় নিয়েই পথের পারে বাঁধব আমার ঘর – হে চির-সুন্দর! পথ শেষ সেই তোমায় যেন করতে পারি ক্ষমা, হে মোর কলঙ্কিনী প্রিয়তমা! সেদিন যেন বলতে পারি, ‘এসো এসো প্রিয়, বক্ষে এসো এসো আমার পূত...

নিকটে

নিকটে বাদলা-কালো স্নিগ্ধা আমার কান্ত এল রিমঝিমিয়ে, বৃষ্টিতে তার বাজল নুপূর পায়জোরেরই শিঞ্জিনী যে। ফুটল উষার মুখটি অরুণ, ছাইল বাদল তাম্বু ধরায়; জমল আসর বর্ষা-বাসর, লাও সাকি লাও ভর-পিয়ালায়। ভিজল কুঁড়ির বক্ষ-পরাগ হিম-শিশিরের আমেজ পেয়ে হমদম! হরদম দাও মদ, মস্ত্ করো গজল...

নিরুদ্দেশের যাত্রী

নিরুদ্দেশের যাত্রী নিরুদ্দেশের পথে যেদিন প্রথম আমার যাত্রা হল শুরু নিবিড় সে কোন্ বেদনাতে ভয়-আতুর এ বুক কাঁপল দুরু দুরু। মিটল না ভাই চেনার দেনা, অমনি মুহুর্মুহু ঘর-ছাড়া ডাক করলে শুরু অথির বিদায়-কুহু – উহু উহু উহু! হাতছানি দেয় রাতের শাঙন, অমনি বাঁধে ধরল ভাঙন, ফেলিয়ে...

পথিক বঁধু

পথিক বঁধু আজ নলিন-নয়ান মলিন কেন বলো সখী বলো বলো! পড়ল মনে কোন্ পথিকের বিদায়-চাওয়া ছলছল? বলো সখী বলো বলো!! মেঘের পানে চেয়ে চেয়ে বুক ভিজালে চোখের জলে,  ওই সুদূরের পথ বেয়ে কি চেনা-পথিক গেছে চলে ফিরে আবার আসব বলে গো? স্বর শুনে কার চমকে ওঠ (আহা),    ওগো ওযে বিহগ-বেহাগ,...

পথিক শিশু

পথিক শিশু নাম-হারা তুই পথিক শিশু এলি অচিন দেশ পারায়ে। কোন নামের আজ পরলি কাঁকন? বাঁধনহারার কোন্ কারা এ? আবার মনের মতন করে কোন নামে বল ডাকব তোরে? পথভোলা তুই এই সে ঘরে ছিলি ওরে, এলি ওরে বারে বারে নাম হারায়ে। ওরে জাদু, ওরে মানিক, আঁধার ঘরের রতন-মণি! ক্ষুধিত ঘর ভরলি এনে...

প্রণয় নিবেদন

প্রণয় নিবেদন লো কিশোরী কুমারী! পিয়াসি মন তোমার ঠোঁটের একটি গোপন চুমারই॥ অফুট তোমার অধর ফুলে কাঁপন যখন নাচন তুলে একটু চাওয়ায় একটু ছুঁলে গো! তখন এ-মন যেমন কেমন-কেমন কোন্ তিয়াসে কোঙারি? – ওই শরম-নরম গরম ঠোঁটের অধীর মদির ছোঁয়ারই। বুকের আঁচল মুখের আঁচল বসন-শাসন টুটে ওই...

প্রণয়-ছল

প্রণয়-ছল কত ছল করে সে বারেবারে দেখতে আসে আমায়। কত বিনা-কাজের কাজের ছলে চরণ দুটি আমার দোরেই থামায়॥ জানলা আড়ে চিকের পাশে দাঁড়ায় এসে কিসের আশে, আমায় দেখেই সলাজ ত্রাসে, গাল দুটিকে ঘামায়। অনামিকায় জড়িয়ে আঁচল দুরু দুরু বুকে সবাই যখন ঘুমে মগন তখন আমায় চুপে চুপে দেখতে এসেই মল...

ফুল-কুঁড়ি

ফুল-কুঁড়ি আর পারিনে সাধতে লো সই এক ফোঁটা এই ছুঁড়িকে। ফুটবে না যে ফোটাবে কে বলল সে ফুল-কুঁড়িকে। ঘোমটা-চাঁপা পারুল-কলি, বৃথাই তারে সাধল অলি পাশ দিয়ে হায় শ্বাস ফেলে যায় হুতাশ বাতাস ঢলি। আ মলো ছিঃ! ওর হল কী? সুতোর গুঁতো শ্রান্ত-শিথিল টানতে ও মন-ঘুড়িকে। আর শুনেছিস সই? ও লো...

বরষায়

                                বরষায় আদর গর-গর বাদর দর-দর এ-তনু ডর-ডর কাঁপিছে থর-থর॥ নয়ন ঢল-ঢল [সজল ছল-ছল] কাজল-কালো-জল ঝরে লো ঝর ঝর॥ ব্যাকুল বনরাজি শ্বসিছে ক্ষণে ক্ষণে সজনী! মন আজি গুমরে মনে মনে। বিদরে হিয়া মম বিদেশে প্রিয়তম এ-জনু পাখিসম বরিষা জর-জর॥ [বিজুরি হানে...

বিজয়িনী

বিজয়িনী হে মোর রানি! তোমার কাছে হার মানি আজ শেষে আমার বিজয়-কেতন লুটায় তোমার চরণতলে এসে। আমার সমর-জয়ী অমর তরবারি ক্লান্তি আনে, দিনে দিনে হয়ে ওঠে ভারী, এখনএ ভার আমার তোমায় দিয়ে হারি এই হার-মানা-হার পরাই তোমার কেশে। ওগো দেবী! আমায় দেখে কখন তুমি ফেললে চোখের জল, আজ...

বিরহ-বিধুরা

বিরহ-বিধুরা কার তরে? ছাই এ পোড়ামুখ আয়নাতে আর দেখব না; সুর্মা-রেখার কাজল-হরফ নয়নাতে আর লেখব না! লাল-রঙিলা করব না কর মেহেদি-হেনার ছাপ ঘষে; গুলফ চুমি কাঁদবে গো কেশ চিরুণ-চুমার আপশোশে! কপোল-শয়ান অলক-শিশুর উদাস ঘুম আর ভাঙবে না; চুমহারা ঠোঁট পানের পিকের হিঙুল রঙে রাঙবে না!...

বে-শরম

বে-শরম আরে আরে সখী বারবার ছি ছি ঠারত চঞ্চল আঁখিয়া সাঁবলিয়া। দুরু দুরু গুরু গুরু কাঁপত হিয়া উরু হাথসে গির যায় কুঙ্কুম-থালিয়া। আর না হোরি খেলব গোরি আবির ফাগ দে পানি মে ডারি হা প্যারি – শ্যাম কী ফাগুয়া লাল কী লুগুয়া ছি ছি মোরি শরম ধরম সব হারি মারে ছাতিয়া মে কুঙ্কুম...

মানিনী

মানিনী মূক করে ওই মুখর মুখে লুকিয়ে রেখো না, ওগো কুঁড়ি, ফোটার আগেই শুকিয়ে থেকো না! নলিন নয়ান ফুলের বয়ান মলিন এদিনে রাখতে পারে কোন সে কাফের আশেক বেদীনে? রুচির চারু পারুল বনে কাঁদচ একা জুঁই, বনের মনের এ বেদনা কোথায় বলো থুই? হাসির রাশির একটি ফোঁটা অশ্রু অকরুণ, হাজার তারা...

শরাবন তহুরা

শরাবন তহুরা নার্গিস-বাগমে বাহার কী আগমে ভরা দিল দাগমে – কাঁহা মেরি পিয়ারা, আও আও পিয়ারা। দুরু দুরু ছাতিয়া ক্যায়সে এ রাতিয়া কাটুঁ বিনু সাথিয়া ঘাবরায়ে জিয়ারা, তড়পত জিয়ারা। দরদে দিল জোর, রঙিলা কওসর শরাবন তহুরা লাও সাকি লাও ভর, পিয়ালা তু ধর দে, মস্তানা কর দে, সব দিল ভর দে...

শেষের ডাক

শেষের ডাক মরণ-রথের চাকার ধ্বনি ওই রে আমার কানে আসে। পুবের হাওয়া তাই নেমেছে পারুল বনে দীঘল শ্বাসে। ব্যথার কুসুম গুলঞ্চ ফুল মালঞ্চে আজ তাই শোকাকুল, গোরস্থানের মাটির বাসে তাই আমার আজ প্রাণ উদাসে। অঙ্গ আসে অবশ হয়ে নেতিয়ে-পড়া অলস ঘুমে সাগর-পারের বিদেশিনীর হিম-ছোঁওয়া যার...

সোহাগ

সোহাগ গুলশন কো চুম চুম কহতে বুলবুল, রুখসারা সে বে-দরদি বোরকা খুল! হাঁসতি হ্যায় বোস্তাঁ, মস্ত্ হো যা দোস্তাঁ, শিরি শিরাজি সে যা বেহোশ জাঁ। সব কুছ আজ রঙিন হ্যায় সব কুছ মশগুল, হাঁস্‌তি হ্যায় গুল হো কর দোজখ বিলকুল হা রে আশেক মাশুক কি চমনোঁ মে ফুলতা নেই দোবারা ফুল ফুল ফুল...

স্নেহ-পরশ

স্নেহ-পরশ আমি এদেশ হতে বিদায় যেদিন নেব প্রিয়তম, কাঁদবে এ বুক সঙ্গীহারা কপোতিনী সম –   তখন মুকুরপাশে একলা গেহে আমারই এই সকল দেহে  চুমব আমি চুমব নিজেই অসীম স্নেহে গো! আহা পরশ তোমার জাগছে যে গো এই সে দেহে মম, কম সরস-হরষ সম।   তখন তুমি নাইবা – প্রিয় – নাইবা রলে কাছে, ...

স্মরণে

স্মরণে আজ নতুন করে পড়ল মনে মনের মতনে এই শাঙন সাঁঝের ভেজা হাওয়ায়, বারির পতনে।         কার কথা আজ তড়িৎ-শিখায়         জাগিয়ে গেল আগুন লিখায়,         ভোলা যে মোর দায় হল হায়                        বুকের রতনে। এই শাঙন সাঁঝের ভেজা হাওয়ায়, বারির পতনে। আজ উতল ঝড়ের কাতরানিতে...

হোলি

হোলি আয় লো সই খেলব খেলা ফাগের ফাজিল পিচকিরিতে। আজ শ্যামে জোর করব ঘায়েল হোরির সুরের গিটকিরিতে। বসন ভূষণ ফেল লো খুলে, দে দোল দে দোদুল দুলে, কর লালে লাল কালার কালো আবির হাসির...