ধর রে অধর চাঁদেরে অধরে অধর দিয়ে

ধর রে অধর চাঁদেরে অধরে অধর দিয়ে।। ক্ষীরোদ মৈথুনের ধারা ধরা রে রসিক নাগরা সে রসেতে অধর ধরা দেখরে সচেতন হয়ে।।(1) অরসিকের ভোলে ভুলে ডুবিসনে কুপ-নদীর(2) জলে কারণ বারির মধ্যস্থলে ফুটেছে ফুল অচিন দলে চাঁদ-চকোরা তাহে খেলে প্ৰেম-বাণে প্ৰকাশিয়ে।। নিত্য ভেবে নিত্য থেকো লীলার...

ধন্য ধন্য বলি তারে

ধন্য ধন্য বলি তারে। বেঁধেছে এমন ঘর শূন্যের উপর পোজতা করে।। ঘরের সবে মাত্র একটি খুঁটি খুঁটি গোড়ায় নাইরে মাটি কিসে ঘর রবে খাঁটি ঝড় তুফান এলে পরে।। ঘরে মূলাধার কুঠরি নয়টা তার উপরে চিলেকোঠা তাহে এক পাগলা বেটা বসে একা একেশ্বরে।। ঘরে নীচে উপর সারি সারি সাড়ে নয় দরজা...

দেখবি যদি সে চাঁদেরে। যা, যা কারণ-সমুদ্রের পারে।। কারুণ্য তারুণ্য আড়ি যে জন দিতে পারে পাড়ি সেই বটে সাধক এড়ায় ভাব-রোগ বসত হবে তার অমর-নগরে।। এক নদীর তিন বইছে ধারা নাইকো নদীর কুল-কিনারা বেগে তুফান ধায় দেখে লাগে ভয় পার হও যদি, সাজাও প্রেমের তরী রে।। মায়ার গেরাফি কাট...

দেখ না রে ভাব না রে ভাবের কীর্তি

দেখ না রে, ভাব না রে ভাবের কীর্তি। জলের ভিতরে রে জুলছে বাতি।।(1) ভাবের মানুষ ভাবের খেলা ভাসে বসে দেখ নিরালা নীরে-ক্ষীরোতে ভেলা রয় যুতি।। জ্যোতিতে রতি উদয় সামান্যে কি তাই জানা যায় তাতে কত রূপ দেখা যায় লাল মোতি।। যখন নিঃশব্দে শব্দেরে খাবে তখন ভবের খেলা ভেঙ্গে যাবে।...

দিল-দরিয়ায় ডুবিলে সে দরের খবর পায়

দিল-দরিয়ায় ডুবিলে সে দরের খবর পায়।। নইলে পুথি পড়ে পণ্ডিত হইলে কি হয়।। স্বয়ং রূপ দৰ্পণে ধরে মানব রূপ সৃষ্টি করে, (হে) দিব্যজ্ঞানী যারা ভাবে বোঝে তারা মানুষ ভজে কার্যসিদ্ধি করে যায়।। একেতে হয় তিনটি আকার অযোগী সহজ সংস্কার (হে) যদি ভাব-তরঙ্গে তারো মানুষ চিনে ধর...

দিল দরিয়ায় ডুবে দেখ না

দিল দরিয়ায় ডুবে দেখ না। অতি অজান খবর যাবে জানা।। আলখানার শহর ভারি তাহে আজব কারিগরি উত্তরায় পানি নাই ভিটে ডোবে ভাই কি প্ৰত্যারি এ কারখানা।। ত্ৰিবেণীর পিছন ঘাটে বিনে হাওয়ায় সোজা ছোটে ওরে বোবায় কথা কয় কালায় শুনতে পায় আধলাতে পরখ করছে সোনা।। কহিবার যোগ্য নয় সে কথা...

দীনের ভাব যেদিন উদয় হবে

দীনের ভাব যেদিন উদয় হবে, সেইদিনে মন ঘোর অন্ধকার ঘুচে যাবো। মণিহারা। ফণীর মতন তেমতি ভাব-রাগের কারণ অরুণ বসন ধারণ বিভূতি ভূষণ লবে।। অঙ্গে ধারণ করা বেহাল হৃদয়ে জ্বালো প্রেমের মশাল দু নয়ন হইবে উজ্জ্বল, মুর্শিদ-বস্তু দেখতে পাবে।। সাঁই সিরাজের হকের চরণ ভেবে কহে ফকির লালন...

দম কষে তুই বয়রে ক্ষেপা প্রেমের নদীতে

দম কষে তুই বয়রে ক্ষেপা প্রেমের নদীতে। করবি যদি তুই মীন-মক্করা, কাম রেখে আয় তফাতে।। গহীণ জলে বাস করে মীন গুরু বলে ছাড়তেছে ঝিম মীন ধরা দেয় তার হাতে।। কাম ক্ৰোধ লোভ মায়া মোহ এই কয় জন দেহের অবাধ্য প্রেম-আগুনে হয়ে দগ্ধ জব্দ রবি তার হাতে।। লালনের বুদ্ধি কাণ্ড জল করেছে...

তিন দিনের তিন মরম জেনে

তিন দিনের তিন মরম জেনে, রসিক সাধলে ধরে তা একদিনে।। অকৈতব সে ভেদের কথা কইতে মৰ্মে লাগে ব্যথা আবার না কৈলে জীবের নাহিক নিস্তার কয় সেইজন্যে : তিনশ’ ষাট রসের মাঝার তিন রস গণ্য নয় রসিকার সাধিলে সে কারণ এড়াইবে শমন এ ভুবনে।। অমাবস্যা প্ৰতিপদ দ্বিতীয়ার প্রথমে সেত অধীন...

তরিকতে দাখিল হলে সকল জানা যায়

তরিকতে দাখিল হলে সকল জানা যায় কেনরে মন কোলের ঘোরে ঘোর ডানে বাঁয়।। আউয়ালে বিসমিল্লা ব্যক্ত মূল বটে তার তিনটি অর্থ। আগমে বলেছে সত্য ডুবে জানতে হয়।। নবী আদম খোদ বা খোদা এ তিন কিছু নহেক জুদা আদমকে করিলে সেজদা সালেক জনে পায়।। যথা সালেক মোকাম বাড়ী সফিউল্লাহ তাহার সিঁড়ি...
Page 1 of 3412345...Last »