হে ব্রাহ্মণ্যবাদ থামাও তোমার দুর্বার গতি অস্পৃশ্যতার

হে ব্রাহ্মণ্যবাদ
থামাও তোমার দুর্বার গতি অস্পৃশ্যতার
নইলে আবারও উঠিবে হুঙ্কারি সেই সুরাসুর জয়ী কালাপাহাড়
ভাঙিবে যতো মঠের চূড়া-মন্দির দেউল-ভজনালয়ের দ্বার
থামাও তোমার দুর্বার গতি অস্পৃশ্যতার।

চণ্ডাল-মুচি ছুঁইলে মন্দির পূজা হয় অশুদ্ধ
শিখায়নি তো কৃষ্ণ-গোরা-নানক-কবীর-বুদ্ধ
হয়ে ছুঁৎ মার্গে উদ্বুদ্ধ
যদি কারেও দাও ঘৃণার থুৎকার।
তবে আবারও উঠিবে হুঙ্কারি সেই সুরাসুর জয়ী কালাপাহাড়।।

বিষ্ঠার উপরে মাছি পড়িয়া আবার ভাতে দেয় মুখ
সে ভাত খাও পবিত্র ভেবে তাতে নাই কোনো দুখ্‌
যায় শুদ্র ছুঁলে জাত সবটুক
করো বন্ধ এমন শাস্ত্রের প্রচার।
নইলে আবারও উঠিবে হুঙ্কারি সেই সুরাসুর জয়ী কালাপাহাড়।।

ঋষি-মনীষী যুগে-যুগে তাই শিখিয়ে গেছেন ভাই
‘সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই’
এই মানুষেই আছে ব্রজের কানাই
যদি লঙ্ঘন করো মানবাধিকার
তবে আবারও উঠিবে হুঙ্কারি সেই সুরাসুর জয়ী কালাপাহাড়।।

কামার-কুমার-ব্রাহ্মণাদি সকলেই সমান
ঈশ্বর সহে না ধর্মের গ্লানি মানবতার অপমান
তাই নকুল কয় গাও সাম্যের গান
ত্যাগ করো জাতের অহঙ্কার।
নইলে আবারও উঠিবে হুঙ্কারি সেই সুরাসুর জয়ী কালাপাহাড়।।

————————-
নকুল কুমার বিশ্বাস
রচনা- ২২.০৫.৮৮

One thought on “হে ব্রাহ্মণ্যবাদ থামাও তোমার দুর্বার গতি অস্পৃশ্যতার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *