এত জল ও-কাজল-চোখে পাষাণী, আনলে বল কে

মান্দ্ — কাওয়ালি

এত জল ও-কাজল-চোখে
পাষাণী, আনলে বল কে।
টলমল জল-মোতির মালা
দুলিছে ঝালর-পলকে॥
দিল কি পুব-হাওয়াতে দোল,
বুকে কি বিঁধিল কেয়া?
কাঁদিয়া কুটিলে গগন
এলায়ে ঝামর-অলকে॥
চলিতে পৈচি কি হাতের
বাধিল বৈঁচি-কাঁটাতে?
ছাড়াতে কাঁচুলির কাঁটা
বিঁধিল হিয়ার ফলকে॥
যে দিনে মোর দেওয়া মালা
ছিঁড়িলে আনমনে সখী,
জড়াল জুঁই-কুসুমি-হার
বেণিতে সেদিন ও লো কে॥
যে-পথে নীর ভরণে যাও
বসে রই সেই পথ-পাশে,
দেখি, নিত্ কার পানে চাহি
কলসির সলিল ছলকে॥
মুকুলি মন সেধে সেধে
কেবলই ফিরিনু কেঁদে
সরসীর ঢেউ পলায় ছুটি
না ছুঁতেই নলিন-নোলকে॥
বুকে তোর সাত সাগরের জল,
পিপাসা মিটল না কবি,
ফটিক-জল! জল খুঁজিস যেথায়
কেবলই তড়িৎ ঝলকে॥

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *