০৪০. সূরা মুমিন

সূরা মুমিন বা বিশ্বাসী - ৪০
৮৫ আয়াত, ৯ রুকু , মক্কী
[ দয়াময়, পরম করুণাময় আল্লাহ্‌র নামে ]
ভূমিকা : এই সূরার নামকরণ করা হয়েছে মুমিন বা বিশ্বাসী ; অবিশ্বাসী ফেরাউনের লোকদের মাঝে একজনের ব্যক্তিগত বিশ্বাস বা ঈমানের নাম অনুসারে, যে নিজেকে বিশ্বাসী বলে ঘোষণা করে এবং ভবিষ্যতের পানে দৃষ্টিকে প্রসারিত করে [ আয়াত ২৮-৪৫ ]। এই সূরার আর একটি নাম হচ্ছে গাফির [Gafir] বা যিনি ক্ষমা করেন [ দেখুন আয়াত নং ৩ ]। সূরা ২৩ নং এ বহুবচনে বিশ্বাসীগণকে বলা হয়েছে মুমিনুন [ Muminun ] , যেখানে যুক্তি উত্থাপন করা হয়েছে গুণের সমষ্টিগত শক্তির উপরে যা ঈমানের মূল ভিত্তি। এই আয়াতে তুলে ধরা হয়েছে ব্যক্তিগত বিশ্বাস ও গুণরাজি যা ব্যক্তিকে সাফল্যের দ্বার প্রান্তে নিয়ে যায়।
এই সূরা থেকে শুরু হচ্ছে সাতটি সূরার একটি শ্রেণী [সূরা নং ৪০ -৪৬ ]। এই সাতটি সূরার প্রারম্ভে হা-মীম [ Ha – Mim ] অক্ষর দ্বয়কে স্থাপন করা হয়েছে। কালক্রমানুসারে এই সকল সূরার সময়কাল প্রায় একই সময়। তা হচ্ছে মক্কার শেষ সময়কাল। হা-মীম্‌ শব্দটির প্রকৃত কোন ব্যাখ্যা করা সম্ভব হয় নাই , এর ব্যাখ্যা একমাত্র আল্লাহই জানেন।
এই শ্রেণীর সূরাগুলির মূল বিষয়বস্তু হচ্ছে মানুষের সাথে বিশ্বাস ও অবিশ্বাসের সম্পর্ক ,ভালো ও মন্দের সম্পর্ক, সত্য ও মিথ্যার সম্পর্ক ,প্রত্যাদেশ গ্রহণ ও প্রত্যাখানের সম্পর্ক। এই জোড়া শব্দগুলির প্রথম শব্দগুলি মানুষের প্রকৃত বন্ধু এবং দ্বিতীয় শব্দগুলি মানুষের শত্রু।
এই অর্থে 'হা-মিম ' শব্দটি সূরা নং ৪০ ও ৪১ এ ব্যবহৃত হয়েছে [ ৪০ : ১৮ এবং ৪১ : ৩৪ ]। অন্যান্য সূরাতে অন্যান্য শব্দগুলি একই গুরুত্ব বহন করে থাকে যেমন : 'Wali' অথবা 'nasir' [ ৪২ : ৮, ৩১ ] ; 'qarlin'[ ৪৩ : ৩৬ , ৩৮] ; 'maula'[ ৪৪ : ৪১ ] ; 'auliyaa' অথবা 'nasirin'[ ৪৫ : ১৯, ৩৪ ] ; এবং 'anliyaa'[ ৪৬ : ৩২ ]।
সার সংক্ষেপ : বিশ্বাস বা ঈমানই হচ্ছে সঠিক। আল্লাহ্‌ ক্ষমাশীল। মন্দ কাজ মন্দ পরিণাম ডেকে আনে। কারণ আল্লাহ্‌ সর্বজ্ঞাত এবং ন্যায়বান। [ ৪০ : ১ - ২০ ]।
ইতিহাস বলে মন্দ মন্দের নিকট আসবে। মন্দের দ্বারা ঈমান বা বিশ্বাসের প্রতিরোধ প্রত্যাখাত হতে পারে ; কিন্তু বিশ্বাসীকে রক্ষা করবেন স্বয়ং আল্লাহ্‌ এবং মন্দ শেষ পর্যন্ত ধ্বংস হয়ে যাবে। [ ৪০ : ২১ - ৫০ ]
শেষ বিচারের দিন সম্বন্ধে কোনও সন্দেহ নাই। আল্লাহ্‌র ক্ষমতা , দয়া এবং ন্যায় বিচার স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়। মানুষ কি খুব দেরী হয়ে যাওয়ার পূর্বে তা গ্রহণ করবে, না শুধু তর্ক করে যাবে ? [ ৪০ : ৫১ - ৮৫ ]।

040.001

হা-মীম। Ha Mim حم Ha-meem YUSUFALI: Ha Mim PICKTHAL: Ha. Mim. SHAKIR: Ha Mim. KHALIFA: H. M. ০১। হা – মীম । ০২। এই কিতাবের প্রত্যাদেশ অবতীর্ণ হয়েছে মহাপরাক্রমশালী, পরম জ্ঞানী আল্লাহ্‌র নিকট থেকে ৪৩৫৭। ৪৩৫৭। এই আয়াতটি সূরা [ ৩৯ :১ ] আয়াতের অনুরূপ , ব্যতিক্রম...

040.002

কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে আল্লাহর পক্ষ থেকে, যিনি পরাক্রমশালী, সর্বজ্ঞ। The revelation of this Book is from Allah, Exalted in Power, Full of Knowledge,- تَنزِيلُ الْكِتَابِ مِنَ اللَّهِ الْعَزِيزِ الْعَلِيمِ Tanzeelu alkitabi mina Allahi alAAazeezi alAAaleemi YUSUFALI: The...

040.003

পাপ ক্ষমাকারী, তওবা কবুলকারী, কঠোর শাস্তিদাতা ও সামর্থøবান। তিনি ব্যতীত কোন উপাস্য নেই। তাঁরই দিকে হবে প্রত্যাবর্তন। Who forgiveth sin, accepteth repentance, is strict in punishment, and hath a long reach (in all things). there is no god but He: to Him is the final...

040.004

কাফেররাই কেবল আল্লাহর আয়াত সম্পর্কে বিতর্ক করে। কাজেই নগরীসমূহে তাদের বিচরণ যেন আপনাকে বিভ্রান্তিতে না ফেলে। None can dispute about the Signs of Allah but the Unbelievers. Let not, then, their strutting about through the land deceive thee! مَا يُجَادِلُ فِي آيَاتِ...

040.005

তাদের পূর্বে নূহের সম্প্রদায় মিথ্যারোপ করেছিল, আর তাদের পরে অন্য অনেক দল ও প্রত্যেক সম্প্রদায় নিজ নিজ পয়গম্বরকে আক্রমণ করার ইচ্ছা করেছিল এবং তারা মিথ্যা বিতর্কে প্রবৃত্ত হয়েছিল, যেন সত্যধর্মকে ব্যর্থ করে দিতে পারে। অতঃপর আমি তাদেরকে পাকড়াও করলাম। কেমন ছিল আমার...

040.006

এভাবে কাফেরদের বেলায় আপনার পালনকর্তার এ বাক্য সত্য হল যে, তারা জাহান্নামী। Thus was the Decree of thy Lord proved true against the Unbelievers; that truly they are Companions of the Fire! وَكَذَلِكَ حَقَّتْ كَلِمَتُ رَبِّكَ عَلَى الَّذِينَ كَفَرُوا أَنَّهُمْ أَصْحَابُ...

040.007

যারা আরশ বহন করে এবং যারা তার চারপাশে আছে, তারা তাদের পালনকর্তার সপ্রশংস পবিত্রতা বর্ণনা করে, তার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে এবং মুমিনদের জন্যে ক্ষমা প্রার্থনা করে বলে, হে আমাদের পালনকর্তা, আপনার রহমত ও জ্ঞান সবকিছুতে পরিব্যাপ্ত। অতএব, যারা তওবা করে এবং আপনার পথে চলে,...

040.008

হে আমাদের পালনকর্তা, আর তাদেরকে দাখিল করুন চিরকাল বসবাসের জান্নাতে, যার ওয়াদা আপনি তাদেরকে দিয়েছেন এবং তাদের বাপ-দাদা, পতি-পত্নী ও সন্তানদের মধ্যে যারা সৎকর্ম করে তাদেরকে। নিশ্চয় আপনি পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়। “And grant, our Lord! that they enter the Gardens of...

040.009

এবং আপনি তাদেরকে অমঙ্গল থেকে রক্ষা করুন। আপনি যাকে সেদিন অমঙ্গল থেকে রক্ষা করবেন, তার প্রতি অনুগ্রহই করবেন। এটাই মহাসাফল্য। “And preserve them from (all) ills; and any whom Thou dost preserve from ills that Day,- on them wilt Thou have bestowed Mercy indeed: and...

040.010

যারা কাফের তাদেরকে উচ্চঃস্বরে বলা হবে, তোমাদের নিজেদের প্রতি তোমাদের আজকের এ ক্ষোভ অপেক্ষা আল্লার ক্ষোভ অধিক ছিল, যখন তোমাদেরকে ঈমান আনতে বলা হয়েছিল, অতঃপর তোমরা কুফরী করছিল। The Unbelievers will be addressed: “Greater was the aversion of Allah to you than...

040.011

তারা বলবে হে আমাদের পালনকর্তা! আপনি আমাদেরকে দু’বার মৃত্যু দিয়েছেন এবং দু’ বার জীবন দিয়েছেন। এখন আমাদের অপরাধ স্বীকার করছি। অতঃপর এখন ও নিস্কৃতির কোন উপায় আছে কি? They will say: “Our Lord! twice hast Thou made us without life, and twice hast Thou given us Life!...

040.012

তোমাদের এ বিপদ এ কারণে যে, যখন এক আল্লাহকে ডাকা হত, তখন তোমরা কাফের হয়ে যেতে যখন তার সাথে শরীককে ডাকা হত তখন তোমরা বিশ্বাস স্থাপন করতে। এখন আদেশ তাই, যা আল্লাহ করবেন, যিনি সর্বোচ্চ, মহান। (The answer will be:) “This is because, when Allah was invoked as the...

040.013

তিনিই তোমাদেরকে তাঁর নিদর্শনাবলী দেখান এবং তোমাদের জন্যে আকাশ থেকে নাযিল করেন রুযী। চিন্তা-ভাবনা তারাই করে, যারা আল্লাহর দিকে রুজু থাকে। He it is Who showeth you his Signs, and sendeth down sustenance for you from the sky: but only those receive admonition who turn...

040.014

অতএব, তোমরা আল্লাহকে খাঁটি বিশ্বাস সহকারে ডাক, যদিও কাফেররা তা অপছন্দ করে। Call ye, then, upon Allah with sincere devotion to Him, even though the Unbelievers may detest it. فَادْعُوا اللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ الدِّينَ وَلَوْ كَرِهَ الْكَافِرُونَ FaodAAoo Allaha...

040.015

তিনিই সুউচ্চ মর্যাদার অধিকারী, আরশের মালিক, তাঁর বান্দাদের মধ্যে যার প্রতি ইচ্ছা তত্ত্বপূর্ণ বিষয়াদি নাযিল করেন, যাতে সে সাক্ষাতের দিন সম্পর্কে সকলকে সতর্ক করে। Raised high above ranks (or degrees), (He is) the Lord of the Throne (of Authority): by His Command doth He...

040.016

যেদিন তারা বের হয়ে পড়বে, আল্লাহর কাছে তাদের কিছুই গোপন থাকবে না। আজ রাজত্ব কার? এক প্রবল পরাক্রান্ত আল্লাহর। The Day whereon they will (all) come forth: not a single thing concerning them is hidden from Allah. Whose will be the dominion that Day?” That of...

040.017

আজ প্রত্যেকেই তার কৃতকর্মের প্রতিদান পাবে। আজ যুলুম নেই। নিশ্চয় আল্লাহ দ্রুত হিসাব গ্রহণকারী। That Day will every soul be requited for what it earned; no injustice will there be that Day, for Allah is Swift in taking account. الْيَوْمَ تُجْزَى كُلُّ نَفْسٍ بِمَا...

040.018

আপনি তাদেরকে আসন্ন দিন সম্পর্কে সতর্ক করুন, যখন প্রাণ কন্ঠাগত হবে, দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হবে। পাপিষ্ঠদের জন্যে কোন বন্ধু নেই এবং সুপারিশকারীও নেই; যার সুপারিশ গ্রাহ্য হবে। Warn them of the Day that is (ever) drawing near, when the hearts will (come) right up to the...

040.019

চোখের চুরি এবং অন্তরের গোপন বিষয় তিনি জানেন। ((Allah)) knows of (the tricks) that deceive with the eyes, and all that the hearts (of men) conceal. يَعْلَمُ خَائِنَةَ الْأَعْيُنِ وَمَا تُخْفِي الصُّدُورُ YaAAlamu kha-inata al-aAAyuni wama tukhfee alssudooru YUSUFALI:...

040.020

আল্লাহ ফয়সালা করেন সঠিকভাবে, আল্লাহর পরিবর্তে তারা যাদেরকে ডাকে, তারা কিছুই ফয়সালা করে না। নিশ্চয় আল্লাহ সবকিছু শুনেন, সবকিছু দেখেন। And Allah will judge with (justice and) Truth: but those whom (men) invoke besides Him, will not (be in a position) to judge at all....