১৮.স্বর্গারোহণ পর্ব্ব

০১. পাণ্ডবগণের মেঘনাদ পর্ব্বতে আরোহণ

বলিলেন জন্মেজয় পিতামহগণ। কোন্ পথে স্বর্গেতে করেন আরোহণ।। কোন্ কোন্ পর্ব্বতে পড়িল কোন্ বীর। স্বশরীরে কেমনে গেলেন যুধিষ্ঠির।। বলেন বৈশম্পায়ন শুন জন্মেজয়। ধৌম্যেরে বিদায় দিয়া পাণ্ডুর তনয়।। লোভ মোহ কাম ক্রোধ ক্ষান্ত করি মন। হইলেন একান্তে গোবিন্দ-পরায়ণ।। পুণ্য ভাগীরথী জলে...

০২. পাণ্ডবগণের কেদার পর্ব্বতারোহন

মুনি বলে শুন পরীক্ষিতের নন্দন। চলেন উত্তরমুখে পাণ্ডুপুত্রগণ।। দানব ঈশ্বর শিব রচিত সুবর্ণে। নানা ধাতু বিদ্যমান শোভে প্রতি বর্ণে।। মস্তকে শোভিত মণি মুকুতার পাঁতি। অন্ধকারে দীপ্ত করে যেন দিনপতি।। দিব্য সরোবর তথা সুবাসিত জল। হংস চক্রবাক শোভে প্রফুল্ল কমল।। তাহা দেখি...

০৩. ধর্ম্মরাজ কর্ত্তৃক ছলনা

মুনি বলে শুনহ নৃপতি জন্মেজয়। উত্তরমুখেতে যান পাণ্ডুর তনয়।। যুধিষ্ঠির প্রভৃতি আইসে স্বর্গপথে। সমাচার জানি ধর্ম্ম আসিল ছলিতে।। জলচর পক্ষী হৈয়া রন সরোবরে। বসিলেন যুধিষ্ঠির পর্ব্বত উপরে।। পথশ্রমেতৃষ্ণাযুক্ত রাজা যুধিষ্ঠির। জল হেতু চলিলেন বৃকোদর বীর।। আজ্ঞা পেয়ে সরোবরে গেল...

০৪. মেঘবর্ণ পর্ব্বতে পাণ্ডবগণের গমণ ও ভীমের হস্তে ভীষণা রাক্ষসীর মৃত্যু।

মুনি বলে শুনহ নৃপতি জন্মেজয়। গেলেন উত্তরমুখে পাণ্ডুর তনয়।। মেঘবর্ণ নামে গিরি অতি ভয়ঙ্কর। অরোহেণ পাণ্ডুপুত্র তাহার উপর।। ছত্রিশ যোজন সেই পর্ব্বত প্রসর। অতি অনুপম যেন সুমেরু শিখর।। তথায় থাকিয়া মেঘ বর্যে চারি মাস। নানা শব্দে কোলাহল দেখিলা তরাস।। সেইত পর্ব্বত রক্ষা করে...

০৫. ভদ্রকালী পর্ব্বতে পাণ্ডবদের গমন ও হরি পর্ব্বতে দ্রৌপদীর দেহত্যাগ

মুনি বলে শুন পরীক্ষিতের নন্দন। চলিল উত্তরমুখে ভাই পঞ্চজন।। দেখিল অপূর্ব্ব এক পর্ব্বত উপর। অতি অপরূপ শিবলিঙ্গ মনোহর।। চন্দ্র সূর্য্য স্ফটিক জিনিয়া শুভ্রকায়। স্তব করিলেন রাজা মহেশের পায়।। তোমার প্রসাদে করি স্বর্গ আরোহণ। এত বলি প্রণমিয়া করেন গমন।। বহু কষ্টে ‍রাক্ষস আশ্রম...

০৬. দ্রৌপদীর শোকে পাণ্ডবদের বিলাপ

যুধিষ্ঠির নৃপমণি, কোলে লৈয়া যাজ্ঞাসেনী, কান্দিছেন সকরুণ ভাষে। শোক দুঃখে অচেতন, আর ভাই চারিজন, অশ্রুমুখে বৈসে চারিপাশে।। দ্রৌপদীর মুখ চেয়ে, কান্দিছেন বিলাপিয়ে, কোথা গেলে দ্রুপদনন্দিনী। অজ্ঞাতে তোমার তরে, বধিনু কীচক বীরে, তুমি পাণ্ডবের ধন মানি।। যেকালে দ্রুপদরাজে, পণ...

০৭. যুধিষ্ঠিরের প্রতি ভীমের প্রশ্ন

মুনি বলে শুনহ নৃপতি জন্মেজয়। তবে কতক্ষণে পঞ্চ পাণ্ডুর তনয়।। দ্রৌপদীরে বেড়িয়া বৈসেন পঞ্চজন। ধর্ম্মরাজ বলিলেন গদগদ বচন।। তোমার বিচ্ছেদ প্রাণে সহিতে না পারি। হায় ‍প্রিয়ে মোরে ছাড়ি গেলে কোন পুরী।। পড়িয়া রহিলে কেন পর্ব্বত উপরে। তোমার শয়নে মম পরাণ বিদরে।। উত্তর না দেহ কেন...

০৮. পাণ্ডবগণের বদরিকাশ্রমে গমন ও সহদেবের মৃত্যু ও যুধিষ্ঠিরের শোক

বলেন বৈশম্পায়ন শুন জন্মেজয়। দ্রৌপদীরে তেয়াগিয়া পাণ্ডুর তনয়।। শোক মোহ কাম ক্রোধ লোভ আদিছাড়ি। পঞ্চ ভাই গঙ্গাতীরে যান স্বর্গপুরী।। যাইতে উত্তরমুখে পাণ্ডুর নন্দন। তাম্রচূড় গিরি করিলেন আরোহণ।। পর্ব্বত দেখিয়া সুখী পাণ্ডুর তনয়। শঙ্খনাদে পূরিল সর্ব্বত্র জয় জয়।। আকাশ পরশে চূড়া...

০৯. চন্দ্রকালী পর্ব্বতে নকুলের ও নন্দিঘোষ পর্ব্বতে অর্জ্জুনের দেহত্যাগ

মুনি বলে কহি শুন নৃপ জন্মেজয়। চলিল উত্তরমুখে পাণ্ডুর তনয়।। যাইতে উত্তরমুখে দেখেন রাজন। সরোবর তীরে লিঙ্গ অতি সুশোভন।। গঙ্গার সদৃশ দেখি সুনির্ম্মল জল। কোকনদ প্রফুল্ল সহস্র শতদল।। সরোবর আছে শত যোজন বিস্তার। জল দেখি নৃপতির আনন্দ অপার।। মৃগ পক্ষী হংস চক্র বিহরে বিস্তর।...

১০. যুধিষ্ঠিরের বিলাপ

ভীমের বচন শুনি, শোকে ধর্ম্ম নৃপমণি, কান্দিছেন বিলাপ করিয়া। হাহাকার ঘন মুখে, চাপড় মারিয়া বুকে, পর্ব্বতে পড়েন লোটাইয়া।। হায় পার্থ মহাবল, পাণ্ডবের বুদ্ধি বল, পর্ব্বতে পড়িলা কি কারণে। স্বর্গপুরে আরোহণ, না হইল বিচক্ষণ, প্রাণ দিব তোমার বিহনে।। ত্রিভুবন কৈলে জয়,...

১১. সোমেশ্বর পর্ব্বতে ভীমের তনুত্যাগ ও যুধিষ্ঠিরের বিলাপ

বলেন বৈশম্পায়ন শুন কুরুবীর। অর্জ্জুনের শোকেতে কান্দেন ‍যুধিষ্ঠির।। বৃকোদর বলিলেন ধর্ম্ম অধিপতি। কোন্ পাপে পড়িল অর্জ্জুন মহামতি।। ভূপতি বলেন শুন পবন তনয়। আমা হৈতে দ্রৌপদীর বশ ধনঞ্জয়।। সবে হেয় জ্ঞান তার ছিল মনোগতে। এই হেতু পার্থবীর পড়িল পর্ব্বতে।। এত বলি দুইজনে বিষণ্ণ...

১২. যুধিষ্ঠিরের সহিত বিপ্ররূপী ইন্দ্রের ও কুক্কুররূপী ধর্ম্মের ছলনা

মুনি বলে শুনহ নৃপতি জন্মেজয়। উত্তরাজ্যে চলিলেন ধর্ম্মের তনয়।। কতদূরে দেখি গন্ধমাদন পর্ব্বত। যাহার সৌরভ যায় যোজনের পথ।। তাহে উঠি শুনিলেন স্বর্গের বাজনা। ভূপতি করেন মনে পূরিল কামনা।। স্বর্গের দুর্ল্লভ ভোগ সেই গিরিবরে। আরোহণ করিলেন হরিষ অন্তরে।। পর্ব্বতে দেখিল তবে...

১৩. যুধিষ্ঠিরের ইন্দ্রপুরী গমন

ধর্ম্ম আদি দেবচয়, দেখি রাজা সবিস্ময়, প্রণাম করেন সবাকারে। মাতলি ইঙ্গিত পেয়ে, দিব্য পুষ্পরথ লয়ে, যোগাইল রাজা যুধিষ্ঠিরে।। ধর্ম্ম ইন্দ্র দুইজনে, গন্ধমাল্য আভরণে, যুধিষ্ঠিরে করেন ভূষিত। বিবিধ বন্ধন ছান্দে, মস্তকে মুকুট বান্ধে, কিন্নর গন্ধর্ব্ব গায় গীত।। পারিজাত...

১৪. যুধিষ্ঠিরের বৈকুণ্ঠে গমন ও শ্রীকৃষ্ণ দর্শন

বলেন বৈশম্পায়ন শুন জন্মেজয়। নিজ পুণ্যে স্বর্গে গেল ধর্ম্মের তনয়।। পুষ্পরথে আরোহিয়া যান বিষ্ণুপুরে। অপ্সর অপ্সরীগণ সদা নৃত্য করে।। কেহ ছত্র ধরে কেহ চামর বাতাস। দুই দিকে সারি সারি দেবের আবাস।। ব্রহ্মলোকে দেখি রাজা ব্রহ্মা চতুর্ম্মূখে। প্রণমিয়া সম্ভাষা করিলেন কৌতুকে।।...

১৫. যুধিষ্ঠিরের নরক দর্শনের হেতু ও শ্বেতদ্বীপে গিয়া স্বজনাদি দর্শন

জন্মেজয় জিজ্ঞাসিল, কহ মুনিবর। কোন পাপ করিলেন ধর্ম্ম-নৃপবর।। আজন্ম তপস্বী জিতেন্দ্রিয় সত্যবাদী। দান ধর্ম্মে মতি সদা, পাতক-বিবাদী।। তাঁহার হইল পাপ কেমন প্রকারে। বিস্তারিয়া মুনিবর কহিবে আমারে।। মুনি কহে শুনি জন্মেজয় সাবধানে। যুধিষ্ঠিরে পাপ হৈল যাহার কারণে।। ভারত সমরে যবে...

১৬. যুধিষ্ঠির কর্ত্তৃক শ্রীকৃষ্ণের স্তত্র

হৃষ্ট হৈয়া করিছেন কৃষ্ণের স্তবন। তব মায়া কে বুঝিতে পারে নারায়ণ।। সৃষ্টি স্থিতি প্রলয়ের তুমি হর্ত্তা কর্ত্তা। প্রধান পুরুষ তিন ভুবনের ভর্ত্তা।। মীনরূপে বেদ উদ্ধারিলা তুমি জলে। কূর্ম্মরূপে ধরণী ধরিলা অবহেলে।। ধরিয়া বরাহ কায় দন্তে কৈলে ক্ষিতি। হিরণ্যকশিপু হন্তা নৃসিংহ...

১৭. মহাভারত শ্রবণে ব্রহ্মহত্যা পাপ হইতে রাজা জন্মেজয়ের মুক্তি

বলেন বৈশম্পায়ন শুন জন্মেজয়। অষ্টাদশ পর্ব্ব সাঙ্গ পাণ্ডব বিজয়।। ব্রহ্মবধ পাপে মুক্ত হৈলে অতঃপরে। দান তপ দ্বিজসেবা পূজ বৈশ্বানরে।। শুক্লবর্ণ চান্দোয়া দেখেন বিদ্যমানে। কৃষ্ণ বর্ণ দূর হৈল ভারত শ্রবণে।। দেখি সব সভাসদ হরিষে বিস্ময়। ব্রহ্মহত্যা পাপে মুক্ত হৈল জন্মেজয়।। সাধু...

১৮. মহাভারত পাঠের ফল

জন্মেজয় কহিলেন, শুন তপোধন। শ্রীমহাভারত-গ্রন্থ অপূর্ব্ব-রচন।। পূর্ব্বে যেই চন্দ্রাতপ কৃষ্ণবর্ণ ছিল। ক্রমে ক্রমে দেখি তাহা শুক্লবর্ণ হৈল।। শ্রীমহাভারত-গ্রন্থ করিলে শ্রবণ। পাপক্ষয় হয়, ইহা বুঝিনু এখন।। আর কি কি ফল হয়, শুনিতে বাসনা। কহ কহ মুনিবর করিয়া করুণা।।...

১৯. গ্রন্থ-সমাপ্ত ও ফলশ্রুতি

অষ্টাদশ-পর্ব্ব সাঙ্গ হ’ল এত দূরে। যাহার শ্রবণে পঞ্চ মহাপাপে তরে।। শুদ্ধমতি হ্যে যেবা এক পর্ব্ব শুনে। অশ্বমেধ ফল পায় ব্যাসের বচনে।। যার গৃহে থাকে গ্রন্থ সম্পূর্ণ ভারত। লক্ষ্মী সঙ্গে নারায়ণ থাকেন সতত।। অগ্নিভয়, জ্বর আর চৌর মৃত্যুভয়। পাপ তাপ শোক দুঃখ, সব হয় ক্ষয়।।...

২০. গ্রন্থকারের পরিচয়

ইন্দ্রাণী নামেতে দেশ বাস সিদ্ধিগ্রাম। প্রিয়ঙ্কর দাস পুত্র সুধাকর নাম।। তৎপুত্র কমলাকান্ত কৃষ্ণদাস পিতা। কৃষ্ণদাসাত্মজ গদাধর জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা।। পাঁচালী প্রকাশি কহে কাশীরাম দাস। অলি হব কৃষ্ণপদে মনে অভিলাষ।। হরিধ্বনি কর সবে গোবিন্দের প্রীতে। অন্তকালে স্বর্গপুরে যাবে...