আলখাল্লা

রবীন্দনাথ শান্তিনিকেতনে সচরাচর আলখাল্লা পরতেন। একবার এক বিখ্যাত ব্যক্তি শান্তিনিকেতনে আসায় তার সৌজন্যে কবি ধুতি চাদর পরেন। সুপুরুষ কবিকে ঐ সাজে সুন্দর দেখাচ্ছিল। আশ্রমের সবাই খুশি, কবিকে নতুন সাজে দেখে।

এর কিছুদিন পরে হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী কবিকে বলেন, ‘সেদিন ধুতি চাদরে আপনাকে দারুণ লাগিছিল, গুরুদেব। আপনি কোন ধুতিচাদর পরেন না? ওতে কিন্তু আপনাকে বেশ মানায়, এবার থেকে মাঝে মাঝে ধুতি চাদর পরবেন।’

এ কথা শুনে কবি হেসে বলেন, ‘তোমরা আমাকে ওরকম বাড়িয়ে বল, আর ধুতি পারব কী? ওতে বড় ল্যাঠা, ধুতি কোঁচাও রে, পাট করো রে, ওই দুঃখেই ধুতির বদলে বালিশের ওয়াড়গুলো পরে থাকি, এতে কোনো ঝামেলা নেই।’