০১.আদিপর্ব্ব

০০১. গণেশ বন্দনা

বিঘ্ন-বিনাশন,                     গৌরীর নন্দন, বন্দি দেব গনরাজে। ব্রত যজ্ঞ হোমে,                     সবার প্রথমে, ধাতে যাঁরে আগে পূজে।। খর্ব্ব স্থূল অঙ্গ,                     বদন মাতঙ্গ, সুন্দর লম্ব-উদর। চন্দনে চর্চ্চিত,                     সৌরভে উম্মত ব্যালোল গণ্ড...

০০২. ব্যাসদেব বন্দনা

পরাশর পিতা যাঁর, শুকদেব সুত। বেদের বিভাগ-কর্ত্তা বলি যিনি খ্যাত।। বদরিকাশ্রমে যাঁর নিয়ত বসতি। কৃষ্ণবর্ণে বিভূষিত যাঁহার মূরতি।। দ্বীপের উপরি হৈল জনম যাঁহার। সে ব্যাস-দেবের পদে প্রণাম আমার।। বশিষ্ঠ-প্রপৌত্র, শক্তি-পৌত্র যাঁরে গণি। পরাপর-পুত্র, শুক-পিতা হন যিনি।।...

০০৩. গ্রন্থ-সূচনা

বেদ রামায়ণে আর আছয়ে ভারতে। ইত্যাদি যতেক শাস্ত্র আছে ত্রিজগতে। এ সকল বিচারিয়া কহি পুনঃ পুনঃ । আদি অন্ত মধ্যে সব হরিগুণ-গান।। সর্ব্বশাস্ত্র বিচারিয়া কহি পুনর্ব্বার। শ্রীমহাভারত-গ্রন্থ সর্ব্বশাস্ত্র-সার।। সর্ব্বশাস্ত্র বীজ হরিনাম দ্বি-অক্ষর। আদি অন্ত নাহি যার বেদে...

০০৪. সৌতির নিকটে শৌনকাদি ঋষির ভৃগুবংশ বিবরণ জিজ্ঞাসা

শৌনকাদি মুনিগণ নৈমিষ-কাননে। দ্বাদশ বর্ষ যজ্ঞ করে একমনে।। লোমহর্ষণের পুত্র সৌতি নাম-ধর। ব্যাস-উপদেশে সর্ব্বশাস্ত্রেতে তৎপর।। ভ্রমিতে ভ্রমিতে গেল নৈমিষ-কাননে। সনকাদি মুনি যজ্ঞ করে সেইখানে।। মুনিগণে প্রণমিল সূতের নন্দন। আশীর্ব্বাদ করি সবে দিলেন আসন।। আসনে বসিলে সৌতি কন...

০০৫. ভৃগুবংশ উপাখ্যান

সৌতি বলে অবধান কর মুনিগণ। কহিব বিচিত্র কথা ব্যাসের বচন। ব্রহ্মার নন্দন হৈল ভৃগুমহামুনি। পুলোমা নামেতে কন্যা তাহার গৃহিণী।। গর্ভবতী পুলোমা রাখিয়া নিজ ঘরে। মহামুনি ভৃগু গেল স্নান করিবারে।। হেনকালে তথা আসে দৈত্য একজন। হরিবারে গুরুপত্নী করিয়া মনন।। কামেতে পীড়িত চিত্ত...

০০৬. রুরুর সর্প হিংসা

সৌতি বলে অবধান কর মুনিবর। হেনমতে ভৃগু পুত্র হইল চ্যবন।। প্রমতি নামেতে হৈল চ্যবন-তনয়। তাহার তনয় হৈল রুরু মহাশয়। প্রমদ্বরা ভার্য্যা তার পরমা-সুন্দরী। গর্ভে জন্ম হৈল তার মেনকা অপ্সরী।। কতকালে মৈল কন্যা সর্পের দংশনে। দেখি শোকাকুল হৈল যত বন্ধুগণে।। ভার্য্যার মরণশোকে...

০০৭. জরৎকারু উপাখ্যান

জিজ্ঞাসিল রুরু তবে জনকের স্থানে। সর্পযজ্ঞ জন্মেজয় কৈল কি কারণে।। প্রমতি বলেন, বৎস কর অবধান। মহাশ্চর্য্য সর্প-যজ্ঞ অপূর্ব্ব আখ্যান।। যাযাবর বংশে জন্ম জরৎকারু মনি। যোগেতে পরম যোগী ত্রিজগতে জানি।। স্বচ্ছন্দে ভ্রমিয়া গেল দেশ-দেশান্তরে। উলঙ্গ উম্মত্তবেশ সদা অনাহারে।।...

০০৮. নাগগণের উৎপত্তি ও অরুণের জন্ম

মুনিগণ বলে, কহ ইহার কারণ। ভগিনীকে দিল নাগ কোন প্রয়োজন।। মুনি হেতু কি কারণে কন্যার উৎপত্তি। বিস্তারিত সব কথা কহ পুনঃ সৌতি।। সৌতি বলে, অবধান কর মুনিগণ। বাসুকি দিলেন ভগ্নী যাহার কারণ।। দক্ষের দুহিতা কদ্রু বিনতা সুন্দরী। স্বামী কশ্যপেরে দোঁহে বহু সেবা করি।। তুষ্ট হয়ে...

০০৯. সমুদ্র-মন্থন

সৌতি বলে, অবধান কর মুনিগণ। যে হেতু হইল পূর্ব্বে সমুদ্র-মন্থন।। ব্রহ্মারে কহিল পূর্ব্বে দেব গদাধর। দেবাসুরগণ নিয়া মন্থহ সাগর।। অমৃত উৎপত্তি হবে সাগর-মন্থনে। দেবগণ অমর হইবে সুধা-পানে।। যত মহৌষধি আছে পৃথিবী-ভিতরে। মন্দর লইয়া মথ ফেলিয়া সাগরে।। বিষ্ণুর পাইয়া আজ্ঞা যত...

০১০. নারদ কর্ত্তৃক মহাদেবের নিকট সমুদ্র-মন্থনের সংবাদ প্রদান

সুরাসুর যক্ষ রক্ষ ভুজঙ্গ কিন্নর। সবে সিন্ধু মথিল, না জানে মহেশ্বর।। দেখিয়া নারদ মুনি হৃদয়ে চিন্তিত। কৈলাসে হরের ঘরে হৈল উপনীত।। প্রণমিলা শিব-দুর্গা দোঁহার চরণ। আশিস্ করিয়া দেবী দিলেন আসন।। দেবী জিজ্ঞাসিলা, কহ ব্রহ্মার নন্দন। কোথা হতে হেথা তব হল আগমন।। নারদ বলেন, আমি...

০১১. সমুদ্র-মন্থন-স্থানে মহাদেবের আগমন

পার্ব্বতীর কটুভাষ,                শুনি ক্রোধে দিগ্ বাস, টানিয়া বান্ধিল ব্যাঘ্র-বাস। বাসুকি-নাগের দড়ি,                 কাঁকালে বান্ধিল বেড়ি, করে তুলি নিল মৃগ-বাস।। কপালেতে শশীকলা,                 গলে শোভে হাড়মালা, করযুগে কঞ্চুক-কঙ্কণ। ভানু বৃহদ্ভানু শশী,               ...

০১২. পুনর্ব্বার সিন্ধু-মন্থন ও মহাদেবের বিষপান

করযোড়ে দাঁড়াইল সব দেবগণে। শিব বলে মথ সিন্ধু, থামাইলে কেনে।। ইন্দ্র বলে, মথন হইল দেব শেষ। নিবারিয়া আপনি গেলেন হৃষীকেশ।। একে ক্রোধে আছিলেন দেব-মহেশ্বর। তাহাতে ইন্দ্রের বাক্যে কম্পে কলেবর।। শিব বলে, এত গর্ব্ব তোমা সবাকার। আমারে হেলন কর করি অহঙ্কার।। রত্নাকর মথি রত্ন নিলা...

০১৩. অমৃতের নিমিত্ত সুরাসুরের দ্বন্দ্ব ও শ্রীকৃষ্ণের মোহিনীরূপ ধারণ

মুনিগণ বলে শুন সূতের নন্দন। শুনিলাম যে কথা সে অদ্ভূত কথন॥ অমর অসুর মিলি সমুদ্র মথিল। উপজিল যত রত্ন দেবতারা নিল॥ রত্নের বিভাগ কিছু পায় কি অসুর। কহ শুনি সূতপুত্র শ্রবণে মধুর॥ সৌতি বলে দৈত্যগণ একত্র হইয়া। দেবগণ হৈতে সুধা লইল কাড়িয়া॥ সবে শ্রম করিলেন সমুদ্র মন্থনে। যে...

০১৪. মোহিনীরূপী হরির সহিত হরের মিলন

হর বলে, হরিণাক্ষি! কেন দেহ তাপ। মোর সহ কভু তব নাহিক আলাপ।। ত্রৈলোক্যের মধ্যে যত আছে মহাপ্রাণী। সবার ঈশ্বর আমি, শুন বরাননি।। ব্রহ্মার পঞ্চম শির নখেতে ছেদিল। বহুকাল সেবি বিষ্ণু অভয় পাইল।। ইন্দ্র যম বরুণ কুবের হুতাশন। সব লোকপাল করে মোর আরাধন।। জ্ঞানযোগে মৃত্যু আমি করিলাম...

০১৫. সুধাবণ্টন ও রাহু-কেতুর বিবরণ

সৌতি বলে, সাবধানে শুন মুনিগণ। কহিনু অপূর্ব্ব হরি-হরের মিলন।। দেবগণ-রক্ষা হেতু দেব ভগবান্। পুনরপি আইলেন সবা বিদ্যমান।। হেথা সুরাসুর সবে পাইয়া চেতন। কোথা কন্যা, কোথা কন্যা, করে অন্বেষণ।। হেনকালে নারী-বেশে দেখে নারায়ণে। এই এই বলিয়া ধাইল সর্ব্বজনে।। চতুর্দ্দিক হইতে ধাইল...

০১৬. নাগগণের প্রতি কদ্রুর অভিসম্পাত ও বিনতার দাসীত্ব বিবরণ

শৌনকাদি মুনিগণ সৌতিরে পুছিল। কদ্রু আর বিনতায় কি প্রসঙ্গ হৈল।। সৌতি বলে, দুই জন দেখি তুরঙ্গম। সর্ব্ব সুলক্ষণ অশ্ব অতি মনোরম।। কদ্রু বলে, বিনতা দেখহ অশ্ববর। কোন্ বর্ণ ধরে অশ্ব পরম সুন্দর।। বিনতা কহিল, অশ্ব শ্বেতবর্ণ ধরে। তুমি কোন্ বর্ণ দেখ, কহ দেখি মোরে।। কদ্রু বলে,...

০১৭. কদ্রু ও বিনতার অশ্ব দর্শনে গমন

মায়ের বচন শুনি নাগগণে ভয়। শীঘ্রগতি গেল যথা উচ্চৈঃশ্রবা হয়।। তুরঙ্গের পুচ্ছ ছিল ধবল বরণ। ঢাকিল তাহার বর্ণ যত নাগগণ।। নিঃশ্বাসেতে কৃষ্ণাঙ্গ হইল উচ্চৈঃশ্রবা। লুকাইল পূর্ব্বের ধবল-ইন্দুআভা।। হেথায় বিনতা কদ্রু উঠিয়া প্রভাতে। ক্রোধযুক্ত গেল দোঁহে তুরঙ্গ দেখিতে।। পথে যেতে...

০১৮. গরুড়ের জন্ম ও সূর্য্যের রথে অরুণের সারথ্য

হেনমতে দাসীপণে আছেন বিনতা। মহাবীর গরুড়ের জন্ম হৈল হেথা।। ডিম্ব ফাটি বাহির হইল আচম্বিতে। দেখিতে দেখিতে কায় লাগিল বাড়িতে।। প্রাতঃ হৈতে ক্রমে যেন সূর্য্যতেজ বাড়ে। বনে অগ্নি দিলে যেন দশদিক বেড়ে।। কামরূপী বিহঙ্গম মহাভয়ঙ্কর। নিশ্বাসে উড়িয়া যায় পর্ব্বত-শিখর।। বিদ্যুত আকার...

০১৯. সুধা আনিতে গরুড়ের স্বর্গে গমন

অরুণে লইয়া তবে বিনতা-নন্দন। সূর্য্যরথে যত্ন করি করিল স্থাপন।। সপ্ত-অশ্ব করিয়ালি ধরি বাম হাতে। রহিল অরুণ সে সারথি হৈয়া রথে।। সূর্য্যরথে সহোদরে রাখ পক্ষিরাজ। জননীর ঠাঁই গেল ক্ষীর-সিন্ধু-মাঝ।। দুঃখিত জননী দেখি মলিন-বদন। মায়ের চরণ গিয়া করিল বন্দন।। পুত্রে দেখি বিনতার...

০২০. গজ-কচ্ছপের বিবরণ

বিভাবসু সুপ্রতীক দুই সহোদর। মহাধনে ধনী দোঁহে মুনির কোঙর।। শত্রুগণ দোঁহারে করিল ভেদাভেদ। ধনের কারণে দোঁহে হইল বিচ্ছেদ।। সুপ্রতীক কনিষ্ঠ সে পৃথক হইল। আপনার সমুচিত বিভাগ মাগিল।। শত্রুগণ বলিল, অনেক ধন আছে। আপন উচিত ভাগ ছাড়ি দেহ পাছে।। বিভাবসু জ্যেষ্ঠ কহে, এ ভাগ উহার।...