১৫.অশ্বমেধ পর্ব্ব

০১. যুধিষ্ঠিরের উদ্বেগ ও ব্যাসদেবের উপদেশ প্রদান

জিজ্ঞাসেন জন্মেজয় কহ তপোধন। কি কি কর্ম্ম করিলেন পিতামহগণ।। মুনি বলে শুন তবে শ্রীজনমেজয়। রাজ্যে রাজা হইলেন ধর্ম্মের তনয়।। কিন্তু উপরোধে রাজ্য নিয়া যুধিষ্ঠির। প্রজাগণ পালন করেন ধর্ম্মবীর।। রামের পালনে যেন অযোধ্যার প্রজা। সেইমত প্রজার পালক মহাতেজা।। রাজ্যভোগ যুধিষ্ঠির না...

০২. যুধিষ্ঠিরের নিকট কৃষ্ণের আগমন

হা কৃষ্ণ দ্বারকানাথ যাদব-নন্দন। মথুরেশ হৃষীকেশ ত্রাতা জনার্দ্দন।। এই নাম যুধিষ্ঠির স্মরণ করিতে। করুণাসাগর তথা আসিল ত্বরিতে।। একেশ্বর আসিলেন কমললোচন। যুধিষ্ঠির-দ্বারে আসি দিলা দরশন।। এই দেখ ভক্তের অধীন যদুরায়। শিব ব্রহ্মা ধ্যানে যাঁরে দেখিতে না পায়।। অনাহারে অহর্নিশি...

০৩. অশ্ব আনিতে ভীম, বৃষকেতু ও মেঘবর্ণের যাত্রা

শ্রীজনমেজয় বলে, কহ মহামুনি। অপূর্ব্ব কাহিনী আমি তোমা হৈতে শুনি।। কেমনে আনিল অশ্ব বীর বৃকোদর। বিবরিয়া সেই কথা কহ মুনিবর।। যত কথা শুনি মুনি তত বাড়ে সুখ। অমৃত করিতে পান কে হয় বিমুখ।। বলেন বৈশম্পায়ন, শুন জন্মেজয়। ভীম আনিবারে গেল অশ্বমেধ হয়।। বৃষকেতু মেঘবর্ণে করিয়া সংহতি।...

০৪. যুবনাশ্ব রাজার অশ্বহরণ

মেঘবর্ণ মহাবলী, হয়ে মহা কুতুহলী, প্রণমিল ভীমের চরণে। ভীম বড় কুতুহলে, তাহারে করিল কোলে, আশীর্ব্বাদে হরষিত মনে।। প্রণমিয়া কর্ণসুতে, মেঘবর্ণ আনন্দেতে, অন্তরীক্ষে করিল গমন। প্রকাশি রাক্ষস মায়া, দূর কৈল রবিছায়া, অন্ধকারে না চলে নয়ন।। আকাশে খেচর সব, করে মহাকলরব, বরিষে...

০৫. বৃষকেত ও যুবনাশ্বের যুদ্ধ

রাক্ষসের মায়া যত, সব দূর হৈল। শিলাবৃষ্টি বরিষণ ঝড় কোথা গেল।। দূর হৈল অন্ধকার, সুপ্রকাশ ভানু। পরস্পর নিরীক্ষয়ে নিজ নিজ তনু।। কেহ বলে, আরে ভাই অনর্থ হইল। রাজার যজ্ঞের ঘোড়া কেবা লয়ে গেল।। কেহ বলে, অশ্বেকে ধরিয়া একজন। দেখিনু আকাশপথে করিল গমন।। কি বলিয়া যাব মোরা ‍নৃপ...

০৬. যুবনাশ্বগৃহে ভীমের আগমন

নৃপ হরষিত,                     অমাত্য সহিত, করিলেক বিবেচনা। আমার বৈভব,                     আর কত কব, বিধি করিল ঘটনা।। পাণ্ডুর তনয়,                     ভীম মহাশয়, আসিবে আমার পুরে। নগর শোভন,                     কর প্রজাগণ, আনন্দ করি অন্তরে।। পেয়ে নৃপাদেশ,              ...

০৭. যুবনাশ্ব রাজার হস্তিনা গমন ও শ্রীকৃষ্ণ দর্শন

বলেন বৈশম্পায়ন শুনহ নৃপতি। এই বিবরণ কহিলাম তোমা প্রতি।। জন্মেজয় বলিলেন শুন তপোধন। এবে কহ যুবনাশ্ব রাজার কথন।। ভীমেরে পূজিল রাজা অতি সমাদরে। কহ সে কেমনে গেল হস্তিনা নগরে।। কি কহিল নরপতি যুধিষ্ঠির স্থানে। সে কথা শুনিব প্রভু তোমার বদনে।। বলেন বৈশম্পায়ন, শুন জন্মেজয়।...

০৮. শ্রীকৃষ্ণের আদর্শনে যুধিষ্ঠিরের উদ্বেগ ও শ্রীকৃষ্ণের পুনরাগমন

হেথা যুধিষ্ঠির রাজা রজনী প্রভাতে। ডাক দিয়া অর্জ্জুনেরে আনেন সাক্ষাতে।। একেলা অর্জ্জুনে দেখি কহেন রাজন। বলহ কিরীটি কোথা বিপদ ভঞ্জন।। অর্জ্জুন বলেন হরি ছিলেন সভায়। তত্ত্ব নাহি জানি, তিনি আছেন কোথায়।। ধর্ম্ম বলিলেন কৃষ্ণ তোমার গোচরে। সতত থাকেন ইহা বিদিত সংসারে।। না বলিয়া...

১০. অনুশাম্বের যুদ্ধ

জিজ্ঞাসেন জন্মেজয়, ওহে মহামুনি। কহ দেখি কি উৎপাত, তব মুখে শুনি।। বলেন বৈশম্পায়ন, শুনহ রাজন। আরম্ভ না হতে যজ্ঞ যুদ্ধের পত্তন।। অনুশাল্ব নামে এক দৈত্যের ঈশ্বর। কৃষ্ণের উদ্দেশে আসে হস্তিনা নগর।। গজ বাজী রথ রথী সেনাগণ লৈয়া। বহু সৈন্যে অনুশাল্ব আইল সাজিয়া।। বেড়িল...

১০. অশ্বমেধ যজ্ঞের উদ্‌যোগ

জন্মেজয় কহিলেন কহ মহামুনি। যজ্ঞের আরম্ভ কথা অপূর্ব্ব কাহিনী।। অর্জ্জুন গেলেন যদি অশ্ব রাখিবারে। ভ্রমণ করিল ঘোড়া পৃথিবী ভিতরে।। ধরিয়া রাখিল ঘোড়া কোন্ বলবান। কার সহ কি প্রকার সংগ্রাম বিধান।। আমাকে সে সব কথা কহ তপোধন। তোমার প্রসাদে শুনি পূর্ব্ব বিবরণ।। বলেন বৈশম্পায়ণ শুন...

১১. নীলধ্বজ রাজার সহিত যুদ্ধ

বৈশম্পায়ন কহেন শুন জন্মেজয়। দক্ষিণ দিকেতে গেল পাণ্ডবের হয়।। পশ্চাতে চলিল সৈন্য নানা অস্ত্র ধরি। করিল প্রবেশ গিয়া মাহেশ্বরা পুরি।। মাহেশ্বরী পুরে রাজা নীলধ্বজ নাম। অস্ত্র শস্ত্র বিশারদ বীর গুণধাম।। ধর্ম্মেতে পৃথিবী পালে নীলধ্বজ রায়। নানা সুখে আছে প্রজা ক্লেশ নাহি পায়।।...

১২. পুত্রশোকে জনার ভ্রাতৃগৃহে গমন

তবে জনাবতী নারী, অন্তরেতে ক্রোধ করি, ত্যজিয়া আলয় ধন জন। পুত্রশোকে অধোমুখ, মনেতে ভাবিছে দুঃখ, স্বামী নিল বিপক্ষ শরণ।। পথে যেতে যুক্তি করে, বিনাশিব অর্জ্জুনেরে, সহোদর সহায় করিয়া। না পূরিল মনোরথ, দৈবে মোর এই পথ, কি করিব ঘরেতে বসিয়া।। বিনাশিলে অর্জ্জুনেরে, তবে মোর...

১৩. জনার দেহত্যাগ ও অর্জ্জুনের প্রতি গঙ্গার অভিশাপ

শ্রীজনমেজয় বলে শুন তপোধন। কি যুক্তি করিল জনা কহ বিবরণ।। বলেন বৈশম্পায়ন শুন নরপতি। দুর্ব্বাক্য শুনিল বহু জনা গুণবতী।। ভ্রাতার নিকট বড় পেয়ে অপমান। মনেতে করিল যুক্তি ত্যজিব পরাণ।। ভাগীরথী তীরে জনা গেল শীঘ্রগতি। যোড় হাত হয়ে বলে আপন ভারতী।। শুন গঙ্গাদেবী আমি করি নিবেদন।...

১৪. নীলধ্বজ-জামাতা অগ্নির বিবরণ

শ্রীজনমেজয় বলে, শুন তপোধন। এই আমি তোমারে করি যে নিবেদন।। রাজার জামাতা অগ্নি হইল কেমনে। এই কথা কৃপা করি কহিবে আপনে।। বলেন বৈশম্পায়ন, শুন নরপতি। এবে কহি নীলধ্বজ রাজার ভারতী।। জনা নাম ধরে নীলধ্বজের মহিষী। রতি জিনি রূপ তার পরমা রূপসী।। জনা সঙ্গে নীলধ্বজ নানা কেলি করে।...

১৫. পৃথিবীর প্রতি লক্ষ্মীর অভিশাপ

শ্রীজনমেজয় বলে, শুন মহামুনি। পূর্ব্ব বিবরণ কথা তোমা হৈতে শুনি।। লক্ষ্মী কেন পৃথিবীকে অভিশাপ দিল। কহ দেখি পৃথিবীর কি পাপ আছিল।। বলেন বৈশম্পায়ন, শুনহ রাজন। সংক্ষেপে তোমারে কহি সে সব কথন।। লক্ষ্মী সঙ্গে নারায়ণ থাকেন সতত। নানা কেলি কলারস করেন বহুত।। অপার মহিমা তাঁর কে...

১৬. পাষাণ হইতে অশ্ব উদ্ধার

তপোবনে মুনিস্থানে করহ প্রস্থান। দুঃখ না ভাবিও তুমি শুনহ অর্জ্জুন।। প্রদ্যুন্ন অর্জ্জুন আর কত রথিগণে। মুনি সম্ভাষিতে সবে গেল তপোবনে।। সৌভরি রহিয়াছেন আপন আশ্রমে। শিষ্যগণ বসিয়াছে তাঁর বিদ্যমানে।। বেদ শাস্ত্র পাঠ দেন আনন্দিত মনে। বনঞ্জয় কামদেব গিয়া সেইখানে।। প্রণিপাত...

১৭. ব্রাহ্মণীর পাষাণ হইবার বৃত্তান্ত

জন্মেজয় রাজা বলে শুন তপোধন। ব্রাহ্মণী পাষাণ হৈল কিসের কারণ।। অভিশাপ কেন মুনি দিলেন তাহাকে। কৃপা করি সেই কথা কহিবে আমাকে।। বলেন বৈশম্পায়ন শুন নরপতি। মন দিয়া শুন কহি ব্যাসের ভারতী।। উদ্দালক নামে মুনি ছিল তপোবনে। চণ্ডী নামে তাঁর ভার্য্যা বিখ্যাত ভুবনে।। বিবাহ করিয়া মুনি...

১৮. হংসধ্বজ রাজার নগরে অশ্বের গমন ও তদুপলক্ষে নানা সংবাদ

সেই দেশে হংসধ্বজ নামে নৃপবর। বড়ই ধার্ম্মিক রাজা ধর্ম্মেতে তৎপর।। সুরথ সুধন্বা তার দুইটি নন্দন। বিষ্ণুভক্ত দুইজন বিষ্ণুপরায়ণ।। ঘোড়া উপনীত হৈল তাহার নগরে। দূত গিয়া সমাচার কহিল রাজারে।। যুধিষ্ঠির করিলেন অশ্বমেধ ক্রতু। অর্জ্জুন আইল অশ্ব রাখিবার হেতু।। নগরে আইল ঘোড়া শুনহ...

১৯. সুধম্বাকে তপ্ত তৈলে নিক্ষেপ

এত বলি সুধম্বা আইল তৈলে পাশে। ভয় পেয়ে লোক সব দেখিতে না আসে।। তপ্ত তৈল দেখি বীর নাহি করে ভয়। গোবিন্দ চরণ ভাবে রাজার তনয়।। জয় জয় নারায়ণ পরম কারণ। আমি মূঢ় না দেখিনু তোমার চরণ।। এ বড় অধিক দুঃখ রহিল অন্তরে। অর্জ্জুন সহিত কৃষ্ণ না দেখি সমরে।। ওহে কৃষ্ণ রক্ষা কর অকাল মরন।...

২০. তপ্ত তৈলে সুধম্বার পতনে রাজা ও রাণীর শোক

না দেখিয়া সুধন্বারে, কান্দিতেছে উচ্চৈঃস্বরে, ভূমিতে লোটায়ে সর্ব্বজন। কেহ মনে দুঃখ পেয়ে, রাজার সম্মূখে গিয়ে, কহিলেন সুধম্বা নিধন।। তাহা শুনি পুরোহিতে রাজা কহে দুঃখচিত্তে, সুধম্বা মরিল তৈল পাশে। রক্ষা পায় ধর্ম্মপথ, রহিল শাস্ত্রের মত, দেখিবারে চলহ হরিষে।। তবে হংধ্বজ...