জীবনানন্দ দাশ কবিতা । জীবনানন্দ রচনাবলী । জীবনানন্দ রচনাসংগ্রহ

জীবনানন্দ দাশ । Jibanananda Das

জীবনানন্দ দাশ রচনাবলী – সাম্প্রতিক আপডেট

০১. সারাদিন মাল্যবানের মনেও ছিল না

সারাদিন মাল্যবানের মনেও ছিল না; কিন্তু রাতের বেলা বিছানায় শুয়ে অনেক কথার মধ্যে মনে হল বেয়াল্লিশ বছর আগে ঠিক এই দিনেই সে জন্মেছিল—বিশে অঘ্রাণ আজ। জীবনের বেয়াল্লিশটি বছর তাহলে চলে গেল। রাত প্রায় একটা। কলকাতার শহরে বেশ শীত, খেয়ে-দেয়ে কম্বলের নীচে গিয়েছে সে প্রায় গোটা...

আদিম

আদিম প্রথম মানুষ কবে এসেছিল এই সবুজ মাঠের ফসলের উৎসবে! দেহ তাহাদের এই শস্যের মতো উঠেছিল। ফলে, এই পৃথিবীর ক্ষেতের কিনারে, সবজির কোলে কোলে এসেছিল তারা ভোরের বেলায় রৌদ্র পোহাবে ব’লে— এসেছিল তারা পথ ধরে এই জলের গানের রবে! এই পৃথিবীর ভাষা ভালোবেসেছিল, ভালো লেগেছিল এ মাটির...

পরবাসী

পরবাসী যাহাদের পায়ে পায়ে চলে চলে জাগিয়াছে আঁকাবাঁকা চেনা পথগুলি দিকে দিকে পড়ে আছে যাহাদের দেহমাটি—করোটির ধূলি, যাহারা ভেনেছে ধান গান গেয়ে—খুঁটেছে পাখির মতো মিঠে খুদকুঁড়া, যাহাদের কামনায় ইশারায় মাটি হল পানপাত্র, শষ্প হল সুরা! ছুঁয়ে ছেনে বারবার এ ভাঁড়ার করে গেছে...

কবি

কবি বীণা হাতে আমি তব সিংহাসনতলে কালে কালে আসি কবি--কভু পরি গলে জয়মালা, কভু হিংস্র নির্দয় বিদ্রূপ তুলে লই অকুণ্ঠিতে, খুঁজে ফিরি রূপ সৃজনের ছায়াধূপে, আকাশে আলোকে, ধরণী, ড়ুকারি ওঠে যে ব্যর্থতা-শোকে, তারও মাঝে স্বপ্ন খুঁজি, বীণাতারে বুনি তারও সুর,--আনুমনে গান গাই গুণী!...

পলাতকা

পলাতকা পাড়ার মাঝারে সব চেয়ে সেই কুঁদুলি মেয়েটি কই! কত দিন পরে পল্লীর পথে ফিরিয়া এসেছি ফের— সারাদিনমান মুখখানি জুড়ে ফুটিত যাহার খই কই, কই বালা আজিকে তোমার পাই না কেন গো টের! তোমার নখের আঁচড় আজিও লুকায়ে যায় নি বুকে, কাঁকন-কাঁদানো কণ্ঠ তোমার আজিও বাজিছে কানে! যেই গান...

যুবা অশ্বারোহী

যুবা অশ্বারোহী যুবা অশ্বারোহী, রাঙা কঙ্করের পথে কোন ব্যথা বহি ফিরিতেছ একা একা নদীতীরে--সাঁঝে। তোমারে চিনি না মোরা, আমাদের মাঝে তোমারে পাই নি খুঁজে, দুপুরের রূঢ় কলরবে নগরীর পথে মোরা নামিয়াছি যবে, বন্দরের কোলাহলে--বেসাতির ফাঁদে আধো হর্ষে—আধেক বিষাদে বিকিকিনি করিয়াছি...