২১৮. অর্জুনের প্রভাসে আগমন—কৃষ্ণসাক্ষাৎকার

২১৮. অর্জুনের প্রভাসে আগমন—কৃষ্ণসাক্ষাৎকার

অষ্টাদশাধিকদ্বিশততম অধ্যায়।

বৈশম্পায়ন কহিলেন, মহারাজ! অনন্তর অমিতবিক্রম অর্জুন ক্রমে কমে অপরান্ত প্রদেশস্থ সমস্ত তীর্থ ও পবিত্র আয়তনে গমন করিলেন। পশ্চিম সমুদ্রের উপকূলে যে সমস্ত তীর্থ ও পুণ্যায়তন আছে, সেই সমস্ত স্থানও পর্যটন করিয়া পরিশেষে এসে উপস্থিত হইলেন। প্রিয়সখা অর্জুন এভাসে আসিয়াছেন শুনিয়া, বৃবিংশাবতংস কৃষ্ণ তথায় গমন করিলেন। কৃষ্ণার্জুন সাক্ষাৎকার লাভে পরম পরিতোষে পরম্পর আলিঙ্গন ও কুশল জিজ্ঞাসা করিয়া সেই স্থানে অবস্থিতি করিলেন। পরে কৃষ্ণ প্রিয়সখা অর্জুনকে জিজ্ঞাসা করিলেন, হে অর্জুন! তুমি কি নিমিত্ত এই সমস্ত তীর্থ পৰ্যটন করিতেছ? অর্জন বাসুদেব-সমক্ষে আপনার তীৰ্থপৰ্যটনবৃত্তান্ত আদ্যোপান্ত সমস্ত কীর্তন করিলেন। তাহা শ্রবণ করিয়া কৃষ্ণ সঙ্গত হইয়াছে বলিয়া তাকে প্রত্যুত্তর দিলেন। তৎপরে তাঁহারা প্রভাসে স্বেচ্ছানুসারে বিহার করিয়া বাসা রৈবতক পর্বতে উপস্থিত হইলেন। বাদেবের আদেশানুসারে তদীয় অধিকৃত পুরুষেরা ইতিপূর্বেই রৈবতক-পর্বত সুসজ্জিত ও আহার সামগ্ৰীসকল আহরণ করিয়া রাখিয়াছিল। অর্জুন সেই সমস্ত ভোজনীয় দ্রব্য গ্রহণ ও উপযোগ করিয়া কৃষ্ণের সহিত নগণের নৃত্যগীত দর্শন ও শ্রবণ করিলেন। তৎপরে তাহাদিগকে সমুচিত সৎকার ও পারিতোষিক প্রদানপূর্বক বিদায় করিয়া সুপরিচ্ছন্ন শয়নমন্দিরে গমন করিলেন। তথায় দুগ্ধফেণধবল শয্যায় শয়ন করিয়া প্রিয় সখার নিকট বহুতর নদী, পল, পৰ্বত ও বনবৃতান্ত সকল বর্ণন করিতে লাগিলেন। সেই স্বর্গসন্নিভ শয্যায় শয়ান অর্জুন যথাবস্তৃতান্ত সকল বর্ণন করিতে করিতে নিদ্রায় বিচেতন হইলেন। প্রভাতকালে সুমধুর সঙ্গীতধ্বনি, বীণাবাদ ও মঙ্গল স্তুতিবাদ্বারা প্রতিবোধিত হইলেন।

অনন্তর অর্জুন তৎকালোচিত সন্ধ্যাবন্দনাদি কাৰ্য্য সমাধানন্তর বাসুদেব কর্তৃক অভিনন্দিত হইয়া কাঞ্চননির্মিত রথে আরোহণ পূর্বক দ্বারকায় যাত্রা করিলেন। তাঁহার সৎকায়ার্থ দ্বারকাপুরী ও তত্ৰত্য ক্রীড়াকাননসকল অলঙ্কত ও সুশোভিত হইল। অর্জুন পুর প্রবেশ করিলে তাহাকে দেখিবার নিমিত্ত দ্বারকাবাসী শত সহস্র লোক সত্বর রাজমার্গে আগমন করিতে লাগিল। অন্ধক, ভোত ও বৃঞ্চিবংশীয় শহিলাগণ গবাক্ষরে দণ্ডায়মান রহিল। অলুন এইরূপে যাদবগণ কর্তৃক সমাদৃত ও সংকৃত হইয়া নমস্য। বর্গকে নমস্কার করিলেন। তৎপরে রাজকুমারেয়া আসিয়া তাঁহার সৎকার করিলেন। অর্জুন সমস্ত সমবয়স্কৃদিগকে আলিঙ্গন করিয়া কৃষ্ণের সহিত সুরম্য হৰ্ম্মে কতিপয় দিবস সুখে অতিবাহিত করিতে লাগিলেন।

অর্জুনবনবাস পর্বাধ্যায় সমাপ্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *