২৩৪. পুত্রদিগের প্রতি মন্দপালের সান্ত্বনা, দেবরাজ ইন্দ্রের অর্জুনকে অস্ত্রদান-প্রতিশ্রুতি

২৩৪. পুত্রদিগের প্রতি মন্দপালের সান্ত্বনা, দেবরাজ ইন্দ্রের অর্জুনকে অস্ত্রদান-প্রতিশ্রুতি চতুস্ত্রিংশদধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন,–মহর্ষি মন্দপাল পুত্রগণের সান্ত্বনার নিমিত্ত প্ৰবোধবাক্যে কহিতে লাগিলেন, হে পুত্রগণ! পূর্বে আমি তোমাদের রক্ষার নিমিত্ত...

২৩৩. পুত্রনাশশঙ্কায় মন্দপালের বিলাপ, পুত্রগণ সমীপে মন্দপালের আগমন

২৩৩. পুত্রনাশশঙ্কায় মন্দপালের বিলাপ, পুত্রগণ সমীপে মন্দপালের আগমন ত্রয়স্ত্রিংশদধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, এদিকে মহর্ষি মন্দপাল স্বীয় পুত্র চতুষ্টয়ের নিমিত্ত সাতিশয় চিন্তাকুল হইলেন। তিনি পুত্রগণের পরিত্রাণাৰ্থ অগ্নির নিকট নিবেদন করিয়াও তৎকালে মনে মনে অসুখী...

২৩২. শার্ঙ্গকগণের অগ্নিস্তব

২৩২. শার্ঙ্গকগণের অগ্নিস্তব দ্বাবিংশদধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, মহারাজ! প্রজ্বলিত হুতাশন অরণ্যানী দগ্ধ করিতে করিতে ক্রমশঃ মহর্ষি মন্দপালের পুত্র শার্ঙ্গকচতুষ্টয়ের সমীপবর্তী হইলে তাহাদের সর্বজ্যেষ্ঠ জরিতারি পাবকসন্নিধানে ভ্রাতাদিগকে কহিতে লাগিলেন, বিপৎকাল...

২৩১. পুত্রগণ কর্তৃক জননীকে আশ্বাস-প্রদান

২৩১. পুত্রগণ কর্তৃক জননীকে আশ্বাস-প্রদান একত্রিংশধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন,—দীনা জরিতা পুত্রগণের এই প্রকার কাতরোক্তি শ্রবণানন্তর তাহাদিগকে কহিলেন, হে বৎসগণ! একদা এই গৰ্ত্ত হইতে সেই মূষিক বহির্গত হইয়াছিল, সেই সময়ে একটা শ্যেনপক্ষী তাহাকে শিকার করিয়া লইয়া...

২৩০. খাণ্ডবাগ্নিনির্মুক্ত শার্ঙ্গকগণ-বৃত্তান্ত, আত্মরক্ষার্থ শার্ঙ্গক-জননীর উপদেশ

২৩০. খাণ্ডবাগ্নিনির্মুক্ত শার্ঙ্গকগণ-বৃত্তান্ত, আত্মরক্ষার্থ শার্ঙ্গক-জননীর উপদেশ ত্রিংশদধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, হে রাজন্! তদনন্তর ভগবান হুতাশন প্রবলবেগে প্রজ্বলিত হইয়া উঠিলে, সেই শার্ঙ্গকচতুষ্টয় আপনাদিগকে অশরণ বোধ করিয়া সাতিশয় দুঃখিত ও উৎকণ্ঠিতচিত্ত...

২২৯. মহর্ষি মন্দপালের উপাখ্যান, অপুত্রক মন্দপালের অগতি, শার্ঙ্গকচতুষ্টয়ের উৎপত্তি

২২৯. মহর্ষি মন্দপালের উপাখ্যান, অপুত্রক মন্দপালের অগতি, শার্ঙ্গকচতুষ্টয়ের উৎপত্তি ঊনত্রিংশধিকদ্বিশততম অধ্যায়। জনমেজয় জিজ্ঞাসা করিলেন, হে ব্ৰহ্মন্! সেই খাণ্ডববন দাহকালে অশ্বসেন ও ময়দানব যেরূপে পরিত্রাণ পাইল, তাহা শুনিয়াছি; এক্ষণে শার্ঙ্গদিগের অনাময় কারণ শ্রবণ করিতে...

২২৮. খাণ্ডবযুদ্ধে দেবগণের পরাজয়, দৈববাণী অনুসরণে ইন্দ্রের যুদ্ধবিরতি, অর্জুন কর্তৃক ময়দানবের মুক্তি

২২৮. খাণ্ডবযুদ্ধে দেবগণের পরাজয়, দৈববাণী অনুসরণে ইন্দ্রের যুদ্ধবিরতি, অর্জুন কর্তৃক ময়দানবের মুক্তি অষ্টাবিংশত্যধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, খাণ্ডবারণ্যনিবাসী দানব, রাক্ষস, নাগ, তরক্ষু, ভল্লুক, মদস্রাবী হস্তী, শার্দুল ও সিংহ প্রভৃতি জন্তুগণ এবং অন্যান্য...

২২৭. খাণ্ডববনে ইন্দ্রের বারিবর্ষণ, অর্জুনের বিরুদ্ধে দেবগণের যুদ্ধ

২২৭. খাণ্ডববনে ইন্দ্রের বারিবর্ষণ, অর্জুনের বিরুদ্ধে দেবগণের যুদ্ধ সপ্তবিংশত্যধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, তদনন্তর অর্জুন অসংখ্য শরবণবায় বারিবর্ষণ, নিবারণ করিলেন। যেমন নীহারজালে চন্দ্রমা সমাচ্ছন্ন হয়েন, তদ্রূপ অর্জুন শরজাল বিস্তারপূর্বক সমস্ত খাণ্ডবরন...

২২৬. খাণ্ডবারণ্যবাসী প্রাণীদিগের দাহ, ইন্দ্রের খাণ্ডববহ্নিনির্বাণ-প্রয়াস

২২৬. খাণ্ডবারণ্যবাসী প্রাণীদিগের দাহ, ইন্দ্রের খাণ্ডববহ্নিনির্বাণ-প্রয়াস ষড়বিংশত্যধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, কৃষ্ণ ও অর্জুন রথদ্বয়ে আরোহণপূর্বক খাণ্ডববনের উভয়পার্শ্বে থাকিয়া নানাবিধ প্রাণিগণ দগ্ধ করাইতে আরম্ভ করিলেন। খণ্ডবারণ্যবাসী জন্তুগণকে যে দিকে পলায়ন...

২২৫. অর্জুনের গাণ্ডীবলাভ, কৃষ্ণের গদাচক্রগ্রহণ

২২৫. অর্জুনের গাণ্ডীবলাভ, কৃষ্ণের গদাচক্রগ্রহণ পঞ্চবিংশত্যধিকদ্বিশততম অধ্যায়। বৈশম্পায়ন কহিলেন, ভগবান হুতাশন অর্জুনকর্তৃক এইরূপ অভিহিত হইয়া উদকমধ্যবাসী জলেশ্বর বরুণদেবকে স্মরণ করিলেন। চতুর্থ লোকপাল সরু তাহার চিন্তা অবগত হইয়া তৎক্ষণাৎ তথায় উপস্থিত হইলেন। ভগবান হুতাশন...
মোট 183 / 112345...102030...শেষ »