গুরুতত্ত্ব/মুর্শিদতত্ত্ব

অকুল পাড় দেখে মোদের লাগল রে ভয়

অকুল পাড় দেখে মোদের লাগল রে ভয়। মাঝি বেটা বড় ঠেঁটা, হাল ছেড়ে দিয়ে                        বগল বাজায়।। উজান ভাটি তিনটি নালে দোম দমা দোম বেদম কলে                        এক শব্দ হয়। গুরুর গুরু পবন গুরু প্রেম আনন্দে                        সাঁতার খেলায়।। সামনেতে অপার নদী...

অমর ভেবে সার

             অমর ভেবে সার              দিন গেল আমার সার বস্তু ধন এবার হলাম রে হারা।।              হাওয়া বন্ধ হলে              সব যাবে বিফলে দেখে শুনে লালস গেল না মারা।। গুরু যারে সদয় হয় এ সংসারে লোভে সঙ্গ দিয়ে সেই যাবে সেরে। অঘাটায় আজ মরণ আমারে              জানলাম না...

আজব রং ফকিরি সাধা সোহাগিনী সাঁই

আজব রং ফকিরি সাধা সোহাগিনী সাঁই। ও তার চুপিসারি ফকিরি ভেক কে বুঝিবে রাই।।              সর্বকেশী মুখে দাড়ি              চরণে তার চুড়ি শাড়ি              কোথা হতে এল সিড়ি                           জানতে উচিত চাই।।              ফকিরি গোরের মাঝার              দেখ হে করিয়া...

আমারে কি রাখবেন গুরু চরণদাসী

আমারে কি রাখবেন গুরু চরণদাসী? ইতরপনা কার্য আমার অহর্নিশি।।              জঠর যন্ত্রণা পেয়ে              এলাম যে করার দিয়ে              রইলাম তা সব ভুলিয়ে                           ভবে আসি।।              চিনলাম না সে গুরু কি ধন              জানলাম না তার সেবা সাধন...

আমি চরণ পাব কোনদিনে

আমি চরণ পাব কোনদিনে। আমি ঘাটে ঘাটে পথে পথে              কাঁদছি তোমার জন্যে।। গুরু আমার দয়াল ভারি করলেন আমায় বনচারী গুরু দীনের অধম করলে              হাতে দিয়ে শিঙে।। চরণ পাবার আশে গুরু ফিরি তোমার দাসের দাসী (মন রে), গুরু দীনের অধম করলে              হাতে দিয়ে শিঙে।।...

আমি জন্ম-দুঃখী কপাল-পোড়া

আমি জন্ম-দুঃখী কপাল-পোড়া              গুরু আমি একজনা। আমার বদ্‌ হাল তুমি দেখলে না।। শিশুকালে মইর‌্যা গেছে মা গর্ভ থুইয়া পিতা ম’ল              তারে দেখলাম না। কে করবে সেই লালন পালন              কে করবে সান্ত্বনা।। গিয়েছিলাম ভবের বাজারে ছয় চোরা চুরি করে ...

আমি বলি তোরে মন, গুরুর চরণ কর রে ভজন

আমি বলি তোরে মন, গুরুর চরণ কর রে ভজন। গুরুর চরণ পরম রতন কর রে সাধন।।             মায়াতে মত্ত হলে             গুরুর চরণ না চিনিলে             সত্য পথ হারাইলে                         সব খোয়ালে গুরু-বস্তু ধন।।             ত্রিপীনের ত্রিধারে             মীনরূপে গুরু বিরাজ...

আয় কে যাবি ওপারে

আয় কে যাবি ওপারে। দয়াল চাঁদ মোর দিচ্ছে খেয়া             অপার সাগরে।। যে দিবে সে নামের দোহাই তারে দয়া করবেন গোঁসাই এমন দয়াল আর কেহ নাই             ভবের মাঝারে।। পার কর জগৎ বেড়ি নেয় না পারের কড়ি সেরে সুরে মনের দেড়ি             ভার দেনা তারে।। দিয়ে ঐ শ্রীচরণে ভার কত অধম...

একবার ভবের কেনারে লাগাও তরী

একবার ভবের কেনারে লাগাও তরী। কোথায় রইলেন দয়াল কাণ্ডারী।।             তুমি হে করুণার সিন্ধু             অধম জনারও বন্ধু             দাও হে একবার পদবিন্দু                         যেন তুফান তরিতে পারি।।             পাপী যদি না তরাবে             পতিত পাবন নাম কে শুনাবে...

ঐ রূপ তিলে তিলে জপ মন জুতে

ঐ রূপ তিলে তিলে জপ মন জুতে। ভুল নারে মন অন্য ভোলেতে।।             গুরু রূপ ধিয়ানে রয়             কি করবে তারে শমন রায়                         যায় সে গুরুর চরণ-তরীতে।।             উপর বারি সদর-আলা             স্বরূপ-রূপে করছে খেলা             স্বরুপ গুরুর স্বরূপ চেলা ...

ও আমার মন যারে চাই

ও আমার মন যারে চাই, তারে কোথায় পাই             মনে রে কি দিয়ে বুঝাই দেখা পাইলে চলে যাইতাম রে             যাইত এ দুনিয়ার বালাই।। ও ছিলাম জননীর কোলে ভজন ভজিব বলে শিশুকালে রিপু আইসে ফাঁসি দেয় গলে। আমি মায়ায় বসে সর্বনাশে             বাজাই দোজখের নাই।। ও গুরু, তোমার নামের...

কারে বলবো আমার মনের বেদনা

কারে বলবো আমার মনের বেদনা। এমন ব্যথায় ব্যথিত মেলে না।।             যে দুখে আমার মন             আছে সদায় উচাটন             বললে সারে না।             গুরু বিনে আর না দেখি কিনার                         তারে আমি ভজলাম না।।             অনাথের নাথ যে জনা মোর             সে...

কোথা আছে রে সেই দীন দরদী সাঁই

কোথা আছে রে সেই দীন দরদী সাঁই? চেতন-গুরুর সঙ্গ লয়ে খবর কর ভাই।।             চক্ষু অন্ধ দেলের ধোঁকায়             কেশের আড়ে পাহাড় লুকায়             কি রঙ্গ সাঁই দেখছে সদায়                         বসে নিগুম ঠাঁই।।             জেন্তে যদি না দেখিবে             আর কোথা...

গুরু গো সাঁই, হক নাম বল রসনা

গুরু গো সাঁই, হক নাম বল রসনা। যে স্মরণে যাবে জীব যন্ত্রণা।।             শিয়রে শমন বসে             কোন সময় বাঁধবে কষে             ভুলে রইলি বিষয় বশে                         দিশে হল না।।             কবার যেন ঘুরে ফিরে             মানুষ জনম পেয়েছে রে             এবার যেন...

গুরু দোহাই তোমার, মনকে আমার লও গো সুপথে

গুরু দোহাই তোমার, মনকে আমার লও গো সুপথে। তোমার দয়া বিনে তোমার সাধবো কি মতে।।             তুমি যারে হও গো সদয়             সে তোমারে সাধনে পায়             বিবাদী তার স্ববশে রয়                         তোমার কৃপাতে।।             যন্ত্রেতে যন্ত্রী যেমন             যেমত...

গুরু বল নৌকা খোল

গুরু বল, নৌকা খোল         সাধের জোয়ার যায়। আমার মন পবনে ঢেউ উঠেছে         প্রেমের বাদাম দেও নৌকায়।। আবার পাছের নৌকার মাঝি ভাল তারা বেয়ে আগে গেল          ও আবার ফিরে ফিরে চায়। আমার মন-মাঝি সে ডেকে বলে         নাও লাগাইও প্রেম-তলায়।। একে তো মোর জীর্ণ তরী পাপের বোঝাই...

গুরু বলে ধর পাড়ি মন হুঁস থেকে

গুরু বলে ধর পাড়ি, মন হুঁস থেকে         ও নদীর উজান বাঁকে।। ও নদীর মাঝখানে বসি আছে এক মেয়ে রাক্ষসী তার সুখ-সন্তান বেশী ও মালের জাহাজ পাইলে পরে         সে যে মাল লুটে নেয় চুমকে।। ও নদীর তিন ধারে তিন জন ব্রহ্মা বিষ্ণু ত্রিলোচন পাহারা দিচ্ছে সর্বক্ষণ নদীতে বান ডাকিলে সুধ...

গুরু বিনে কি ধন আছে

গুরু বিনে কি ধন আছে। কি ধন খুঁজিস ক্ষেপা কার কাছে।। বিষয়-ধনের ভরসা নাই ধন বলতে ধন গুরু গোঁসাই সে ধনের দিয়ে দোহাই ভব-তুফান যাবে বেঁচে।। পুত্র পরিবার বড় ধন পেয়েছি এই ভবের ভূষণ মায়ায় ভুল হয়ে অবোধ মন গুরু-ধনকে ভাবলি মিছে।। কোন ধনের কি গুণপনা অন্তিম কালে যাবে জানা গুরু-ধন...

গুরু যার কাণ্ডারী ভবে

গুরু যার কাণ্ডারী ভবে সেই অনায়াসে হবে পার এক নিরিখে থাকলে পরে তুফান বলে ভয় কি তার।। শুদ্ধ মাস্তুল ঠিক করিয়া প্রেম-বাদাম দেও খাটাইয়া ও মদনগঞ্জ বাঁয়ে রাখিয়া চালাও তরী উজান ধার।। শুদ্ধ প্রেমের তরীখানা এক মনের বেশী ধরে না গুরু-শিষ্য একই জনা ও তাই লালন বলে, এক মনের সই ওজন...

গুরু রূপের পুলক ঝলক দিচ্ছে যার অন্তরে

গুরু রূপের পুলক ঝলক দিচ্ছে যার অন্তরে কিসের আবার ভজন সাধন লোক-জানিত করে।। বকের ধরন করণ তাহার হয় দিক ছাড়া তার নিরিখ সদায় ও সে পলকভরে নিরিখ ধরে, যায় সে ভবপারে।। জ্যান্তে গুরু না পেলাম হেথা ম'লে পায় সে কথার কথা সাধক জানে গুরু মিলে না যথাতথা, সদায় দেখে ভজে তারে।।...
Page 1 of 3123