০৩৩. সূরা আহযাব

সূরা আহ্‌যাব বা মিলিতশক্তি - ৩৩
৭৩ আয়াত, ৯ রুকু , মাদানী
[দয়াময়, পরম করুণাময় আল্লাহ্‌র নামে ]
ভূমিকা : ২৬ নং সূরা দিয়ে যে শ্রেণীবদ্ধ সূরাগুলির শুরু হয়েছিলো পূর্বের সূরাটি [ ৩২ নং ] ছিলো শ্রেণীর শেষ সূরা। এখন থেকে শুরু হচ্ছে জীবনের কঠিন সত্যের বর্ণনা। এখানে দুটি ধাপে তা বর্ণনা করা হয়েছে। যেমন-
১) শক্তি প্রয়োগ ও প্রচন্ড আক্রোশে সত্যকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা এবং
২) কুৎসা এবং অশোভন আচরণ দ্বারা নারীর চরিত্রে কালিমা লেপন।
প্রথমটিকে সম্বন্ধযুক্ত করা হয় আহ্‌যাব বা মৈত্রিবদ্ধ দুষ্কার্যে সহযোগীদের সাথে। যারা মদিনার মুসলিম সম্প্রদায়কে ধ্বংস করার জন্য গোপন ষড়যন্ত্রে মিলিত হয়। এরা ছিলো, পৌত্তলিক আরব , ইহুদী [ বানু নাদের গোষ্ঠি ] সম্প্রদায়, যাদের মদিনা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিলো তাদের বিশ্বাসঘাতকতার জন্য, , আভ্যন্তরীণ বেদুঈন আরব গোষ্ঠি [গাতাফান গোষ্ঠি ] , এবং মদিনার ইহুদী সম্প্রদায় [ বানু কোরাইজা ]। এই সম্প্রদায় গুলির মৈত্রিবদ্ধ হওয়ার কারণ ছিলো ইসলামের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ হওয়া। যদিও তাদের সংঘবদ্ধ ক্ষমতা অবরুদ্ধ মুসলমানদের দুঃচিন্তা ও কষ্টের কারণ ছিলো , তবুও শেষ পর্যন্ত ইসলাম ধর্ম এই পরীক্ষায় বিজয়ীরূপে স্থান লাভ করে এবং অবস্থানকে আরও সুসংহত ও দৃঢ় করতে সমর্থ হয়।
মক্কার কোরাইশরা মুসলমানদের উপরে অত্যাচারের বিভিন্ন উপায় অবলম্বন করে। তারা মুসলমানদের অবরোধ, অপমান, শারীরিক অত্যাচার এমন পর্যায়ে নিয়ে যায় যে, নব্য মুসলিমদের এক অংশ আবেসিনিয়াতে হিজরত করে। মূসলমানদের এই শত্রুদের সাথে প্রথম মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে বদর প্রান্তে হিজরতের দ্বিতীয় বর্ষে , যেখানে কোরেশদের নিশ্চিত পরাজয় ঘটে। [ দেখুন আয়াত ৩: ১৩ এবং টিকা ৩৫২ ] পরের বছর হিজরতের তৃতীয় বর্ষে তারা প্রতিশোধ নেবার জন্য মদিনাতে আক্রমণ চালায়। ওহদ্‌ প্রান্তরে যুদ্ধ সংঘটিত হয়। যদিও ওহদের যুদ্ধে মুসলমানদের প্রচুর ক্ষয় ক্ষতি ঘটে , তবুও শেষ পর্যন্ত মদিনা রক্ষা পায় এবং কোরাইশরা বিক্ষুব্ধ ও নিরাশা নিয়ে মক্কাতে ফিরে যায়। এরই প্রতিক্রিয়া হিসেবে তারা তাদের মিত্রদের সহযোগে মুসলমানদের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে এবং হিজরীর পঞ্চম বর্ষে সাওয়াল মাসে তাদের মিলিত সৈন্য সহযোগে যা প্রায় ১০,০০০ এর মত ছিলো , তারা মদিনা অবরোধ করে। শত্রুদের এই মিলিত অবরোধকেই উল্লেখ করা হয়েছে [ ৩৩ : ৯- ২৭ ] আয়াতের মাধ্যমে। এই অবরোধ দুসপ্তাহের উপরে স্থায়ী হয়। কেহ কেহ তা ২৭ দিন বলে উল্লেখ করেছেন। এই অবরোধের ফলে মূসলমানেরা ক্ষুধা ও শীতে প্রচন্ড কষ্ট পায়। উপরন্তু তাদের উপরে শত্রুপক্ষের অবিশ্রান্ত তীর নিক্ষিপ্ত হতে থাকে এবং সেই সাথে তীব্রভাবে গালিগালাজ , অপমানজনক বাক্যের স্রোত প্রবাহিত হতে থাকে। দুষ্কর্মে সহযোগী এই মৈত্রিবদ্ধ শক্তি বা আহ্‌যাব শেষ পর্যন্ত ছত্রভঙ্গ অবস্থায় রণে ভঙ্গ দিয়ে ফিরে যায় এবং ইসলামের অবস্থান আরও সুদৃঢ় ও সুসংহত হয়। এই মৈত্রিবদ্ধ শক্তির আক্রমণ ছিলো সুবিন্যস্ত ও সুসংগঠিত, সুপরিচালিত আক্রমণ। কিন্তু মুসলিমরা তা প্রতিহত করার জন্য ভালো প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলেন। এর মধ্যে একটি ছিলো মদিনার চুতর্পাশ্বে পরিখা খনন [খন্দক ] করা যার নির্দ্দেশ দান করেছিলেন আল্লাহ্‌র রাসুল এবং কার্যে পরিণত হয় পারস্যের অধিবাসী সালমানের তত্বাবধানে। সেই কারণে এই অবরোধ এবং যুদ্ধ পরিখার যুদ্ধ নামে খ্যাত।
দ্বিতীয়ত : রসুলের [সা ] সহধর্মীনীদের সমাজে অবস্থান ও সম্মানের কথা আলোচনা করা হয়েছে এবং সেই সাথে মুসলিম নারীদের সম্পর্কে সাধারণ নীতিমালার অবতারণা করা হয়েছে যাতে তাদের সামাজিক সম্মান রক্ষা করা হয়। এবং কুৎসা ও অপমান থেকে সুরক্ষিত করা হয়। রসুলের সহধর্মীনিরা সমাজের সেবার জন্য নিবেদিত ছিলেন। তারা সমাজ সেবামূলক কাজে নিজেদের আত্মনিবেদন করেছিলেন। তাঁরা মুসলমান মহিলাদের এই কাজে আত্মনিয়োগের জন্য অনুপ্রাণীত করেন। মুসলমান মহিলাদের সামাজিক কাজের জন্য প্রশিক্ষণ দান করা হয়। তাঁদের মধ্যে দুজন [দুই যয়নাব ] গরীবের সেবায় আত্ননিয়োগ করেন। সে যুগে যুদ্ধক্ষেত্রে আহত সৈন্যদের সেবা দান করা ছিলো এক জরুরী প্রয়োজনীয় ব্যাপার। রসুলের কন্যা বিবি ফাতেমা ওহদের যুদ্ধের সময়ে ছিলেন মাত্র ১৯-২০ বৎসরের তরুণী। তিনি যুদ্ধক্ষেত্রে গমন করেন এবং আহত পিতার সেবা শুশ্রূষা করেন। এমন কি সপ্তম হিজরীতে সংঘটিত খাইবার অভিযানে মুসলিম রমণীরা আহতদের সেবার জন্য মদিনার বাইরে গমন করেন।
এই সূরার কিছু অংশের সময়কাল হবে পরিখার যুদ্ধের [ সাওয়াল, পঞ্চম হিজরী ] পরে। কারণ এই সূরার পরিখার যুদ্ধের বর্ণনার মাধ্যমে উপদেশ প্রদান করা হয়েছে। বিবি জয়নাবের সাথে রসুলের [সা ] বিবাহের উল্লেখ আছে এই সূরার ৩৭ নং আয়াতে , যা ঐ বছরেই সংঘটিত হয়।
সারসংক্ষেপ : পৌত্তলিক আরবদের বিবাহ সংক্রান্ত পুরাণ প্রথা পরিত্যাগ করতে হবে। পুরুষ ও নারীর সম্পর্ক হবে স্বাভাবিক সম্মানজনক। [ ৩৩ : ১ - ৮ ]।
পরিখার যুদ্ধ এবং এর থেকে প্রাপ্ত উপদেশ : মোনাফেক এবং তাদের ভয়ভীতি ; সত্য এবং মহৎ উদাহরণকে অনুসরণ করতে হবে। [ ৩৩ : ৯ - ২৭ ]।
রসুলের [ সা] স্ত্রীদের জন্য আছে উচ্চ সম্মান : মিথ্যা সংকোচে অসুখী বিবাহ চিরস্থায়ী করার প্রয়োজন নাই। রসুলের [সা ] স্ত্রীদের প্রতি ব্যবহার হবে সংবেদনশীল এবং ভদ্র। [৩৩ : ২৮- ৫২ ]।
রসুল [সা ] এবং তাঁর পরিবারের সম্মান প্রাপ্য : কুৎসা রটনা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ ; তোমাদের বাক্য ও দায়িত্ব সম্বন্ধে সচেতন হও। [৩৩ : ৫৩ - ৭৩ ]।

033.001

হে নবী! আল্লাহকে ভয় করুন এবং কাফের ও কপট বিশ্বাসীদের কথা মানবেন না। নিশ্চয় আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়। O Prophet (Muhammad SAW)! Keep your duty to Allâh, and obey not the disbelievers and the hypocrites (i.e., do not follow their advices). Verily! Allâh is Ever...

033.002

আপনার পালনকর্তার পক্ষ থেকে যা অবতীর্ণ হয়, আপনি তার অনুসরণ করুন। নিশ্চয় তোমরা যা কর, আল্লাহ সে বিষয়ে খবর রাখেন। And follow that which is inspired in you from your Lord. Verily, Allâh is Well­Acquainted with what you do. وَاتَّبِعْ مَا يُوحَى إِلَيْكَ مِن رَّبِّكَ...

033.003

আপনি আল্লাহর উপর ভরসা করুন। কার্যনির্বাহীরূপে আল্লাহই যথেষ্ট। And put your trust in Allâh, and Sufficient is Allâh as a Wakîl (Trustee, or Disposer of affairs). وَتَوَكَّلْ عَلَى اللَّهِ وَكَفَى بِاللَّهِ وَكِيلًا Watawakkal AAala Allahi wakafa biAllahi wakeelan...

033.004

আল্লাহ কোন মানুষের মধ্যে দুটি হৃদয় স্থাপন করেননি। তোমাদের স্ত্রীগণ যাদের সাথে তোমরা যিহার কর, তাদেরকে তোমাদের জননী করেননি এবং তোমাদের পোষ্যপুত্রদেরকে তোমাদের পুত্র করেননি। এগুলো তোমাদের মুখের কথা মাত্র। আল্লাহ ন্যায় কথা বলেন এবং পথ প্রদর্শন করেন। Allâh has...

033.005

তোমরা তাদেরকে তাদের পিতৃপরিচয়ে ডাক। এটাই আল্লাহর কাছে ন্যায়সঙ্গত। যদি তোমরা তাদের পিতৃ-পরিচয় না জান, তবে তারা তোমাদের ধর্মীয় ভাই ও বন্ধুরূপে গণ্য হবে। এ ব্যাপারে তোমাদের কোন বিচ্যুতি হলে তাতে তোমাদের কোন গোনাহ নেই, তবে ইচ্ছাকৃত হলে ভিন্ন কথা। আল্লাহ ক্ষমাশীল,...

033.006

নবী মুমিনদের নিকট তাদের নিজেদের অপেক্ষা অধিক ঘনিষ্ঠ এবং তাঁর স্ত্রীগণ তাদের মাতা। আল্লাহর বিধান অনুযায়ী মুমিন ও মুহাজিরগণের মধ্যে যারা আত্নীয়, তারা পরস্পরে অধিক ঘনিষ্ঠ। তবে তোমরা যদি তোমাদের বন্ধুদের প্রতি দয়া-দাক্ষিণ্য করতে চাও, করতে পার। এটা লওহে-মাহফুযে লিখিত...

033.007

যখন আমি পয়গম্বরগণের কাছ থেকে, আপনার কাছ থেকে এবং নূহ, ইব্রাহীম, মূসা ও মরিয়ম তনয় ঈসার কাছ থেকে অঙ্গীকার নিলাম এবং অঙ্গীকার নিলাম তাদের কাছ থেকে দৃঢ় অঙ্গীকার। And (remember) when We took from the Prophets their covenant, and from you (O Muhammad SAW), and from Nûh...

033.008

সত্যবাদীদেরকে তাদের সত্যবাদিতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করার জন্য। তিনি কাফেরদের জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত রেখেছেন। That He may ask the truthfuls (Allâh’s Messengers and His Prophets) about their truth (i.e. the conveyance of Allâh’s Message that which they were...

033.009

হে মুমিনগণ! তোমরা তোমাদের প্রতি আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ কর, যখন শত্রুবাহিনী তোমাদের নিকটবর্তী হয়েছিল, অতঃপর আমি তাদের বিরুদ্ধে ঝঞ্চাবায়ু এবং এমন সৈন্যবাহিনী প্রেরণ করেছিলাম, যাদেরকে তোমরা দেখতে না। তোমরা যা কর, আল্লাহ তা দেখেন। O you who believe! Remember...

033.010

যখন তারা তোমাদের নিকটবর্তী হয়েছিল উচ্চ ভূমি ও নিম্নভূমি থেকে এবং যখন তোমাদের দৃষ্টিভ্রম হচ্ছিল, প্রাণ কন্ঠাগত হয়েছিল এবং তোমরা আল্লাহ সম্পর্কে নানা বিরূপ ধারণা পোষণ করতে শুরু করছিলে। When they came upon you from above you and from below you, and when the eyes grew...

033.011

সে সময়ে মুমিনগণ পরীক্ষিত হয়েছিল এবং ভীষণভাবে প্রকম্পিত হচ্ছিল। There, the believers were tried and shaken with a mighty shaking. هُنَالِكَ ابْتُلِيَ الْمُؤْمِنُونَ وَزُلْزِلُوا زِلْزَالًا شَدِيدًا Hunalika ibtuliya almu-minoona wazulziloo zilzalan shadeedan YUSUFALI:...

033.012

এবং যখন মুনাফিক ও যাদের অন্তরে রোগ ছিল তারা বলছিল, আমাদেরকে প্রদত্ত আল্লাহ ও রসূলের প্রতিশ্রুতি প্রতারণা বৈ নয়। And when the hypocrites and those in whose hearts is a disease (of doubts) said: ”Allâh and His Messenger (SAW) promised us nothing but delusions!” وَإِذْ...

033.013

এবং যখন তাদের একদল বলেছিল, হে ইয়াসরেববাসী, এটা টিকবার মত জায়গা নয়, তোমরা ফিরে চল। তাদেরই একদল নবীর কাছে অনুমতি প্রার্থনা করে বলেছিল, আমাদের বাড়ী-ঘর খালি, অথচ সেগুলো খালি ছিল না, পলায়ন করাই ছিল তাদের ইচ্ছা। And when a party of them said: ”O people of Yathrib...

033.014

যদি শত্রুপক্ষ চতুর্দিক থেকে নগরে প্রবেশ করে তাদের সাথে মিলিত হত, অতঃপর বিদ্রোহ করতে প্ররোচিত করত, তবে তারা অবশ্যই বিদ্রোহ করত এবং তারা মোটেই বিলম্ব করত না। And if the enemy had entered from all sides (of the city), and they had been exhorted to Al­Fitnah (i.e. to...

033.015

অথচ তারা পূর্বে আল্লাহর সাথে অঙ্গীকার করেছিল যে, তারা পৃষ্ঠ প্রদর্শন করবে না। আল্লাহর অঙ্গীকার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে। And indeed they had already made a covenant with Allâh not to turn their backs, and a covenant with Allâh must be answered for. وَلَقَدْ كَانُوا...

033.016

বলুন! তোমরা যদি মৃত্যু অথবা হত্যা থেকে পলায়ন কর, তবে এ পলায়ন তোমাদের কাজে আসবে না। তখন তোমাদেরকে সামান্যই ভোগ করতে দেয়া হবে। Say (O Muhammad SAW to these hypocrites who ask your permission to run away from you): ”Flight will not avail you if you flee from death or...

033.017

বলুন! কে তোমাদেরকে আল্লাহ থেকে রক্ষা করবে যদি তিনি তোমাদের অমঙ্গল ইচ্ছা করেন অথবা তোমাদের প্রতি অনুকম্পার ইচ্ছা? তারা আল্লাহ ব্যতীত নিজেদের কোন অভিভাবক ও সাহায্যদাতা পাবে না। Say: ”Who is he who can protect you from Allâh if He intends to harm you, or intends...

033.018

আল্লাহ খুব জানেন তোমাদের মধ্যে কারা তোমাদেরকে বাধা দেয় এবং কারা তাদের ভাইদেরকে বলে, আমাদের কাছে এস। তারা কমই যুদ্ধ করে। Allâh already knows those among you who keep back (men) from fighting in Allâh’s Cause, and those who say to their brethren ”Come here towards...

033.019

তারা তোমাদের প্রতি কুন্ঠাবোধ করে। যখন বিপদ আসে, তখন আপনি দেখবেন মৃত্যুভয়ে অচেতন ব্যক্তির মত চোখ উল্টিয়ে তারা আপনার প্রতি তাকায়। অতঃপর যখন বিপদ টলে যায় তখন তারা ধন-সম্পদ লাভের আশায় তোমাদের সাথে বাকচাতুরীতে অবতীর্ণ হয়। তারা মুমিন নয়। তাই আল্লাহ তাদের কর্মসমূহ নিস্ফল...

033.020

তারা মনে করে শক্রবাহিনী চলে যায়নি। যদি শক্রবাহিনী আবার এসে পড়ে, তবে তারা কামনা করবে যে, যদি তারা গ্রামবাসীদের মধ্য থেকে তোমাদের সংবাদাদি জেনে নিত, তবেই ভাল হত। তারা তোমাদের মধ্যে অবস্থান করলেও যুদ্ধ সামান্যই করত। They think that Al­Ahzâb (the Confederates) have not...