টোয়েণ্টি থাউজ্যাণ্ড লিগ্‌স আণ্ডার দি সী

টোয়েণ্টি থাউজ্যাণ্ড লিগস আণ্ডার দি সী - জুল ভার্ন অমনিবাস

০১. তিমিজিল, না ড়ুবোপাহাড়?

তিমিজিল, না ড়ুবোপাহাড়? ১৮৬৬ সালে হঠাৎ য়ুরোপ আর আমেরিকার নাবিকদের মধ্যে হুলুস্থুল বেঁধে গেলো। অদ্ভুত সব ব্যাপার ঘটছে সমুদ্রে-রহস্যময় ও বিপজ্জনক; প্রায়ই নাকি মস্ত কী-একটা জন্তু দেখা যাচ্ছে জলের মধ্যে। লম্বা ছুচোলো ঝকমকে একটা বিকট ব্যাপার কেবল যে আকারেই তিমিমাছের চেয়ে...

০২. আমি, পিয়ের আরেনা

আমি, পিয়ের আরেনা আমার নাম পিয়ের আরোনা। পারী মিউজিয়ামের প্রাকৃতিক ইতিহাসের অধ্যাপক আমি। সেই সূত্রেই আমাকে কিছুকাল আগে নেব্রাস্কা যেতে হয়েছিলো অতীব দুষ্প্রাপ্য কিছু উদ্ভিদ প্রাণীসংগ্রহের অভিযানে। ফ্রাসে ফেরার পথে নিউইয়র্কে এসে আমি যখন সংগৃহীত জিনিশগুলির একটা তালিকা তৈরি...

০৩. ওই যে, ওখানে

ওই যে, ওখানে কোনসাইল-এর যে দু-হাজার ডলার পুরস্কারের প্রতি কোনো লোভ ছিলো না, তা নয়। কিন্তু আমার বেলায় ব্যাপারটা ছিলো সম্পূর্ণ অন্য রকম। পুরস্কারের তোয়াক্কা রাখি না আমি। কিন্তু তবু কিসের টানে আমিও ঘণ্টার পর ঘণ্টা ডেকের উপর দাঁড়িয়ে থাকতুম। আমি নিজের চোখে এই সিন্ধুদানবকে...

০৪. অতল জলের আহ্বান

অতল জলের আহ্বান নেডের চীৎকার শুনে জাহাজের সব লোক তার দিকে ছুটে গেলো। এবার কিন্তু সিন্ধুদানব আর কারো অগোচর রইলো না। দেখতে পেলুম জাহাজ থেকে বেশ খানিকটা দূরে সমুদ্রের জল আলো হয়ে উঠেছে; জলের উপর ভেসে উঠেছে সেই রহস্যময় দানবটির প্রকাণ্ড পিঠ, আর তার গা থেকেই এই উজ্জ্বল...

০৫. কোথাকার জংলি, এরা?

কোথাকার জংলি, এরা? অন্ধকারের মধ্যেই পায়ের তলায় একটা লোহার সিঁড়ি অনুভব করতে পারলুম। তারপরেই টাল সামলাতে না পেরে হুমড়ি খেয়ে পড়লুম ঘুটঘুটি অন্ধকার একটি ঘরে; শব্দ শুনে বোঝা গেলো মুহূর্তে পিছনের দরজা ঘটাং করে বন্ধ হয়ে গেলো। বেশিক্ষণ কিন্তু অন্ধকারে থাকতে হলো না। খানিক পরে...

০৬. নটিলাস-এর কাপ্তেন নেমো

নটিলাস-এর কাপ্তেন নেমো কতক্ষণ যে ঘুমিয়েছিলুম আন্দাজ নেই। ঘুম ভাঙার পর দেখলুম নেড আর কোনসাইল তখন ঘুমে অচেতন। ঘরের ভিতরটা কেমন যেন গুমোট-মততা, নিশো নিতে কষ্ট হয়। কেমন করে যে এর। ঘরের মধ্যে অক্সিজেন সরবরাহ করে তা-ই ভাবছি, এমন সময় হঠাৎ এক ঝলক টাটকা সমুদ্রের হাওয়ায়...

০৭. রাজা ও সন্ন্যাসী

রাজা ও সন্ন্যাসী কাপ্তেন নেমে আমাকে কী দেখিয়েছিলেন নটিলাস-এ? সব-কিছু। হয় এই ছোট্ট উত্তরটিতে পাঠকদের সন্তুষ্ট থাকতে হবে, আর নয়তো এ-তথ্যটা মনে রাখতে হবে যে পাতার পর পাতা জুড়ে লিখলেও এই বিচিত্র ড়ুবোজাহাজটির ভিতরকার স্বয়ম্পূর্ণ পৃথিবীর বর্ণনা কিছুতেই সম্পূর্ণ হবে না।...

০৮. অতল জলের পথিক

অতল জলের পথিক এবার, প্রফেসর, ক্যাপ্টেন নেমো বললেন, আমাদের সমুদ্র যাত্রা শুরু হবে; আবার একবার আস্ত পৃথিবী ঘুরে আসবে নটিলাস সমুদ্রের তলা দিয়ে। আমাকে গিয়ে যাত্রার ব্যবস্থা করতে হয়। এখন আমরা পারীর মধ্যরেখার ৩৭°১৫’ পশ্চিম দ্রাঘিমা আর ৩০° অক্ষরেখায় আছি। এখান থেকেই আজ...

০৯. সিন্ধুতলের মৃগয়া

সিন্ধুতলের মৃগয়া পর-পর সাতদিন ক্যাপ্টেন নেমোর কোনো পাত্তাই পাওয়া গেলো না। একবারও তার সঙ্গে দেখা হলো না আমাদের, কোনো কথা হলো না; একা-একা ঘুরে বেড়ালুম তাঁর গ্রন্থাগারে ও সংগ্রহশালায়; আর নটিলাস ছুটে চললো সেই সিন্ধুতলের চঞ্চল স্রোতের মধ্য দিয়ে তার নির্দিষ্ট পথ ধরে।...

১০. সিন্ধুয়োল

সিন্ধুয়োল পরের দিন সকালে জেগে উঠতেই দেখি শরীরটা বেশ হালকা আর ঝরঝরে লাগছে। প্ল্যাটফর্মের উপরে গিয়ে সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে দেখলুম। স্বচ্ছ সুন্দর আবহাওয়া, দিগন্তে কোনো জাহাজের চিহ্ন পর্যন্ত নেই। ফেনিল নীল জলের উপর সূর্যের আলো পড়ে ঝিকিয়ে উঠছে। শান্ত সমুদ্রের মধ্যে কোন অনন্ত...

১১. জিলবোয়ার জংলিরা

জিলবোয়ার জংলিরা সত্যি বলতে, ডাঙায় পা দেবার সঙ্গে সঙ্গে কেমন অদ্ভুত একটা মুক্তির আনন্দ ছড়িয়ে পড়লো আমার মধ্যে। আসলে নটিলাস-এ যে কখনো কষ্টে ছিলুম তা নয় বরং কোনো রকম অস্বাচ্ছন্দ্যেরই অবকাশ ছিলো না সেখানে। যখনই যা। চাই, তৎক্ষণাৎ তা হাত বাড়ালেই পাওয়া যায়। এমনকী ক্যাপ্টেন...

১২. ভয়ংকরের গান

ভয়ংকরের গান পরের দিন সকাল বেলা নটিলাস-এর প্ল্যাটফর্মে গিয়ে দেখি ফাস্ট অফিসার সমুদ্রের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে যথোচিত নির্দেশ দিচ্ছেন। নটিলাস তখন ১০৫ দ্রাঘিমা আর ৭৫° দক্ষিণ অক্ষরেখায় প্রচণ্ড গতিতে ছুটে চলেছে–সম্ভবত এই ক-দিন টোরেজ প্রণালীতে আটকে থাকতে হয়েছে বলেই এত...

১৩. সিন্ধুতলে মুক্তো কুড়ুনো

সিন্ধুতলে মুক্তো কুড়ুনো এই রহস্যময় মানুষটির কথা যত ভাবি, তত মনে হয়, এঁকে ছুঁতে পারি এমন সাধ্য আমার নেই। কে ইনি? কোন দেশের মানুষ? কোন গভীর ক্ষত তিনি লুকিয়ে রেখেছেন বুকের ভিতর? কেন সমস্ত মনুষ্য সমাজের প্রতি তাঁর বিরাগ আর বিতৃষ্ণা এমন প্রবল? (এ-সব প্রশ্নের উত্তর জুল...

১৪. নীল সাগর ভূমধ্য

নীল সাগর ভূমধ্য ফ্রেব্রুআরি মাসের নয় তারিখে নটিলাস-এর প্ল্যাটফর্মে দাড়িয়ে ক্যাপ্টেন নেমোর দেয়া চুরুট টানছি, আর দেখছি লোহিত সাগরের উপর দিয়ে নটিলাস কেমন করে আস্তে ভূমধ্য সাগরের দিকে ভেসে যাচ্ছে, এমন সময় ক্যাপ্টেন নেমো আমার পাশে এসে দাড়ালেন। মঁসিয় আরোনা, হঠাৎ হাসিমুখে...

১৫. সোনার সিন্দুক

সোনার সিন্দুক ক্যাপ্টেন নেমো যে কেমন লোক, বোঝ শক্ত। এই বেশ হাসিখুশি, তারপরেই আবার গম্ভীর ও নিজের মধ্যে তন্ময়। যেমন চোদ্দোই ফেব্রুআরিতে তাকে দেখলুম তার সেলুনে গভীর চিন্তায় মগ্ন হয়ে আছেন। তার সেই ব্যাকুল, গম্ভীর ও সমাহিত মৃতি দেখে কোনো কথা বলা সংগত বোধ করলুম না। নটিলাস...

১৬. সিন্ধুতলের কোষাগার

সিন্ধুতলের কোষাগার নটিলাস আমাদের যত স্বাচ্ছন্দ্যই দিক, তবু বন্দী তো। ফলে নেড ল্যাণ্ড যখন। পলায়নের পরিকল্পনা করলে, আমাকে রাজী হতেই হলো। মাত্র আটচল্লিশ ঘণ্টায় ভূমধ্য সাগর অতিক্রম করে আমরা তখন অতলান্তিক মহাসাগরে এসে পড়েছি, ইস্পাহানের উপকূল ধরে আস্তে জলের তলা দিয়ে চলেছে...

১৭. লুপ্ত নাশপাতির গন্ধ

লুপ্ত নাশপাতির গন্ধ পরের দিন, উনিশে ফেব্রুয়ারি, সকালবেলায় নেড ল্যাণ্ড সবেগে আমার ঘরে এসে ঢুকলো। তারই প্রত্যাশা করছিলুম আমি। বড় হতাশ দেখালো তাকে। হলো তে! হতাশভাবে সে বললে আমায়। তা কী করবে, বলো? ভাগ্য বিরূপ ছিলো কাল। কিন্তু ঠিক ওই সময়টাতেই কিনা ক্যাপ্টেন জলের তলায়...

১৮. লক্ষ্য : অবাচী

লক্ষ্য : অবাচী ক্রমাগত দক্ষিণ দিকে ছুটে চলতে থাকে নটিলাস, লক্ষ্য তার অবাচী। আমরা পেরিয়ে এলুম সারাগোসা সাগর, পেরিয়ে এলুম তিমিজিলের দেশ, সিন্ধুতলের কয়লাখনি। ধীরে-ধীরে তুহিন অবাচীর দিকে এগোচ্ছি আমরা। পঞ্চান্ন অক্ষরেখার কাছেই জলের উপর বরফের চাঙড় ভেসে থাকতে দেখে ছিলুম, ষাট...

১৯. বনাম তুষারম

বনাম তুষারম পরদিন, বাইশে মার্চ, সকাল ছটা থেকেই ফেরার আয়োজন শুরু হলো। সন্ধ্যালোকের শেষ ঝলশানিটুকু যেন নিকশ কালো রাত্রির মধ্যে গলে যাচ্ছে। কনকনে ঠাণ্ডায় আমরা থেকে-থেকে কেঁপে উঠছি। আকাশে ক্রমশ তারাদের দীপ্তি বেড়ে যাচ্ছে, আর তারই মধ্যে ঝলমল করছে কুমেরুর সেই আশ্চর্য...

২০. গগনের মাসকুণ্ডলী

গগনের মাসকুণ্ডলী উত্তমাশা অন্তরীপ থেকে আমাজন পর্যন্ত চঞ্চল নটিলাস ছুটে এসেছে; কিন্তু আমেরিকার উপকূলের কাছে যাচ্ছে না কখনোই; হয়তো তীরের কাছে যাওয়া বা উপকূলের জাহাজের মুখখামুখি পড়ার কোনো দৈব সুযোগ করে দেয়াও ক্যাপ্টেন নেমোর অভিপ্রেত নয়। বিশে এপ্রিল বাহামার কাছে দিয়ে...