আমার বাবা মারা গেছে বুঝবো সে তো আমি

আমার বাবা মারা গেছে বুঝবো সে তো আমি
কেন তোমায় দেবো থালা-বাটি-ধূতি-গামছা দামি-দামি।

আমার বাবা স্বর্গে থাক আর নরকে তলিয়ে থাক
তোমার তাতে কী আসে যায় তুমি কেন গলাও নাক
সে মুক্তি মোক্ষ পাক বা না পাক
বুঝবে জগৎস্বামী।
কেন তোমায় দেবো থালা-বাটি-ধূতি-গামছা দামি-দামি।।

নিজের মুক্তিরই খবর নাই কী হবে পরলোকে
তোমায় পরের আত্মার মুক্তি দেয়ার এজেন্সিটা দিলো কে?
কেন স্বর্গের টিকিট বেচে ব্ল্যাকে
করো যজমানকে নরকগামী?
কেন তোমায় দেবো থালা-বাটি-ধূতি-গামছা দামি-দামি।।

যার পঞ্চভৌতিক দেহই নাই সে কেমন করে পিণ্ডি খায়
আবার পিণ্ডি খেয়েই স্বর্গ পেলে কর্মফলটা কোথায় যায়?
নকুল বলে গা জ্বলে যায়
দেখে এসব ভণ্ডামী।।

—————
নকুল কুমার বিশ্বাস
রচনা-০৪।০১।৯৩
আনন্দনগর, পুরুলিয়া, পশ্চিমবঙ্গ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *