১৩. মন জয় করবার সহজ উপায়

১৩. মন জয় করবার সহজ উপায়

থিয়োডোর রুজভেল্ট যখন হোয়াইট হাউসে ছিলেন, তিনি স্বীকার করেছিলেন যে তিনি যদি শতকরা ৭৫ ভাগ ঠিক হতেন তাহলে আশাতীত কিছু করতে পেরেছেন বলেই ভাবতেন। বিংশ শতাব্দীর একজন শ্রেষ্ঠতম ব্যক্তিত্বের মানুষের কাছে যদি এটাই সব সেরা মাপ হয়, তাহলে আমি বা আপনি কি পারব আশা রাখি?

আপনি যদি একশবারের মধ্যে ৫৫ বার ভুল না হয়ে ঠিক হতে পারেন তাহলে আপনি ওয়ালস্ট্রিটে গিয়ে রোজ রোজ দশ লক্ষ, ডলারই আয় করতে পারেন, তার সঙ্গে একখানা প্রমোদতরী কিনে মস্ত গায়িকা কোনো মেয়েকে বিয়েও করতে পারেন। আর ৫৫ বার ঠিক হওয়া সম্বন্ধে যদি কোনো সন্দেহ থাকে তাহলে অন্য লোকেরা ভুল করেছে কথাটা বলা আপনার সাজে কি?

কোনো মানুষের গলার স্বর, এমনকি অঙ্গভঙ্গি দেখেও আপনি বলতে পারবেন সে ভুল করছে কিনা–ব্যাপারটা আপনি আপনার দৃষ্টি দিয়েই বুঝিয়ে দিতে পারেন কিছু বলর দরকার হবে না। তাকে যদি তার ভুল ধরিয়েও দেন তাহলে কি চাইবেন সে আপনার মতো মেনে নিক? কখনই না কারণ এ কাজের মধ্য দিয়ে আপনি তাকে সরাসরি তার বুদ্ধি, বিবেচনা, তার অহমিকা আর আত্মসম্মানের উপর আঘাত করেছেন। এতে সে চাইবে আপনাকে প্রত্যাখাত করতে। অথচ এর জন্য সে কিছুতেই নিজের মতো পাল্টাবে না? এরপর আপনি তাকে প্লেটো, ইমানুয়েল কান্ট বা আর যারই হোক দর্শন প্রয়োগ করতে পারেন, কিন্তু তাতে মতো বদলাবে না। যেহেতু আপনি তার অনুভূতিতে আঘাত করে বসেছেন।

কখনই এই ভাবে শুরু করতে চাইবেন না, এ ব্যাপারটা আমি আপনাকে প্রমাণ করে দিচ্ছি, আসুন।’এটা অত্যন্ত খারাপ। এটা অনেকটা এই রকম বলাই হয় : দেখুন, আমি আপনার চেয়ে চালাকচতুর। আমি আপনাকে কিছু জ্ঞান দিয়ে আপনার মতো পাল্টানোর ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

এটা কিছুটা দ্বন্দ্বযুদ্ধে আহ্বান করার মতো। এতে বিরোধিতা জাগিয়ে তোলা ঞয়, আপনার শ্রোতা আপনি কিছু শুরু করার আগেই আপনার সঙ্গে লড়াইতে নামতে চায়।

মানুষের মন বদলানো বেশ কঠিন কাজ। অতএব তাকে আরো কঠিন করে তুলে লাভ কি? নিজেকে ক্ষতিগ্রস্ত করবেনই বা কেন?

আপনি যদি কোনোকিছু প্রমাণ করতে চান তাহলে কাউকে সেটা জানতে দেবেন না। এ কাজ এমন গোপনে, কৌশলে করতে হবে যে কেউ যেন বুঝতে না পারে আপনি সেটা করে চলেছেন।

নিচের এই উদ্ধৃতিটা লক্ষ্য করুন :

মানুষকে এমনভাবে শেখাতে চান সে যেন না বোঝে আপনি তাকে শেখাতে চাইছেন লড চেস্টারফিল্ড তার ছেলেকে বলেছিলেন :

‘অন্য কারো চেয়ে যদি পারো জ্ঞানী হও, তবে সে কথা তাকে বল না।‘

বিশ বছর আগে আমি যা বিশ্বাস করতাম–একমাত্র অঙ্ক ছাড়া আর বোধহয় কিছুই বিশ্বাস করি না–তাছাড়া যখন আইনস্টাইনের লেখা পড়ি তখন তাও আবার বিশ্বাস হয় না। আরো বিশ বছর পরে আমি এ বইটায় যা বলেছি সেটাও হয়তো বিশ্বাস করবেন না। আগে যে সব বিষয় সম্পর্কে নিশ্চিত ছিলাম এখন সে সম্বন্ধে ততটা নিশ্চিত আমি নই। সক্রেটিস এথেন্সে তাঁর শিষ্যদের বারবার বলতেন : আমিএকটা ব্যাপারই জানি, আর সেটা হল আমি কিছুই জানি না। যাই হোক আমি সক্রেটিসের চেয়ে বেশি বুদ্ধিমান বলে নিজেকে ভাবি না, আর তাই কাউকে বলতে চাই না, সে ভুল করছে। আমি লক্ষ্য করে দেখেছি তাতে আখেরে কাজ হয়।

কোনো মানুষ কোনো কথা বললে সেটা যদি আপনার ভুল বলে মনে হয়–হ্যাঁ, প্রকৃতই ভুল কিন্তু-তাহলে এভাবেই শুরু করলে ভালো হয় না কি : ‘হ্যাঁ, এবর শুনুন! আমার অন্যরকম মনে হয়েছিল। তবে আমারো ভুল হতে পারে। কারণ আমার প্রায়ই ভুল হয়। আর আমার ভুল হলেই সে ভুলটা শুধরে নিতে চাই। তাহলে আপনার ব্যাপারটা একটু দেখা যাক, কি বলেন?

এই ধরনের কথায়, অর্থাৎ ‘আমারও ভুল হতে পারে। আমার প্রায়ই ভুল হয় ব্যাপারটা একটু দেখা যাক কি বলেন? সত্যিকার দারুণ জাদু থাকে, এই সব কথায়।

স্বর্গ, মর্ত্য, পাতাল কোনো জায়গাতেই মানুষ আপনার ওই ধরনের কথায় কোনো প্রতিবাদ করতে চাইবে না।

ঠিক এই রকমই করে থাকেন একজন বিজ্ঞানী। আমি একবার বিখ্যাত আবিষ্কারক আর বিজ্ঞানী স্টেফানসনের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। তিনি প্রায় এগারো বছর কাটিয়েছিলেন মেরু অঞ্চলে, তাছাড়াও তিনি ছ’বছর কেবলমাত্র মাংস আর পানি ছাড়া কিছুই খান নি। তিনি আমাকে তাঁর করা একটা পরীক্ষার বিষয় বলেছিলেন। আর আমি তাঁকে প্রশ্ন করি তিনি ওই পরীক্ষায় কি প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন। আমি কোনোদিনই তাঁর উত্তরটা ভুলতে পারব না। তিনি বলেন : কোনো বিজ্ঞানী কখনো কিছু প্রমাণ করতে চান না। তিনি কেবল আসল ব্যাপার খুঁজে বের করার চেষ্টাই করে থাকেন।

আপনিও আপনার চিন্তাধারায় বৈজ্ঞানিক পন্থা কাজে লাগাতে চান, তাই না? বেশ, এ ব্যাপারে আপনি

যদি বৈজ্ঞানিক ভাবে চিন্তা করতে না পারেন তাহলে কিন্তু দোষ আপনারই।

আপনার যে ভুলও হতে পারে এ কথাটা স্বীকার করলে আপনি কখনই কোনো ঝামেলায় পড়বেন না। এরকম করলে সব রকম তর্কের অবসান ঘটবে আর অপর ব্যক্তিকে অনুপ্রাণিত করে আপনি যেরকম পরিষ্কার আর উদার মনোবৃত্তিসম্পন্ন তাকেও সেই রকমই করে তোলে। এর ফলে সে যে, ভুল করতে পারে সেটাই স্বীকার করতে চাইবে।

আপনি যদি জানেন কোনো লোক ভুল করছে আর আপনি সে কথাটা তাকে মুখের উপরেই বলে ফেললেন, তাহলে কি হতে পারে? আসুন, আপনাদের একটা নির্দিষ্ট ঘটনার উদাহরণ দিই। মি. এস, নিউইয়র্কের একজন তরুণ অ্যাটনী, একবার আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রীম কোর্টে খুব গুরত্বপূর্ণ এক মামলায় অংশ গ্রহণ করেছিলেন। বিষয়টাতে প্রচুর টাকা আর গুরুত্বপূর্ণ এক আইনের বিষয় জড়িত ছিল।

বিতর্ক চলার সময়, সুপ্রীম কোর্টের একজন বিচারপতি মি. এস-কে বিশেষ একটি আইনের দ্বারা ছ’বছরের মধ্যে সীমাবদ্ধ এ কথাই বললেন।

মি. এস–একটু থমকে বিচারপতির দিকে তাকিয়ে থেকে হঠাৎ মুখের উপর বলে বসলেন, হুজুর এরকম কোনো আইনই নেই।’

ব্যাপারটা সম্বন্ধে মি. এস–পরে লেখকের একটা ক্লাসে বলেছিলেন : ‘আমার কথায় সারা কামরায় নিঃস্তব্ধতা নেমে এলো। মনে হচ্ছিল ঘরে তাপমাত্রা যেন শূন্য ডিগ্রিতেই নেমে গেছে; আমার কথাই ঠিক ছিল। বিচারপতি ভুল বলেছিলেন আর আমি সেই কথাটাই তাকে বলে ফেলি। এতে কি তিনি বন্ধুভাবাপন্ন। হন? না। আমি এখনো বিশ্বাস করি আইনটাট আমারই পক্ষে ছিল আর আমি এও জানতাম সেদিন যেভাবে বিতর্কে অংশ নিয়ে কথা বলি তেমন আর কোনোদিন পারি নি। কিন্তু তা সত্ত্বেও আমি সে মামলায় জিততে পারি নি। আমি দারুণ একটা ভুল করেছিলাম। একজন শিক্ষিত আর জ্ঞানী বিচারপতির মুখের উপর তার ভুল ধরিয়ে দিয়ে।

খুবই কম সংখ্যক লোকই যুক্তি মেনে চলে। আমাদের বেশিরভাগই একচোখা আর একপেশে মানুষ। আমাদের বেশিরভাগই আগে থেকেই একটা ধারণার বশবর্তী হয়ে থাকি–আর সেটা হয় ঈর্ষা, সনেদ্ভীতি, হিংসা আর অহমিকাবোধ থাকার কারণে। আর বেশিরভাগ নাগরিকই কিছুতেই তাদের ধর্ম, চুলের ছাঁট, সমাজতন্ত্রবাদ বা ক্লার্ক গেবল সম্বন্ধে ধারণা বদলাতে চান না। অতএব আপনি যদি চান মানুষকে তার ভুল সম্বন্ধে জানিয়ে দেবেন তাহলে নিচের অংশটা দয়া করে প্রতিদিন সকালে প্রাতরাশের আগে হাঁটু গেড়ে বসে পড়ে চলুন। এটা প্রফেসর জেমস্ হার্ভে রবিনসনের আলোকিত একখানা বইয়েরই অংশ। বইটার নাম দি মাইন্ড ইন দা মেকিং’।

‘আমরা মাঝে মাঝে কোনোরকম বাধা বা বড় করমের কোনো আবেগ ছাড়াই আমাদের মন বদলে ফেলি। কিন্তু আমাদের যদি বলা হয় আমরা ভুল করছি, তাহলে আমরা সেই কথায় বেশ আপত্তি প্রকাশ করি আর আমাদের হৃদয়ও বেশ কঠিন হয়ে ওঠে। আমরা আমাদের বিশ্বাস গড়ে ওঠার ব্যাপারে অবিশ্বাস্য রকম অমনোযোগীই থাকি অথচ আমরাই আবার এর প্রতি দুরন্ত রকম আকর্ষণ দেখাই কেউ যদি সেটা কেড়ে নিতে চায়। আসলে এটা পরিষ্কার যে এই ধারণাগুলো কোনোভাবেই আমাদের একান্ত আপনার নয়, বরং সেটা হল আমাদের অহং ভাবটা যা বিপদের সামনে পড়ে যায়… আমার এই ছোট্ট কথাটা মানুষের ব্যাপারে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, আর এটা উপলব্ধির মধ্যেই রয়েছে প্রাজ্ঞতার পথ। এটাতে একই রকম তীব্রতা থেকে যায় তা আপনি, আমার; আহার, ‘আমার’ কুকুর, আমার বাড়ি, আমার বাবা ‘আমার দেশ, আমার সৃষ্টিকর্তা যাই বলুন না কেন। এছাড়াও আসল রহস্য হল পৃথিবীর জানা বিষয়ে আমাদের ধারণা বা বিশ্বাস নিয়ে কেউ আপত্তি তুললেই আমরা রেগে যাই বা অসন্তোষ প্রকাশ করি…আমরা সেই সবই সত্যি বলে বিশ্বাস করে চলতে চাই চিরকাল আমরা যা সত্যি ভেবে এসেছি। আর এ বিষয়ে কোনো রকম সন্দেহের প্রকাশ ঘটলেই আমরা যত রকমে পারি আমাদের বিশ্বাস আঁকড়ে ধরতে চাই। এর ফলে হল আমাদের বেশিরভাগ তথাকথিত যুক্তিবোধের মধ্যে কেবল খুঁজে ফিরতে চাই আমাদেরই কথার প্রমাণ।

আমি একবার একজন ঘরসাজানোয় দক্ষ মানুষকে আমার বাড়ি সাজানোর দায়িত্ব দিই। যখন বিল পেলাম আমার চোখ কপালে উঠে গিয়েছিল।

কদিন পরে আমার একজন বন্ধু এসে সব দেখে গেলেন। কথায় কথা দামের কথা উঠতেই তিনি আঁৎকে উঠে বললেন : বলো কি? এ যে সাংঘাতিক। আমার মনে হচ্ছে লোকটা তোমাকে বেশ ঠকিয়েছে।

কথাটা সত্যি? হ্যাঁ, তা সত্যি; বন্ধু ঠিকই বলেছিলেন। কিন্তু বেশিরভাগ লোকই কথাটা স্বীকার করতে চায় না যেটায় তাদের বুদ্ধি বিবেচনায় ধাক্কা লাগতে পারে। অতএব মানুষ বানাই আমি, নিজে যে ঠিক সেটাই প্রমাণ করার চেষ্টা চালালাম। আমি বললাম সবসেরা জিনিস সবচেয়ে সস্তায় মেলে না। আর কারো পক্ষেই ভালো জিনিস আর রুচিসম্মত কিছু ফুটপাতের মতো সস্তায় কখনো পাওয়া যাবে না, ইত্যাদি।

পরের দিন আর একজন বন্ধু এলেন। তিনি সব জিনিস দেশে বেশ প্রশংসা করতে লাগলেন। মনের খুশিতে টগবট করে তিনি বলেও ফেললেন এই রকম চমৎকার জিনিস তিনিও তার বাড়ির জন্য কিনবেন ভাবছেন। এবার কিন্তু আমার প্রতিক্রিয়া হল অন্য রকম। আমি বললাম : মানে, সত্যি কথা বললে এসব খরচ আমার সাধ্যের বাইরে। বড্ড বেশি খরচ করেছি। এগুলো কিনে ভুলই করেছি।’

আমরা যখন ভুল করি, সেগুলো তো নিজেদের কাছে স্বীকার করতে পারি। আমাদের কাছে কৌশলে আর বেশ বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে কথাটা তুললে হয়তো অন্যের কাছে তা স্বীকারও করতে পারি, আর বুদ্ধি বিবেচনায় বললাম সবসেরা তো সস্তায় কখনে তা করে আবার নিজেদের সারল্য আর মানসিক উদারহার জন্য অহমিকাও অনুভব করি। কিন্তু ব্যাপারটা আর তা থাকে না যদি কেউ জোর করে আমাদের এই তিক্ত পাঁচনটা যদি গেলাতে চেষ্টা করে…।

গৃহযুদ্ধের সময় আমেরিকার বিখ্যাত সম্পাদক হোরেস গ্রিল লিঙ্কনের নীতির প্রচণ্ড রকম বিরোধী ছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন ঠাট্টা, তামাশা, আর তর্কের মধ্য দিয়েই তিনি লিঙ্কনকে তাঁর মতো মেনে নিতে বাধ্য করতে পারবেন। তিনি এই তিক্ত ধারণা আর প্রচার মাসের পর মাস, বছরের পর বছর চালিয়ে গিয়েছিলেন। আসলে যে রাতে বুথ লিঙ্কনকে গুলি করে সেদিনও তিনি প্রেসিডেন্ট লিঙ্কনকে হিংস্রভাবে, ব্যঙ্গত্মক ব্যক্তিগত আক্রমণ করে লিখেছিলেন।

কিন্তু এই রকম তিক্ততার ফলে কি লিঙ্কন গ্রিলের সঙ্গে একমত হন? মোটেই না, হাস্যাস্পদ করে লাগনিন্দে করলে কখনই কাজ হয় না।

মানুষকে নিয়ে চলার ক্ষেত্রে যদি চমৎকার কিছু উপদেশ চান, আর নিজেকে চালনা আর ব্যক্তিত্বের উন্নতি ঘটাতে আগ্রহী হন তাহলে বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের আত্মজীবনী অবশ্যই পাঠ করবেন–এ আত্মজীবনী হল যত জীবনী আজ পর্যন্ত লেখা হয়েছে তার মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ আর আমেরিকার সাহিত্যের এক শ্রেষ্ঠ রত্ন।

ফ্রাঙ্কলিন তাঁর আত্মজীবনীতে লিখে গেছেন কীভাবে তিনি বিরক্তিকর তর্ক করার অভ্যাস ত্যাগ করেন আর নিজেকে কেমন করে আমেরিকার ইতিহাসে অতি ভদ্র, সক্ষম, আর কূটনীতিসম্পন্ন মানুষ করে গড়ে তোলেন।

একদিন, বেন ফ্রাঙ্কলিন যে সময় উড়নচণ্ডী যুবক, একজন বহুঁকালের বন্ধুসভার বন্ধু তাঁকে একপাশে টেনে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ কড়া ভাষায় কতকগুলো গায়ে বেঁধে এমন সত্যি কথা শুনিয়ে দেন। কথাগুলো অনেকটা এই রকম :

‘কেন, তোমাকে নিয়ে আর পারা যায় না। তোমার মতে মত দেয় না এমন সব লোককে তুমি প্রায় চড় মারাতেই বাকি রাখো। তোমার মত এখন তাই আর কারো পছন্দ নয়। কেউ তা নিতে চায় না। তোমার বন্ধুরা এটা বেশ বুঝতে পেরেছে তুমি ওদের কাছাকাছি না থাকলেই তাদের সময় ভালো কাটে। তুমি এতে বেশি জান যে কেউ তোমাকে কিছু শেখাতে পারে না। বাস্তবিকই, কেউ আর সেরকম চেষ্টাও করবে না যেহেতু তাতে শুধু গণ্ডগোল আর অযথা খেটে মরতে হয়। অতএব, তুমি আর বেশি কিছু শিখতে পারছ না যেটুকু জান তার চেয়ে তো নয়ই। তাছাড়া যা তুমি জান তাও অতি সামান্য।‘

বেন ফ্রাঙ্কলিন সম্পর্কে আমি যে চমৎকার জিনিসটা জানি তা হল তিনি কি সুন্দর ভাবেই না এই তিরস্কার গ্রহণ করেন। এটা বোঝার মতো তার যথেষ্টই বয়স হয়েছিল যে ব্যাপারটা সত্যিই, তিনি এটাও বুঝতে পেরেছিলেন যে এভাবে বলার অর্থ তিনি ব্যর্থ হবেন আর সামাজিক ভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বেন। তাই তিনি সময়মতই নিজেকে সংশোধন করে নিলেন। তারপর থেকেই তিনি তাঁর সেই উদ্ধত ধরন বদলে দিলেন।

‘আমি নিয়ম করে ফেললাম’, বেন ফ্রাঙ্কলিন লিখেছিলেন, অন্যের বিরক্তি ঘটিয়ে কোনোরকম সরাসরি তর্কে ছড়িয়ে পড়ব না আর নিজের মতামত জাহির করতেও চাইব না। তাছাড়াও আমি ঠিক করলাম কথাবার্তায় এমন কোনো কথা বলব না যাতে নিজের মতামত জানানো হয়। যেমন, নিশ্চয়ই ‘নিঃসন্দেহে’ ইত্যাদি। এর বদলে ঠিক করলাম ব্যবহার করব ‘আমার মনে হয়, আমার ধারণা’, ‘আমি ভাবছি এইসব। অন্য কেউ যদি কিছু বলে উঠতে চাইত আমি সরাসরি তাঁর কথায় বাধা না দিয় বা তার কথা অস্বীকার না করে বললাম তাঁর কথা হয়তো কোনো কোনো ক্ষেত্রে সঠিক হতেও পারে, তবে এ ব্যাপারে মনে হয় যেন সেটা অন্য কিছু হতে পারে, ইত্যাদি। আমি এরপর থেকেই এরকম কাজের তফাত বুঝতে পারলাম–আর বেশ সহজ ভাবেই সব ঘটে চলল। যেরকম বিনম্রতায় আমি আমার মতামত জানাতে শুরু করলাম তাতে কোনো বাধা না পেয়েই তা গৃহীত হতে লাগল। আমার ভুল হলেও কম স্তম্ভিত হতাম আর বেশ সহজেই অন্যেরা ভুল করলেও তাদের স্বমতে আনতে বেগ পেতে হত না।

এই রকম রীতিনীতি আমি এমন স্বাভাবিক ভাবেই আয়ত্ত করে ফেললাম যে সেটা বেশ সহজেই হয়ে এল যে গত পঞ্চাশ বছরেও কেউ কোনো ঝগড়া হতে পারে এমন কথা আমার মুখ থেকে শোনে নি। আর আমার এই অভ্যাসের জন্যই (আমার সততা নিয়েও) আমার মনে হয় আমি জনগণের উপর এমন প্রভাব বিস্তার করতে পেরেছিলাম যে পুরাতন বদল করে নতুন কিছু করতেও পারতাম। যদিও বক্তা হিসেবে আমি মোটেই ভালো ছিলাম না। নিজের কথা বা বক্তব্যও তেমন করে বোঝতেও পারতাম না তবুও আমি সাধারণভাবে সাফল্য অর্জন করেছিলাম।

বেন ফ্রাঙ্কলিনের এমন কৌশল ব্যবসায় ক্ষেত্রে কেমন কাজে লাগে? দুটো উদাহরণ দেয়া যাক।

নিউইয়র্কের ১১৪ লিবার্টি স্ট্রিটের এফ, জে, ম্যাহনি তেল ব্যবসা সংক্রান্ত যন্ত্রাদি বিক্রি করে থাকেন। তিনি লং আইল্যান্ডের একজন বড় কক্কেলের জন্য কাজের বায়না করেছিলেন। কাজটির জন্য একটা খসড়াও দেয়া ঞয় আর সেটা গৃহীত হলে কাজ রাও শুরু হয়। তারপরেই একটা দুর্ভাগ্যজনক ব্যাপার ঘটে যায়। ক্রেতা ভদ্রলোক তার বন্ধুদের সঙ্গে কাজটা নিয়ে আলোচনা করেন। তাঁরা তাঁকে সাবধান করে দিয়ে বলে তিনি মারাত্মক ভুল করেছেন। তাঁর উপর ভুল কিছু জিনিস চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে। এটা নাকি ছোট, এটা নাকি সেরকম, এরকম এই সব তাঁকে তাঁরা বোঝায়। বন্ধুদের কথায় ভদ্রলোকের মাথা খারাপ হয়ে যাওয়ার যোগাড়। তিনি মি. ম্যাহনিকে ফোন করে জানিয়ে দেন যে, যা বায়না দিয়েছেন তিনি সে জিনিস নিতে পারবেন না।

‘আমি সব ব্যাপারটা সতর্কতার সঙ্গে যাচাই করে দেখতে পেলাম আমরাযা কছি সেটাই ঠিক।’ মি. ম্যাহনি আমাকে জানিয়েছিলেন। তাছাড়াও আমি জানতাম ওঁর বন্ধুরা এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না বা বোঝেন না, তবে আমি বুঝলাম একথা তাঁকে বললে ফল মারাত্মক হবে। আমি লং আইল্যান্ডে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে তার অফিসে ঢুকতেই ভদ্রলোক প্রায় লাফিয়ে উঠে দ্রুত কথা বলতে বলতে আমার দিকে এগিয়ে এলেন। তিনি এমন উত্তেজিত যে প্রায় ঘুসি পাকাতেও চাইছিলেন। তিনি আমাকে ঢের বকাবকি করে কথাটা শেষ করলেন এই বলে : বলুন এ ব্যাপারে কি করতে চাইছেন?”

আমি তাকে বেশ শান্তস্বরেই বললাম, “তিনি যা চাইবেন তাই করব। আপনি এর দাম দিচ্ছেন, অতএব পছন্দসই জিনিস চাইবার অধিকার আপনার আছে। তা যাই হোক কাউকে দায়িত্ব নিতে হবেই। আপনি যদি মনে করেন আপনিই ঠিক তাহলে আপনার ব্লুপ্রিন্ট দিন যদিও আমরা ইতিমধ্যে ২০০০ হাজার ডলার খরচ করেছি, তাহলেও কাজটা বাতিল করব। এ দুহাজার আমরা আপনাকে খুশি করার জন্যই ব্যয় করতে রাজি। তবে আপনাকে একটু সাবধান করে দিতে চাই আপনার কথা মতো জিনিস বানানো হলে সে দায়িত্ব আপনাকেই নিতে হবে, আর আমাদের পরিকল্পনা মতো কাজ করতে দিলে দায়িত্ব নেব আমরাই।’

ভদ্রলোক ততক্ষণে শান্ত হেয় এসেছিলেন। তিনি শেষপর্যন্ত বললেন, “ঠিক আছে, কাজ করে যান। তবে পছন্দ না হলে সৃষ্টিকর্তা আপনাদের সাহায্য করুন।

“ঠিকই হয়েছিল সবকিছু, ভদ্রলোক আমাদের আরো দুদফা কাজ এ বছরেই দেবেন কথা দিয়েছেন।

‘ভদ্রলোক আমাকে যখন অপমান করেন আর ঘুসি উঁচিয়ে আসেন আর বলেন আমি আমার কাজ বুঝি না তখন আমার পক্ষে তর্ক না করে আত্মসম্বরণ করা কঠিনই ছিল। তবে সেটা করে, ভালোই করি, ওতে কাজও হয়। আমি যদি বলতাম তিনি ভুল করছেন তাহলে একটা তর্ক শুরু হত। হয়তো মামলাও হত, সৃষ্টি হত তিক্ততা, বহু টাকা খরচ হত, আমরা হারাতাম ভালো এক খরিদ্দার। আমার দৃঢ় বিশ্বাস হয়েছে, কেউ ভুল করছে না বলাই ভালো।

আর একটা উদাহরণ-মনে রাখবেন, যে সব কথা বলছি তার সবই হাজার হাজার মানুষের বিচিত্র অভিজ্ঞতারই ফসল। আর ভি. ক্রাউলে নিউইয়র্কের বিরাট একটা কাঠের কোম্পানির সেলসম্যান। তাঁকে একজন দক্ষ কাঠ পরিদর্শকের সঙ্গে কাজ করতে হয়, তার ভুল হচ্ছে বলতেও হয়। তিনি নিজে তর্কেও জেতেন। তবে তাতে কোনো লাভ হয় নি। কারণ এই কাঠ পরিদর্শকরা, মি. ক্রাউলে বলেছেন,

অনেকটা বেসবল খেলার বিচারকের মতো। তারা কোনো ধারণা করলে তা আর বদলায় না।’

মি. ক্রাউলে দেখলেন তর্কে তিনি জিতলেও তাঁর প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার ডলার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাই এবার তিনি তাঁর কাজে কৌশল পাল্টাবেন ঠিক করলেন। আর তর্ক করবেন না। ফল কি হল? তাঁর নিজের মুখেই শুনুন :

এক সকালে আমার অফিসে টেলিফোন বেজে উঠল। ওপাশ থেকে শোনাও গেল বেশ উত্তেজিত, অসন্তুষ্ট কণ্ঠস্বর। তিনি বললেন, আমরা যে তার কারখানায় একগাড়ি কাঠ পাঠিয়েছি সেগুলো একদম বাজে। তাঁর প্রতিষ্ঠান ট্রাক থেকে সরিয়ে নিই।’ ট্রাকের এক-চতুর্থাংশ নামানো হতে তাঁদের কাঠ

পরিদর্শক জানান যে কাঠের মান শতকরা ৫৫ ভাগনিচে। এ অবস্থায় তারা তা নিতে অস্বীকার করছে।

আমি সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে রওয়ানা হলাম আর যেতে যেতে ঠিক করতে লাগলাম কীভাবে সব সামাল দেব। সাধারণ অবস্থায় পড়লে আমি কাঠ বাছাই করার নিয়ম উল্লেখ করতাম আর ওই ঠাক পরিদর্শককে অবশ্যই বোঝাতে চাইতাম কাঠ ঠিক আছে আর তার মান ঠিক, এটা তাঁরই ভুল হচ্ছে। তিনি ভুল নিয়ম প্রয়োগ করছেন। অবশ্য আমি ঠিক করলাম এই শিক্ষায় যে নিয়ম শিখেছি তাই কাজে লাগাব।

কারখানার কাছে যখন পৌঁছলাম, তখন সেই ভদ্রলোক আর কাঠ পরিদর্শক বেশ বদমেজাজেই তৈরি হয়ে আছেন, লড়াই করতে তারা প্রস্তুত। আমরা এবার যে গাড়ি থেকে কাঠ নামানো হচ্ছিল সেখানে গোম। আমি তাঁদের অনুরোধ করলাম সব কাঠ নামাতে দেয়া হোক যাতে ব্যাপারটা বুঝতে পারি। পরিদর্শককে আমি এও বললাম তিনি বাতিল কাঠগুলো এক জায়গায় আর ভালোগুলো অন্য জায়গায় রাখুন।

‘বেশ কিছুক্ষণ লক্ষ্য করেই বুঝলাম পরিদর্শক ভদ্রলোক বড় বেশি রকম কড়া আর বাছাই করার নিয়ম তিনি মানছেন না। এই কাঠগুলো ছিল বিশেষ জাতের সাদা পাইন কাঠ–আমি এও বুঝলাম পরিদর্শক শক্ত কাঠ সম্পর্কে বেশ শিক্ষা পেয়েছেন বটে তবে সাদা পাইন সম্বন্ধে কিছুই জানেন না। সাদা কাঠে আমার অভিজ্ঞতা দারুণ এটা আমার বিষয়–তা বলে কি তিনি যেভাবে সব বাছাই করছিলেন তাতে আপত্তি করলাম? মোটেই না। আমি শুধু সব দেখতে দেখতে মাঝে মাঝে দুচারটে প্রশ্ন করতে লাগলাম ‘কোনো কাঠ কেন খারাপ-একবারের জন্যেও আমি বলি নি পরিদর্শক মশাই ভুল করছেন। আমি কেভল বোঝাতে চাইলাম আমার জানার উদ্দেশ্য হল ভবিষ্যতে পাঠানোর সময় যাতে তাদের পছন্দসই কাঠ পাঠাতে পারি।’

বেশ বন্ধুত্বপূর্ণ পথে আর সহযোগিতার ভঙ্গিতেই আমি বারবার বললাম, তাদের কাজে লাগবে না এমন কাঠ তারা অবশ্যই সরিয়ে নেবেন। কথাবার্তায় মাঝখানে ভদ্রলোককে বেশ মোলায়েম করে তুলোম আর আমাদের মধ্যেকার তিক্তভাব অনেকটাই কেটে গেল। আমার সতর্ক কয়েকটা উক্তিতে ভদ্রলোক বুঝলেন বাতিল কাঠগুলোর কিছু হয়তো সত্যিই ঠিক আছে আর আসলে তাদের দরকার আরো দামি কিছু। আমি সতর্ক ছিলাম যাতে তিনি না ভাবেন আমি এ নিয়ে কোনো কথা তুলছি।

আস্তে আস্তে তাঁর সমস্ত ভাবভঙ্গিই বদলে গেল। তিনি শেষ অবধি আমার কাছে স্বীকার করলেন সাদা পাইন কাঠ সম্বন্ধে তার তেমন অভিজ্ঞতা নেই। গাড়ি থেকে তা নামানোর সময় তিনি আমাকে সে সম্বন্ধে প্রশ্ন করতে লাগলেন। আমি তখন ব্যাখ্যা করলাম এ কাঠ কেন পাঠানো হয়েছে, অবশ্য তার পছন্দ না হলে ফেরত নেব। শেষপর্যন্ত ভদ্রলোকের এমন অবস্থা হল যে যতবার কাঠ বাতিলের সারিতে রাখা হচ্ছিল, তিনি নিজেকে দোষী ভাবছিলেন। শেষপর্যন্ত তিনি বুঝছিলেন ভুলটা তাঁদেরই হয়েছে যেরকম ধরনের কাঠ দরকার ছিল যে ধরনের কাঠের অর্ডার তাঁরা দেন নি।

অবশেষ যা দাঁড়াল, আমি বিদায় নেবার পর পরিদর্শক গাড়ি বোঝাই সব কাঠ আবার যাচাই করলেন আর সবটাই নিয়ে নিলেন আর আমরাও পুরো টাকার চেক পেয়ে গেলাম।

এই একটা ব্যাপারেই সামান্য একটু কৌশলে কাজ হয়ে গেল। যেহেতু আমি কোনোভাবেই অন্যজনকে বলি নি তিনি ভুল করছেন, আর এতে আমাদের প্রতিষ্ঠানের দেড়শ ডলার নগদে লাভ হল। অবশ্যই টাকার বিনিময়ে আমাদের যে সুনাম নষ্ট হত তার মূল্যায়ন হয় না।’

একটা কথা এবার বলতে চাই, এ পরিচ্ছেদে নতুন কিছু আমি বলছি না। ঊনিশ শতক আগে যীশু বলেছিলেন : ‘তোমার শত্রুর সঙ্গে চট করে একমত হও।

অন্য কথায় বলতে গেল আপনার মক্কেল, স্বামী বা শত্রুর সঙ্গে তর্ক করবেন না। কখনো বলবেন না তাঁর ভুল হচ্ছে, তাঁকে চটকে দেবেন না। বরং একটু কুটনীতি কাজে লাগান।

আর খ্রিস্টের জন্মের ২,২০০ বছর আগে মিশরের বৃদ্ধ রাজা আখখাঁটি তার ছেলেকে কিছু সুন্দর উপদেশ দিয়েছিলেন–যে উপদেশ আজকের দিনে অত্যন্ত প্রয়োজন। চার হাজার বছর আগে বৃদ্ধ রাজা আখখাঁটি মদ পান করার ফাঁকে তাঁর ছেলেকে বলেছিলেন : কৌশলী হও। এতে তোমার সুবিধা হবে।

অতএব, অন্যকে স্বমতে আনতে হলে দু নম্বর নিয়ম হল :

‘অপরের মতের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। কখনো তাকে বলবেন না–সে ভুল করছে।‘

শেয়ার বা বুকমার্ক করে রাখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *