দেহতত্ত্ব

অনেক ভাগ্যের ফলে সে চাঁদ কেউ দেখিতে পায়

অনেক ভাগ্যের ফলে সে চাঁদ কেউ দেখিতে পায়। অমাবস্যে নাইরে চাঁদে দ্বি-দলে তার কিরণ উদয়।।            বিন্দু মাঝে সিন্ধু-বারি            মাঝখানে তার স্বর্ণগিরি            অধর চাঁদের শূন্যপুরী                       সেহি তো তিল-প্রমাণ জায়গায়।।            যেথা রে সে চন্দ্র...

অমাবস্যার দিনে চন্দ্র থাকেন যেয়ে কোন শহরে

অমাবস্যার দিনে চন্দ্র থাকেন যেয়ে কোন শহরে। প্রতিপদে হয় সে উদয়, দৃষ্ট হয় না কেন তারে।।            মাসে মাসে চন্দের উদয়            আমাবস্যা মাস-অন্তে হয়            সূর্যের অমাবস্যার নির্ণয়                       জানতে হবে নেহাজ করে।।            ষোল কলা হলে শচী...

আছে আদি মক্কা এই মানব দেহে

আছে আদি মক্কা এই মানব দেহে            দেখ না রে মন চেয়ে। দেশ-দেশান্তর দৌড়ে এবার            মরিস্‌ কেন হাঁপিয়ে।। করে অতি আজব ভাক্কা গঠেছে সাঁই মানুষ-মক্কা            কুদরতি নূর দিয়ে। ও তার চার দ্বারে চার নূরের ইমাম            মধ্যে সাঁই বসিয়ে।। মানুষ-মক্কা কুদরতি কাজ...

আজব আয়না-মহল মণি গভীরে

আজব আয়না-মহল মণি গভীরে। সেথা সতত বিরাজে সাঁই মেরে।।            পূর্ব দিকে রত্ন-বেদী            তাহার উপরে খেলছে জ্যোতি            তারে যে দেখেছে ভাগ্যপতি                       সে জন সচেতন সব খবরে।।            জলের ভেতরে শুকনো জমি            আঠার মোকামে তাই কায়েমি...

আঠার মোকামে একটি রূপের বাতি জ্বলছে সদাই

আঠার মোকামে একটি রূপের বাতি জ্বলছে সদাই। নাহি তেল তার নাহি তুলা আজগুবি হয়েছে উদয়।।             মোকামের মধ্যে মোকাম             শূন্য শিখর বলি যার নাম             বাতির লুন্ঠন সেথায় সুদন             ত্রিভুবনে কিরণ দেয়।।             দিবানিশি আট প্রহরে             এক...

আপন ঘরের খবর লে না

আপন ঘরের খবর লে না। অনায়াসে দেখতে পাবি             কোনখানে কার বারামখানা।। কোমল ফোটা কারে বলি কার মোকাম তার কোথায় গলি কোন সময় পড়ে ফুলি             মধু খায় সে অলি জনা।। অন্য জ্ঞান যার সখ্য মোক্ষ সাধক উপলক্ষ অপরূপ তার বৃক্ষ             দেখলে চক্ষের পাপ থাকে না।। শুষ্ক...

আবহায়াতের নদী কোনখানে

আবহায়াতের নদী কোনখানে। আগে জিন্দাপীরের খান্দানে যাও            দেখিয়ে দিবে সন্ধানে।। সেই নদীর পিছল ঘাটা চাঁদ কোটালে খেলছে রে ভাটা দীন দুনিয়া জোড়া একটা            মীন আছে তার মাঝখানে।। মওলার মহিমা রে এমনি ও সে নদীতে বয় পরশে শুনি            অমর হবে সেই জনে।। আবহায়াতের...

আমার দেহ-নদীর বেগ থাকে না

আমার দেহ-নদীর বেগ থাকে না।             বানব কয় মোহানা। কাম-জ্বালাতে জ্বলে মরি             কৈ হল রে উপাসনা।। কালীধার ও পূবের ঘাটে এক মৃণালে তিন ফুল ফোটে             যোগ ছাড়া চলে না। আমি ভুলব বলে সে ফুলের মূল             ছয় পাগলের গোল মেটে না।। নদীরও উজান বাঁকে অজাগরে...

এ বড় আজব কুদরতি

এ বড় আজব কুদরতি আঠার মোকামের মাঝে              জ্বলছে একটি রূপের বাতি।। কিবা রে কুদরতি খেলা জলের মাঝে অগ্নি-জ্বালা খবর জানতে হয় নিরালা              নীরে ক্ষীরে আছে জ্যোতি।। ফণিমনি লাল জহরে সে বাতি রেখেছে ঘিরে তিন সময় তিন যোগ সেই ঘরে              যে জানে সে মহারতি।।১...

এক ফুলে চার রঙ ধরেছে

এক ফুলে চার রঙ ধরেছে ও সে ভাব-নগর ফুলে                         কি আজব শোভা করেছে।।১             কারণ বারির মধ্যে সে ফুল             ভেসে বেড়ায় একুল ওকুল             শ্বেত বরণ এক ভ্রমর ব্যাকুল                         সে ফুলে মধুর আশে।।২             মূল ছাড়া সে ফুলের...

ও সে ফুলের মর্ম জানতে হয়

ও সে ফুলের মর্ম জানতে হয়। যে ফুলে অটল বিহারে শুনতে লাগে বিষম ভয়।।             ফুলে মধু প্রফুল্লতা             ফলে তার অমৃত সুধা             এমন ফুল দীন-দুনিয়ায় পয়দা                         জানিলে দুর্গতি হয়।।             চিরদিনে সেই যে ফুল             দীন-দুনিয়ার...

কি আজব কলে রসিক বানিয়েছে কোঠা

কি আজব কলে রসিক বানিয়েছে কোঠা।। শূন্যভরে পোস্তা করে তার উপর ছাদ আঁটা।।            অনন্ত কুঠরি থরে থর            চারদিকে আয়না-মহল তার হাওয়ার পথ নাই, রূপ দেখা যায় মণি-মাণিক্যের ছটা।।            যেদিন যাবে রসিক চাঁদ সরে            হাওয়ার প্রবেশ হবে সেই ঘরে নিভাইলে রসের...

কিবা রূপের ঝলক দিচ্ছে দ্বিদলে

কিবা রূপের ঝলক দিচ্ছে দ্বিদলে। সে রূপ দেখলে নয়ন যায় ভুলে।। ফণি-মণি সৌদামিনী জিনি                         এরূপ উজলে।।             অস্থি-চর্ম শূন্যরূপ             আছে মহারসের কূপ                         বেগে ঢেউ খেলে। ও তার এক বিন্দু অপার সিন্ধু                        ...

কিবা শোভা দ্বিদলের ‘পরে

কিবা শোভা দ্বিদলের ‘পরে। এক রাশ মণি-মাণিক্যের রূপ ঝলক মারে।। আলোক-সম্ভব সে নিত্য গোলক তাহে বিরাজ করে পূর্ণ ব্রহ্মলোক;             হলে দ্বি-দল নির্ণয়             সব জানা যায় বাধা থাকে না সাধন-দ্বারে।। শত কিংবা সহস্রদল রস-রতি করে চলাচল;             দ্বি-দলেতে...

কিসে আর বোঝাই মন তোরে

কিসে আর বোঝাই মন তোরে। দেল-মক্কার ভেদ না জানিলে            হজ কিসে হয় রে।। দেল-মক্কা খোদ কুদরতি কাম খোদ খোদা দেয় তাইতে বারাম সেইজন্য নূর দেল-মক্কা নাম            সর্ব সংসারে।। এক দেল যার জিয়ারত হয় হাজার হাজী তার তুল্য নয় কেতাবেতে সাফ লেখা যার            তাইতে বলি রে।।...

কোন রসে কোন রতির খেলা

কোন রসে কোন রতির খেলা। জানতে হয় এই বেলা।। সাড়ে তিন রতি বটে লেখা যায় শাস্ত্রপাটে সাধ্যের মূল তিন রস ঘটে             তিনশ’ ষাট রসের বালা। জানলে সে রসের মরম             রসিক তারে যায় বলা।। তিন রস সাড়ে তিন রতি বিভাগে করে স্থিতি গুরুর ঠাঁই জেনে পাতি             শাসন...

কোন রাগে সে মানুষ আছে মহারসের ধনী

কোন রাগে সে মানুষ আছে মহারসের ধনী। পদ্মে মধু চন্দ্রে সুধা জোগায় রাত্রদিনি।।             সাধন সিদ্ধি প্রবর্ত তিন             রাগ ধরে আছে তিন জন             এ তিন ছাড়া বাগ নিরূপন                         জানলে হয় ভাবিনী।।             মৃণাল গতি রসের খেলা             নব...

কয় দমেতে বাজে ঘড়ি করবে ঠিকানা

কয় দমেতে বাজে ঘড়ি করবে ঠিকানা। কয় আজ দিন রজনী চলছে বল না।।             দেহের খবর যে জন করে             অনেক রূপ সে দেখতে পারে             অনেক রূপ হাওয়ায় চলে রে                         কি আজব কারখানা।।             দেহ-তলায় ঘড়ি ঘোরে             শব্দ হয় শব্দের ঘরে...

খাঁচার ভিতর অচিন পাখী কেমনে আসে যায়

খাঁচার ভিতর অচিন পাখী কেমনে আসে যায়। ধরতে পারলে মন-বেড়ী দিতাম তাহার পায়।।             আট কুঠুরী নয় দরজা আঁটা             মধ্যে মধ্যে ঝরকা কাটা             তার উপরে সদর কোঠা                         আয়না-মহল তায়।।             কপালে মোর নইলে কি আর             পাখিটির এমন...

খাকে গড়লো পিঞ্জিরে

খাকে গড়লো পিঞ্জিরে। এ শুকপাখি আমার কিসে গঠেছে রে।।            পাখি পুষলাম চিরকাল            নীল কিংবা লাল একদিন না দেখলাম সে রূপ সামনে ধরে।।            আবে-খাকে পিঞ্জিরা বর্ত            আতসে হইল পোক্ত                       পবন আড়া সেই ঘরে।।            আছে শুকপাখি...
Page 1 of 3123