চ-কর

একদিন সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথের চা তেষ্টা পেয়েছে। কবি তাঁর খাসভৃত্য বনমালিকে বললেন, ‘তাড়াতাড়ি চা করে আন দেখি।’

কিন্তু বনমালীর বড্ড দেরী দেখে তিনি কপট বিরক্ত প্ৰকাশ করে বললেন, চা-কর, কিন্তু সু-কর নয়।’

এর কিছুক্ষণ পর বনমালী চা তৈরী করে নিয়ে এলে কবি কৃত্রিম রাগ প্রকাশ করে বলেন, ‘বনমালী তুই বোধহয় জানিস না যে তোর অতুলনীয় কর্মণ্যতায় আমি খুব বেশি পুলকিত হইনি?’

বনমালী গুরুদেবের কথার কিছুই বুঝতে না পেরে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থেকে টেবিলের ওপর চা রেখে জিগ্যেস করে, ‘রাতে কী খাবেন বাবামশাই?’

বনমালী কখনো রবীন্দ্রনাথকে ‘বাবামশাই’ বলত, আবার কখনো বলত ‘গুরুদেব’।