হিমুকে নিয়ে হ্যালো-টুডেতে

হুমায়ুন আহমেদ উপন্যাস ও নাটকের জন্যে কয়েকটি চরিত্র তৈরি করে তিনি ব্যাপক আলোচিত হয়েছিলেন। চরিত্রগুলোর মধ্যে অন্যতম হিমু । নন্দিত এই কথা শিল্পী হিমু চরিত্র নিয়ে কি ভাবেন? হিমু কে নিয়ে হ্যালো-টুডেতে দেয়া হুমায়ুন আহমেদের সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হল ।

তাকে জিজ্ঞেস করা হয়,’আপনার উপন্যাসের জনপ্রিয় চরিত্র হিমু।এটা কি নিছক কাল্পনিক?না আপনি এর মধ্য দিয়ে আপনার পরিচিত কাউকে তুলে ধরেছেন?’

হুমায়ুন আহমেদের উত্তর,’না হিমুতে আমি আসলে পরিচিত কাউকে তুলে ধরি নাই,যে হিমু আমি লিখি আসলে সে হিমু হওয়া একটা জটিল ব্যাপার।মানুষের অনেক ইচ্ছা পূরনের ব্যাপার আছে,মানুষ করতে চায় কিন্তু করতে পারে না।এই যে ইচ্ছাগুলি আছে,আমি হিমুর মাধ্যমে এই ইচ্ছাপূরন গুলি ঘটাই।

পাঠকদের কাছে হিমুর এত জনপ্রিয়তার কারন কি বলে আপনার ধারনা?

-যে কারনে আমার ধারনা পাঠকরা এত পছন্দ করে,এরা হতে চায়,করতে চায়।এরা চায় যে আমার আধ্যাত্বিক ক্ষমতা থাকবে,আমি মানুষের ভূত ভবিষ্যত বলে দিতে পারবো।সবার মনের একটা গোপন বাসনা পথে ঘাটে আমি হেটে বেঁড়াবো,কেউ আমাকে কিছু বলবে না।আমাকে কোনো চাকরি করতে হবে না।কোনো কিছুই করতে হবে না,আমার জীবন চলবে জীবনের মত।এই যে গোপন ইচ্ছাগুলি থাকে এইগুলি আমি পূরন করি হিমু উপন্যাসে।’

আচ্ছা মি.আহমেদ,হিমু তো আপনার পাঠকদের কাছে অনুকরনীয় চরিত্র হয়ে দাড়িয়েছে।এই হিমুকে নিয়ে বিশেষ কোন ঘটনা আছে কি যা আপনাকে নাড়া দিয়েছে?

-হ্যা,একটা বলা যেতে পারে।আমি একবার একটা ম্যাগাজিন পেলাম রাশিয়া থেকে,ঐ ম্যাগাজিনে দেখি ওদের রাশিয়াতে একটা হিমু ক্লাব আছে।হিমু ক্লাবের ছেলেমেয়েরা কিন্তু সব রাশিয়ান,বাংলাদেশি না।এরা একটি অনুষ্ঠান করেছিল যাতে সব অ্যাম্বাসেডরদের ডেকেছে,সেখানে সব অ্যাম্বাসেডরদের হলুদ কাপড় পড়ে আসতে হবে। এর পর যারা যারা হলুদ কাপড় পড়ে আসেনি তাদের সবাইকে একটা করে হলুদ টাই দেয়া হয়েছে।এটা পড়ে আমি ধাক্কার মত খেয়েছিলাম।

হিমুকে নিয়ে আর কোনো স্মরনীয় ঘটনা কি আছে?

– আরেকটা ঘটনা মনে পড়ছে।জার্মানীতে আমি একবার গিয়েছিলাম ফ্রাংক ফুড বইমেলায়।অনেক ঠান্ডা তখন সেখানে।বরফ পড়ছে এমন অবস্থা।সেখানে হলুদ একটা কোট পড়ে এসে একজন আমাকে বললো,’স্যার আমি হিমু।’আমি বললাম,’হিমু?হিমুর তো পা খালি থাকে।’ছেলেটা বললো যে,’স্যার দেখেন’।আমি তখন একটা ধাক্কার মত খেলাম যে এই ঠান্ডায়ও তার পা খালি।’

স্যার কখনো অবসর নেবেন?

-হ্যা অবসর নেব। মৃত্যুর এক ঘন্টা বা দুই ঘন্টা আগে নেব,আমি চাই মৃত্যুর এক ঘন্টা আগেও যেন আমি এক লাইন হলেও বাংলা গদ্য লিখে যেতে পারি।’

হুমায়ুন আহমেদ বলেছিলেন, মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগ পর্যন্ত তার লিখে যাওয়ার ইচ্ছা। তিনি জানিয়েছিলেন, তার লেখার শেষ লাইনটি কী হবে সেটাও তিনি ঠিক করে রেখেছেন।

[সংগ্রহ : আনোয়ার জাহান ঐরি, চলন্তিকা ডট কম।]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *