প্রত্যাদেশ ২২

১ পরে তিনি আমাকে জীবনদাযী জলের একটি নদী দেখালেন। এই নদী স্ফটিকের মতো স্বচ্ছ, তা ঈশ্বরের ও মেষশাবকের সিংহাসন থেকে বয়ে চলেছে। ২ নদীটি নগরের রাজপথের মাঝখান দিয়ে বয়ে...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ২১

১ এরপর আমি এক নতুন স্বর্গ ও নতুন পৃথিবী দেখলাম, কারণ প্রথম স্বর্গ ও প্রথম পৃথিবী বিলুপ্ত হয়ে গেছে; এখন সমুদ্র আর নেই। ২ আমি আরো দেখলাম, সেই পবিত্র...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ২০

১ এরপর আমি একজন স্বর্গদূতকে স্বর্গ থেকে নেমে আসতে দেখলাম। সেই স্বর্গদূতের হাতে ছিল অতল গহ্বরের চাবি আর একটা বড় শেকল। ২ তিনি সেই নাগকে ধরলেন, এ সেই পুরানো...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৯

১ এরপর আমি স্বর্গে এক বিশাল জনতার কলরব শুনলাম। সেই লোকরা বলছে:‘হাল্লিলুইয়া! জয়, মহিমা ও পরাক্রম আমাদের ঈশ্বরেরই, ২ কারণ তাঁর বিচারসকল সত্য ও ন্যায়। তিনি সেই মহান গণিকার...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৮

১ এইসব ঘটনার পর আমি আর একজন স্বর্গদূতকে স্বর্গ থেকে নেমে আসতে দেখলাম। তিনি মহাপরাক্রান্ত স্বর্গদূত, তাঁর জ্যোতি সমস্ত পৃথিবীকে আলোকিত করে তুলল। ২ তিনি প্রবল শব্দে চেঁচিয়ে উঠলেন:‘পতন...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৭

১ এরপর ঐ সাতটি বাটি যাদের হাতে ছিল, সেই সাতজন স্বর্গদূতদের মধ্যে একজন এসে আমায় বললেন, ‘এস, বহু নদীর ওপরে য়ে মহাবেশ্যা বসে আছে, আমি তোমাকে তার কি শাস্তি...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৬

১ তখন আমি মন্দির থেকে এক উদাত্ত কন্ঠস্বর শুনতে পেলাম, তা ঐ সাতজন স্বর্গদূতকে বলছে, ‘যাও, ঈশ্বরের রোষের সেই সাতটি বাটি পৃথিবীতে ঢেলে দাও।’ ২ তখন প্রথম স্বর্গদূত গিয়ে...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৫

১ পরে আমি স্বর্গে আর একটি মহত্ ও বিস্ময়কর চিহ্ন দেখলাম। সপ্তম স্বর্গদূতকে সপ্ত আঘাত নিয়ে আসতে দেখলাম। এগুলিই শেষতম আঘাত। এই আঘাতগুলির দ্বারা ঈশ্বরের মহাক্রোধের অবসান হবে। ২...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৪

১ এরপর আমি সিযোন পর্বতের ওপর এক মেষশাবককে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখলাম। তাঁর সঙ্গে দাঁড়িয়ে ১,৪৪,০০০ জন লোক। তাদের প্রত্যেকের কপালে তাঁর নাম ও তাঁর পিতার নাম লিখিত। ২ পরে...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রত্যাদেশ ১৩

১ এরপর আমি দেখলাম সমুদ্রের মধ্য থেকে একটা পশু উঠে আসছে, তার দশটা শিং ও সাতটা মাথা; আর তার সেই দশটা শিং-এর প্রত্যেকটাতে মুকুট পরানো আছে। তার প্রতিটি মাথার...
বাকিটুকু পড়ুন