নিগড়ণ

হায়েনা একটি চতুষ্পদ প্রাণী
কুকুর শৃগালও তাই।
তবে শৃগাল
চালাক এবং চতুর।
তাই, তাহাকে সকলেই
একবাক্যে পন্ডিত মশাই
নামে সম্বোধন করেন। সম্প্রতি-

তবে, পন্ডিতদের চাইতে হায়েনারা তাঁহাদের প্রতিপত্তি
সর্বত্র বিস্তার করিয়াছে বলিয়া কয়েকজন পশু বিশেষজ্ঞ
ভীষণভাবে হতাশাগ্রস্ত।

পশু বিশেষজ্ঞদের মতে দেশে শৃগাল ও কুকুরের চাইতেও
হায়েনাদের সংখ্যা ক্রমশই বৃদ্ধি পাইতেছে, এই কথা মনে করিয়া,
জনাকয়েক পশু বিশেষজ্ঞ ভীষণ চিন্তিত; কেন, যে
চালাক চতুর শৃগালেরা তাহাদের পান্ডিত্য বিসর্জন দিয়া
হায়েনাদের ভয়ে স্বদেশ ছাড়িয়া অন্য মহাদেশে যাইবে
তা-ই এখন
পশু বিশেষজ্ঞদের গবেষনার বিষয়।

এই বার্তা জানিবার পর পরই, হায়েনাদের দলপতি তাঁর ঠাণ্ডা ঘরে
বসিয়াই গ্রাম-গঞ্জের অন্যসব হায়েনাদের কাছে ডাকিয়া বলিলেন,

‘৭১ এ যেইভাবে বাংলার মানুষদের খাইয়াছি, ঠিক সেইভাবে আবারও
খাইতে হইবে, এবং খাইতে ইচ্ছা করি
শেয়াল কুকুর সবকিছু।
বেয়াদপ কুকুরগুলি আমাকে দেখিলেই ঘেউ ঘেউ করিয়া স্বজাতিদের
পুনরায় জানাইয়া দেয়, সেই ১৪ ডিসেম্বরের রাত্রে, কিভাবে খাইয়াছিলাম
বাংলার হাড় মাংস মাথা।

যাহাই হউক,
সামনেই নির্বাচন, অন্যান্য পশুদের মধ্যে প্রতিযোগিতার আগেই
আমাদের একটি মাত্র প্রতিজ্ঞা হওয়া উচিত,
আমরা অবশ্যই নির্বংশ করিব,
চতুর শৃগাল,
প্রভুভক্ত কুকুর।
প্রয়োজনে
বাঘিনীকে।

হে আমার অগ্রজ ও অনুজ হায়েনার দল প্রস্ততি পর্ব এখন আমাদের শেষ
এখন শুধু সেই ‘৭১ এর মতো রাস্তায় নামিয়াই আমাদের খাইতে হইবে,

ধানগাছ হইতে শুরু করিয়া নৌকার গলুই।।

শেয়ার বা বুকমার্ক করে রাখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *