ভক্তিগীতি

অকলঙ্ক শশীমুখী, সুধাপানে সদা সুখী

বিভাস – ঢিমে তেতালা অকলঙ্ক শশীমুখী, সুধাপানে সদা সুখী, তনু তনু নিরখি অতনু চমকে। না ভাব বিরূপ ভূপ, যাঁরে ভাব ব্রহ্মরূপ, পদতলে শবরূপ, বামা রণে কে॥ শিশু-শশধর-ধরা, সুহাস মধুরাধরা, প্রাণ ভরা ভার, ধরা আলো করেছে। চিত্তে বিবেচনা কর, নিশাকর দিবাকর, বৈশ্বানর নেত্রবর কর ঝলকে॥...

অন্নপূর্ণার ধন্য কাশী

অন্নপূর্ণার ধন্য কাশী। শিব ধন্য কাশী ধন্য, ধন্য ধন্য আনন্দময়ী।। ভাগীরথী বিরাজিত, প্রবাহে অর্ধ শশী। উত্তরবাহিনী গঙ্গা জল ঢালিছে দিবানিশি।। শিবের ত্রিশূলে কাশী, বেষ্টিত বরুণা-অসী। তন্মধ্যে মরিলে জীব, শিবের শরীরে মিশি।। কি মহিমা অন্নপূর্ণার, কেউ থাকে না উপবাসী। ওমা,...

অপার সংসার, নাহি পারাপার

অপার সংসার, নাহি পারাপার। ভরসা শ্রীপদ, সঙ্গের সম্পদ, বিপদে তারিণী, করগো নিস্তার। যে দেখে তরঙ্গ অগাধ বারি, ভয়ে কাঁপে অঙ্গ, ডুবে বা মরি। তার কৃপা করি, কিঙ্কর তোমারি, দিয়ে চরণ-তরী, রাখ এইবার।। বহিছে তুফান নাহিক বিরাম, থর থর অঙ্গ কাঁপে অবিরাম। পূরাও মনষ্কাম, জপি...

অভয় চরণ সব লুটালে

অভয় চরণ সব লুটালে। কিছু রাখলে না মা তনয় বলে।। দাতার কন্যা দাতা দিলে, শিখেছিলে মা বাপের কুলে। তোমার পিতামাতা যেম্নি দাতা, তেম্নি দাতা কি আমায় হ’লে।। ভাঁড়ার জিম্মা যাঁর কাছে মা, সে জন তোমার পদতলে। সদা ভাঙ খেয়ে সে মত্ত ভোলা, তুষ্ট কেবল বিল্বদলে।। মা হোয়ে মা জন্মে...

অভয় পদে প্রাণ সঁপেছি

অভয় পদে প্রাণ সঁপেছি৷ আমি আর কি যমের ভয় রেখেছি৷৷ কালী নাম কল্পতরু হদৃয়ে রোপণ করেছি৷ আমি দেহ বেচে ভবের হাটে দুর্গানাম কিনে এনেছি৷৷ দেহের মধ্যে ছজন কুজন তাদের হরে দূর করেছি৷ এবার শম্ন এলে হদৃয় খুলে, দেখাব তাই বসে আছি৷৷ কালীনাম মহামন্ত্র আত্মশির শিখায় বেঁধেছি৷...

আইল আজি বসন্ত মরি মরি

আইল আজি বসন্ত মরি মরি, কুসুমে রঞ্জিত কুঞ্জ মঞ্জরী। অলি আনন্দিত নাচে গুঞ্জরি, পিক পুলকিত গাহে কুহরি।। নৃত্য করে কত বাল বালিকা, কন্ঠে শোভে নব কুন্দ মালিকা; আনিছে সুন্দরী শূন্য গাগরি, সুখে লহে প্রেমবারি ভরি ভরি।। নৈসর্গিক (বসন্ত) মধুকালে এল হোলি-মধুর হোলি। রঙের খেলা,...

আইল শীত ঋতু হেমন্তের পরে

আইল শীত ঋতু হেমন্তের পরে, শীতল ধরণী এবে চাহে দিবাকরে।। কুন্দ শেফালিকা ফুলে নীহারবিন্দু উছলে; কুসুম কানন মূলে শ্রীরাগ বিহার করে।। রাগিনী নবরঙ্গিনী শ্রীরাগ অনুসঙ্গিনী। নাচিছে লাসভঙ্গিনী গাহিছে মোহন...

আছি তেঁই তরুতলে বসে

আছি তেঁই তরুতলে বসে। মনের আনন্দে আর হরিষে।। আগে ভাঙ্গবো গাছের পাতা, ডাঁটি ফল ধরিব শেষে।। রাগ দ্বেষ লোভ আদি রেখে দূরদেশে। রব রসাতলে হা প্রত্যাশে, ফলিতার্থ সেই রসে।। ফলের ফলে সুফল লয়ে যাইব নিবাসে। আমার বিফলকে ফল দিয়ে, ফলাফল ভাসাও নৈরাশে।। মন কর কি লওরে সুধা দুজনাতে...

আজ আমার শূন্য ঘরে আসিল সুন্দর

আজ আমার শূন্য ঘরে আসিল সুন্দর, ওগো অনেক দিনের পর। আজ আমার সোনার বধূ এল আপন ঘর, ওগো অনেক দিনের পর।। আজ আমার নাই কিছু কালো, পেয়ে আজ উজল মণি সব হলো আলো। আজ আমার নাইকো কেহ পর, সুখীরে করেছি সখা, দুঃখীরে দোসর ওগো অনেক দিনের পর।। মনে পড়িল তাকি? এতদিন যে দুয়ার খুলে ছিনু...

আজ শুভনিশি পোহাইল তোমার

আজ শুভনিশি পোহাইল তোমার। এই যে নন্দিনী আইল, বরণ করিয়া আন ঘরে। মুখ-শশী দেখ আসি, যাবে দুঃখরাশি, ও চাঁদ-মুখের হাসি সুধারাশি ক্ষরে। শুনিয়া এ শুভ বাণী, এলোচুলে যায় রাণী, বসন না যায় সম্বরে। গদগদ ভাব-ভরে, ঝর ঝর আঁখি ঝরে, পাছে করি’ গিরিবরে, অমনি কাঁদে গলা...

আজি এ নিশি, সখী, সহিত নারি

আজি এ নিশি, সখী, সহিত নারি, কেবলই পড়িছে মনে যমুনা বারি। এমনি সোনার তরী, ভেসেছিল নভোপরি- নাহিক শ্যামের তরী, নাহি বাঁশিরি। ছিল গো সেদিন সখী, হেন যামিনী।। আছে ফুল নাহি মধু, আছে আশা নাহি বঁধু, আছে নিশা, নাহি শুধু অভিসারী । মিলন মধুর নিশি আসিবে না আর; আজি এ চাঁদিনী ধরা...

আজি স্বর্গ-আবাস তুমি এসো ছাড়ি

আজি স্বর্গ-আবাস তুমি এসো ছাড়ি। আজি বরষে বরষা বিরহ বারি। আজি ফুল নাহিক মধুগন্ধ, মলয়ে নাহিক মৃদুমন্দ, জীবনে নাহিক গীতছন্দ- তোমারে ছাড়ি। মোর এ ভালোবাসা পাবে না নন্দনে, উঠে নি এত সুধা সাগর মন্থনে, না জানি নিশি যাপ, কতই ক্রন্দনে আমারে ছাড়ি। সেথায় নাহিক আত্ম-বলিদান, মিছে...

আজি হরষ সরসি কি জোয়ারা

আজি হরষ সরসি কি জোয়ারা! প্রাণমে ন মিলত কুল কিনারা। গাও গাও সখী, গৌরবগীত; লীলাচপল রাগ ললিত ললিত; কোকিল পঞ্চম করুণ কানাডা; গাও গাও মৃদু মধুর মল্লারা । সরমকি বনধন খোলহ খোল, মরমকি পালহ তোলহ তোল, প্রেম তরণমে ছোড় এ তরণী, ভাসি চলি আয়ো প্রাণমে হামারা । দোলত দিবাকর দিবস মোহন,...

আনন্দে রুমক ঝুমু বাজে

আনন্দে রুমক ঝুমু বাজে, বাজে গো বাজে। সুন্দর সাজে চিত্ত ‘পরে নৃত্য করে সে নৃত্য রাজে। কুঞ্জবন মুঞ্জরিল, পুলকে অলি গুঞ্জরিল, নীপমুলে দুলে দুলে শিখীকুল নাচে। কাজল মেঘে বিজলী সম জীবনে মম সে অনুপম; বংশী তার বাজে মনোমাঝে লক্ষ্যহীন লক্ষ আশা বক্ষেতে...

আপন কাজে অচল হলে

আপন কাজে অচল হলে চলবে না রে চলবে না। অলস স্তুতিগানে তাঁর আসন টলবে না রে টলবে না।। হল যদি তোর না হয় সচল, বিফল হবে জলদ-জল; উষর ভুমে সোনার ফসল ফলবে না রে ফলবে না।। সবাই আগে যায় রে চ’লে; ব’সে আছিস তুই কী বলে ? এখন নোঙর বেঁধে স্রোতের জলে তরী তোর চলবে না রে চলবে না। তীরের...

আবার তুই বাঁধবি বাসা কোন সাহসে

আবার তুই বাঁধবি বাসা কোন সাহসে? আশা কি আছে বাকি হৃদয়-কোষে। কতবার গডলি রে ঘর, কতবার এল রে ঝড়, কতবার ঘরের বাঁধন পড়ল খ’সে বাহিরের মুক্ত মাঠে যেন তোর জীবন কাটে। কেন তুই ক্ষুদ্রে বাটে থাকবি ব’সে, সবারে কর রে আপন, হ রে তুই সবার আপন; ভুলে যা দুখের দাহন ডুব দিয়ে গান-সুধার...

আমায় কি ধন দিবি তোর কি ধন আছে

আমায় কি ধন দিবি তোর কি ধন আছে। তোমার কৃপাদৃষ্টি পাদপদ্ম, বাঁধা আছে শিবের কাছে।। ও চরণ উদ্ধারের মা, আর কি কোনও উপায় আছে। এখন প্রাণপণে খালাস কর, টাটে বা ডুবায় পাছে।। যদি বল অমূল্য পদ, মূল্য আবার কি তার আছে। ঐ যে প্রাণ দিয়ে শব হ’য়ে, শিব ও পদ বাঁধা রেখেছে।। বাপের ধনে...

আমায় ছুঁয়ো না রে শমন আমার জাত গিয়েছে

আমায় ছুঁয়ো না রে শমন আমার জাত গিয়েছে। যে দিন কৃপাময়ী আমায় কৃপা করেছে।। শোনরে শমন বলি আমার জাত কিসে গিয়াছে। আমি ছিলেম গৃহবাসী, কেলে সর্বনাশী, আমায় সন্ন্যাসী করেছে।। মন রসনা এই দুজনা, কালীর নামে দল বেঁধেছে। ইহা ক’রে শ্রবণ, রিপু ছয়জন, ডিঙ্গা ছেড়ে চলে গেছে।। যে...

আমার অন্তরে আনন্দময়ী

আমার অন্তরে আনন্দময়ী। সদা করিতেছেন কেলি। আমি যেভাবে সেভাবে থাকি, নামটি কভু নাহি ভুলি। আবার দু’আঁখি মুদিলে দেখি, অন্তরেতে মুণ্ডমালী।। বিষয়বুদ্ধি হইল হত, আমায় পাগল বোল বলে সকলি। আমায় যা বলে তাই বলুক তারা, অন্তে যেন পাই পাগলী।। শ্রীরামপ্রসাদে বলে, মা বিরাজে শতদলে।...

আমার কপাল গো তারা

আমার কপাল গো তারা। ভাল নয় মা, ভাল নয় মা, ভাল নয় মা কোন কালে।। শিশুকালে পিতা মলো, মাগো, রাজ্য নিলে পরে। আমি অতি অল্পমতি, ভাসালে সায়রের জলে।। স্রোতের শেহালার মত মাগো ফিরিতেছি ভেসে। সবে বল ধর ধর, কেহ নাবে না অগাধ জলে।। বনের পুষ্প বেলের পাতা, মাগো, আর দিব আমার মাথা।...
পাতা 1/912345...শেষ »